শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০
Online Edition

সিরিয়ায় বিরোধীদের ওপর সরকারি বাহিনীর হামলা জোরদার

আম্মান থেকে রয়টার্স : সিরিয়া জুড়ে কয়েকটি দিক থেকে গতকাল মঙ্গলবার বিরোধীদের ওপর হামলা শুরু করেছে সরকারি বাহিনী। এ হামলার মুখে রাজধানী দামেস্কের কাছের একটি শহর এবং হোমস থেকে পালাচ্ছে লোকজন।

হোমস শহরে কয়েকদিন ধরে চলমান বোমা ও গোলা হামলার মধ্যে মঙ্গলবার নতুন করে হামলা শুরু হয় দামেস্কের কাছের রানসুক শহরে। শহরটিতে গোলা হামলা চালিয়েছে সরকারি বাহিনী। ইবন আল কালমাউন এলাকার আন্দোলন কর্মীরা জানায়, শহরের ফোন লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং বহু অধিবাসী পালিয়ে গেছে।

ওদিকে, হোমসে বাবা আমরোর আশপাশে বিদ্রোহী শিবিরের অবস্থানগুলোতে মঙ্গলবার ভোরে প্রচন্ড গোলা হামলা হয়েছে। সকালে গোলা হামলার পর প্রতি ১৫ মিনিট পরপর চলছে একটি করে রকেট হামলা। আটকা পড়েছে শহরের অধিবাসীরা। বন্ধ হয়ে গেছে দোকানপাট, খাবার ও জ্বালানি স্বল্পতায় দেখা দিয়েছে মানবিক সঙ্কট। মঙ্গলবার সকালের দিকে রাস্তান শহরেও গোলা হামলা হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সিরিয়ায় গণআন্দোলন দমনে প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের এ বেপরোয়া হামলার নিন্দা করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান নাভি পিল্লাই জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ সিরিয়ার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাস করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণেই আসাদ সরকার আরও সোৎসাহে হামলা চালানোর সুযোগ পাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। সরকারি বাহিনীর দমন-পীড়নে এক বছরেরও কম সময়ের মধ্যে সিরিয়ায় প্রায় ৬ হাজার মানুষ মারা গেছে। আন্দোলনকর্মীরা বলছে, কেবল এ বছর ৪ ফেব্রুয়ারি থেকেই হোমস শহরে আসাদ বাহিনীর হামলায় অন্তত ৫০০ মানুষ মারা গেছে।

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে সিরিয়া বিরোধী প্রস্তাবনায় রাশিয়া ও চীনের ভেটোর পরই সিরিয়ার হোমস শহরে অবিরাম বোমা হামলা শুরু করে সরকারি বাহিনী। এখন তা ছড়িয়ে পড়ছে অন্যান্য শহরেও। এতে করে সিরিয়া জুড়ে মানবিক সংকট দেখা দেয়ার ঝুঁকি বাড়ছে বলে সতর্ক করেছেন নাভি পিল্লাই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ