শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০
Online Edition

গ্রামীণফোনের লাইসেন্স নবায়নে ৪০০ কোটি টাকা

বিডিনিউজ : আদালতের রায়ের পর টু-জি লাইসেন্স নবায়নে প্রায় চারশ' কোটি টাকা চেয়ে গ্রামীণফোনকে চিঠি দিচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি)। বিটিআরসি চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল জিয়া আহমেদ গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বলেন, লাইসেন্স নবায়ন ও স্পেক্ট্রাম ফি এবং ২০১০ সাল থেকে গ্রামীণফোনের কাছে পাওনার হিসাব চূড়ান্ত করা হয়েছে, আগামীকাল (বুধবার) গ্রামীণফোনের কাছে পাওনা চেয়ে চিঠি পাঠানো হবে। লেটফিসহ ৩৯৬ কোটি ৫ লাখ টাকা পাওনা চেয়ে এ চিঠি দেয়া হবে বলে জানান সংস্থাটির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, লাইসেন্স নবায়ন ও স্পেক্ট্রাম ফি বাবদ প্রথম কিস্তির জন্য লেটফিসহ ২৪৯ কোটি ২৯ লাখ টাকা এবং ২০১০ সাল থেকে গ্রামীণের বকেয়া লেটফিসহ ১৪৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা দিতে হবে। তিনি জানান, লাইসেন্স নবায়ন ও স্পেক্ট্রাম ফি বাবদ প্রথম কিস্তির জন্য লেটফি ৯ কোটি ৫৬ লাখ টাকা এবং ২০১০ সাল থেকে গ্রামীণফোনের বকেয়ার লেটফি ১৫ কোটি ১৬ লাখ টাকা।

কমিশন চেয়ারম্যান বলেন, শুধু গ্রামীণফোন নয়, অন্য তিন অপারেটর বাংলালিংক, রবি ও সিটিসেলের পাওনার বিষয়ে হিসাব চলছে। পাওনা চেয়ে বাকি তিন অপারেটরকেও চিঠি দেয়া হবে। অপারেটরদের অন্যান্য বকেয়া পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত লাইসেন্স নবায়ন করা হবে না বলে উল্লেখ করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান।

অবশ্য সোমবার তিনি বলেছিলেন, ২৩৯ কোটি ৭৩ লাখ টাকা জমা দিলেই গ্রামীণফোনের লাইসেন্স নবায়ন করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ