বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বঙ্গোপসাগরে সফল মিসাইল উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে নৌবাহিনীর বার্ষিক নৌ মহড়া সমাপ্ত

বঙ্গোপসাগরে সফল মিসাইল উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বাৎসরিক সমুদ্র মহড়া ‘এক্সারসাইজ সী থান্ডার-২০১২' সমাপ্ত হয়েছে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে নৌবাহিনীর অত্যাধুনিক জাহাজ বানৌজা বঙ্গবন্ধু থেকে সমাপণী দিবসের মহড়াসমূহ প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় বানৌজা দুর্ধর্ষ হতে সফলভাবে মিসাইল উৎক্ষেপণ করা হয়। ইতোপূর্বে প্রধান অতিথি চট্টগ্রামে এসে পৌঁছলে নৌবাহিনী প্রধান ভাইস এডমিরাল জহির উদ্দিন আহমেদ তাকে স্বাগত জানান এবং নৌবাহিনীর একটি সুসজ্জিত দল গার্ড অব অনার প্রদান করে। তিনি গার্ড পরিদর্শন করেন ও সালাম গ্রহণ করেন। ২৩ দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এ মহড়ায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ফ্রিগেট, ওপিভি, মাইনসুইপার, পেট্রোলবোট, গানবোট, টর্পেডো বোটসহ অধিকাংশ জাহাজ, সদ্য বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে সংযোজিত মেরিটাইম হেলিকপ্টার এবং বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর জঙ্গী বিমান ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কয়েকটি ইউনিট এতে অংশগ্রহণ করে। চূড়ান্ত দিনের মহড়ায় উল্লেখ্যযোগ্য বিষয়ের মধ্যে ছিল বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জাহাজ হতে মিসাইল উৎক্ষেপণ, সাবমেরিন বিধ্বংসী গোলা নিক্ষেপ, বিমান বিধ্বংসী কামানের গোলাবর্ষণ ও নৌযুদ্ধের বিভিন্ন কলাকৌশল। নৌবাহিনীর এ বার্ষিক মহড়ার মূল প্রতিপাদ্য বিষয়ের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত ছিল সমুদ্র এলাকায় দেশের সার্বভৌমত্ব সংরক্ষণ, সমুদ্র সম্পদের হেফাজত, সমুদ্রপথের নিরাপত্তা বিধানসহ সমুদ্রপথে চোরাচালানরোধ, জলদস্যুতা দমন, উপকূলীয় এলাকায় জীববৈচিত্র সংরক্ষণ এবং সমুদ্র এলাকায় প্রহরা নিশ্চিতকরণ। এছাড়া মোট চারটি ধাপে অনুষ্ঠিত এ মহড়ার উল্লেখযোগ্য দিকসমূহের মধ্যে নৌবহরের বিভিন্ন কলাকৌশল অনুশীলন, সমুদ্র এলাকায় পর্যবেক্ষণ, অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান, লজিস্টিক অপারেশন, ল্যান্ডিং অপারেশন, উপকূলীয় এলাকায় অবস্থিত নৌ স্থাপনাসমূহের প্রতিরক্ষা মহড়া প্রভৃতি। মহড়ার সফল সমাপ্তি শেষে প্রধান অতিথি মহড়ায় অংশগ্রহণকারী সকল কর্মকর্তা ও নাবিকদের অভিনন্দন জানান এবং নৌ সদস্যদের উঁচু পেশাগতমান, দক্ষতা ও কর্মনিষ্ঠায় সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর অগ্রযাত্রাকে স্বাগত জানান। মাননীয় মন্ত্রী দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, সামুদ্রিক সম্পদ রক্ষা এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য একটি শক্তিশালী নৌবাহিনী গঠনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের কথা উল্লেখ করেন এবং সে লক্ষ্যে বর্তমান সরকারের অব্যাহত প্রচেষ্টার কথা ব্যক্ত করেন। এ সময় প্রধান অতিথি দেশের সমুদ্রসীমা রক্ষার পাশাপাশি জাতীয় অর্থনীতিতে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সক্রিয় ভূমিকার প্রশংসা করেন। নৌ মহড়ার এ চূড়ান্ত দিনের কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গ, নৌ সদর দফতরের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারগণ, কমডোর কমান্ডিং বিএন ফ্লোটিলাসহ পদস্থ নৌ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। আইএস

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ