শুক্রবার ১৭ জুলাই ২০২০
Online Edition

মিথ্যা মামলা ও নির্যাতন বন্ধ না হলে রোজার মধ্যেই হরতাল ঈদের পরে সরকার পতনের একদফার কর্মসূচি -আজহার

স্টাফ রিপোর্টার : জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জামায়াতে ইসলামী। ঢাকায় আয়োজিত সমাবেশে জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল এ টি এম আজহারুল ইসলাম সরকারকে হুশিয়ার করে দিয়ে বলেছেন, বিরোধী দলের ওপর অব্যাহতভাবে মামলা, হামলা আর জুলুম-নির্যাতন বন্ধ না হলে রোজার মধ্যেই হরতাল দেয়া হবে। আর ঈদের পরে সরকার পতনের একদফার আন্দোলন কর্মসূচিরও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। আজহার বলেন সরকার রাজনৈতিক মামলা বিবেচনায় দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৭ হাজার মামলা প্রত্যাহার করে নিয়ে হাজার হাজার অপরাধীকে ছেড়ে দিয়ে পুরো দেশকেই অপরাধীদের অভয়ারণ্যে পরিণত করেছে। তারা দলীয় রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে ফাঁসির আসামীদের ক্ষমা করে অপরাধ ও অপরাধীদের পৃষ্ঠপোষকতা করছে।  তারা রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য ভাল লোকদের গ্রেফতার করে জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে বিচারের নামে প্রহসন করছে। সরকার বিচারের নামে নিজেরাই আইনের শাসনকে পদদলিত করছে। আর এ ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় তারা জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে গ্রেফতার করে কারারুদ্ধ করেছে। কিন্তু জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে সরকার নিজেদের শেষ রক্ষা করতে পারবে না বরং তাদের জন্য শোচনীয় ও লজ্জাজনক পতন অপেক্ষা করছে। তিনি ষড়যন্ত্র বন্ধ করে ডা.তাহেরসহ শীর্ষনেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর পুরানা পল্টন সড়কে  জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী আয়োজিত কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী আমীর রফিকুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় প্রচার বিভাগের সেক্রেটারি অধ্যাপক তাসনীম আলম ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা এ টি এম মা'ছুম। বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য সহকারী সেক্রেটারি  নূরুল ইসলাম বুলবুল ও মাওলানা আব্দুল হালিম, মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য ডা. রিদওয়ান উল্লাহ শাহিদী, ড. মু. শফিকুল ইসলাম মাসুদ ও কবির আহমদ। উপস্থিত ছিলেন মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য এস এম রইছ উদ্দীন, মোহাম্মদ ফরিদ হোসাইন, মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, মোহাম্মদ সেলিম উদ্দীন ও আব্দুস সবুর ফকির প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ টি এম আজহারুল ইসলাম বলেন, সরকার দেশ পরিচালনায় সার্বিকভাবে ব্যর্থ হয়েছে। তারা দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি। বাণিজ্যমন্ত্রী জনগণকে কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। অর্থমন্ত্রী দেশের মানুষকে সপ্তাহে একদিন বাজারে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে প্রমাণ করেছেন দেশে দুর্ভিক্ষ শুরু হয়েছে। জনগণের পিঠ ইতোমধ্যেই দেয়ালে ঠেকে গেছে। প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী পুলিশ বাহিনী জনগণের জানমালের নিরাপত্তার কাজে ব্যস্ত না থেকে বিরোধী দল ঠেঙ্গানোর কাজে ব্যস্ত থাকায় দেশের আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটেছে। জনগণ আইনের শাসন থেকে বঞ্চিত হয়ে নিজেরাই আইন হাতে তুলে নিচ্ছে। এতে কথিত গণপিটুনীর নামে অনেক নিরপরাধ মানুষকে প্রাণ দিতে হচ্ছে। এভাবে কোন দেশ চলতে পারে না। তিনি বলেন, মূলত সরকার দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। সরকারবিরোধী দলের গণতান্ত্রিক অধিকার সভাসমাবেশ পুলিশ বাহিনী দিয়ে ভন্ডুল করে দিচ্ছে। কথায় কথায় বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হচ্ছে। মূলত সরকার জামায়াতকে নির্মূল করে নিজেদের ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করতে চায়। কিন্তু জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে, হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না বরং দুর্বার গণআন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে লজ্জাজনকভাবে ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, সরকার আগামী নির্বাচনে ভরাডুবি এড়ানোর জন্যই কেয়ারটেকার সরকার পদ্ধতি বাতিল করে জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। তারা বুঝতে পেরেছে জনগণ অবাধে ভোট দেয়ার সুযোগ পেলে তাদের পক্ষে আর কখনোই ক্ষমতায় আসা সম্ভব নয়। তাই তারা দলীয় সরকারের অধীনে পাতানো নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করতে চায়। কিন্তু দেশের মানুষ তাদের সে স্বপ্নবিলাস কখনোই বাস্তবায়িত হতে দেবে না। ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, সরকার দেশ থেকে ইসলাম বিতাড়নের অংশ হিসাবেই সংবিধান থেকে সর্বশক্তিমান আল্লাহর ওপর আস্থা তুলে দিয়ে দেশকে ধর্মহীনতা ও নাস্তিক্যবাদের দিকে নিয়ে যেতে চায়। তারা একই সাথে সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা, বিসমিল্লাহ ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রেখে দেশের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর সাথে প্রতারণা করেছে। এ সরকারকে আর এক মুহূর্ত ক্ষমতায় থাকতে দেয়া যায় না। ব্যর্থ ও জুলুমবাজ এ সরকারের পতনের লক্ষ্যে তিনি সকলকে ঐক্যবদ্ধ গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক তাসনীম আলম বলেন, আওয়ামী লীগ একটি ফ্যাসিস্ট ও স্বৈরাচারী রাজনৈতিক দল। তাদের এ বৈশিষ্ট্য জন্মলগ্ন থেকেই। তারা কখনোই ভিন্নমতকে সহ্য করতে পারে না। তারা বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে নিজেদের পর্বত প্রমাণ ব্যর্থতা আড়াল করতে চায়। কিন্তু সরকারের ষড়যন্ত্রে দেশের মানুষ কখনোই বিভ্রান্ত হবে না বরং ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের সকল ষড়যন্ত্র রুখে দেবে। তিনি বলেন, সরকার দেশ পরিচালার কোন ক্ষেত্রেই সফলতার পরিচয় দিতে পারেনি। তারা দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে পুরোপুরি ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। দেশের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি সকল সময়ের চেয়ে খারাপ পর্যায়ে। সরকার দেশের মানুষের জন্য গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পনির সুব্যবস্থা করতে পারেনি। জনদুর্ভোগ এখন চরম সীমায় পৌঁছেছে। সরকার জনগণের সমস্যা থেকে দেশের মানুষের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্যই ডা. তাহেরসহ বিরোধী দলীয় নেতাদের একের পর এক গ্রেফতার করছে। কিন্তু জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে সরকার আসন্ন সরকার বিরোধী আন্দোলন দমাতে পারবেনা বরং এ জন্য গণআন্দোলন আরও তীব্র হতে তীব্রতর হবে। তিনি আসন্ন সরকার পতনের আন্দোলনে সকলকে সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহণের আহবান জানান।

মাওলানা এ টি এম মা'ছুম, সরকার বিরোধী দল নির্মূল করে বাকশাল কায়েমের জন্যই সর্বশক্তি নিয়োগ করেছে। সরাকারের রোষাণলে পরেই ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে গ্রেফতার হতে হয়েছে। সরকার তার বক্তব্যকে বিকৃত করে মামলা দিয়ে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে চায়। এর মাধ্যমে সরকার দেশ থেকে জামায়াত নির্মূল করে নিজেদের ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করার স্বপ্ন দেখছে। কিন্তু জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে সরকার জামায়াতকে নির্মূল করতে পারবে না বরং সরকারের বিরুদ্ধে গণঅসন্তোষ গণবিষ্ফোরণে রূপ নিলে সরকারের পতন কেউ ঠেকাতে পারবে না।

নূরুল ইসলাম বুলবুল বলেন, শুধুমাত্র সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলার কারণেই ডা. তাহেরকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। সরকার নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকার জন্যই নন ইস্যুকে ইস্যু বানিয়ে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে দমন করে আবারও বাকশালী শাসন কায়েম করতে চায়। মূলত সরকার পতন আন্দোলন বাধাগ্রস্ত করার জন্যই বিরোধী দলের উপর দলন-পীড়ন চালাচ্ছে। কিন্তু দেশের মানুষ জীবন দিয়ে হলেও সরকারের সকল ষড়যন্ত্র রুখে দেবে।

মাওলানা আব্দুল হালিম বলেন, ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটি সুপরিচিত নাম ও বিপ্লবী কন্ঠস্বর। সরকার নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকার জন্য বিরোধী দলীয় জনপ্রিয় নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে নির্যাতন চালাচ্ছে। মূলত বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীরা সরকারের আক্রোশের স্বীকার। তিনি অবিলম্বে ডা. তাহেরসহ জামায়াতের শীর্ষনেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

ডা. রেদওয়ান উল্লাহ শাহিদী বলেন, সরকার একদিকে দেশে আইনের শাসনের কথা বললেও সরকার নিজেই এখন আইনকে অমান্য করছে। তিনি অভিযোগ করেন, সরকার নিজেই আদালত অবমাননা করছে ।

ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, সরকার বিরোধী দলকে কোন কথাই বলতে দিতে চায়না। অথচ সরকারের মন্ত্রীরা একেক জন একেক সময় জনগণকে ব্যঙ্গ করে নানা ধরনের আপত্তিজনক কথা বলছে। তিনি বলেন, সরকার গোটা দেশটাকেই যেন কারাগারে পরিণত করেছে। সরকার পবিত্র রমযান মাসকেও আজ মর্যাদা দিচ্ছে না। তবে আগামী দিনে দেশের জনগণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণ-প্রতিরোধের মাধ্যমে সরকারের সকল অন্যায় কাজের সমুচিত জবাব দেবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে রফিকুল ইসলাম খান বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ফ্যাসীবাদী ও সন্ত্রাসী সরকার। তারা আইনের শাসনের কথা বললেও নিজেরাই আইন মানে না। সরকার পুরো দেশে ইতোমধ্যেই জংলী শাসন কায়েম করেছে। সরকার  কথা বললেই বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়। তারা টি ভি টকশো'তে অংশগ্রহণকারীদেরকে হয়রানি করছে। কথা বলার কারণেই যদি বিরোধী দলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়, তাহলে মাওলানা নিজামী-সাঈদীকে প্রতিদিন কয়েকবার ফাঁসি দেয়ার জন্য সরকারের মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে কত মামলা হওয়া দরকার? তিনি তালবাহানা পরিহার করে আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। অন্যথায় দুর্বার গণআন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটিয়ে নেতৃবৃন্দকে বিজয়ীর বেশে কারামুক্ত করা হবে।

চৌদ্দগ্রাম সংবাদদাতা : ডাঃ সৈয়দ আবদুল্লাহ মোঃ তাহেরকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জামায়াতের এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা জেলা দক্ষিণ জামায়াতের আমীর আব্দুস সাত্তার। উপজেলা জামায়াতের আমীর সাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা জেলা দক্ষিণ জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট শাহজাহান। এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা জামায়াত সেক্রেটারি শাহ মোঃ মিজানুর রহমান, পৌর জামায়াতের আমীর মাহফুজুর রহমান, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা শিবির সভাপতি আমজাদ হোসাইন রুমন, মুন্সীরহাট ইউনিয়ন জামায়াত সভাপতি বেলাল হোসাইন।

সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে ডাঃ তাহেরকে মুক্তি না দিলে দুর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটানো হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

নোয়াখালী সংবাদদাতা : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ডা: সৈয়দ আবদুল্লাহ মোঃ তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদে নোয়াখালীতে গতকাল বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ মিছিল করেছে নোয়াখালী শহর জামায়াত। দুপুর ১২টায় শহর জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর মাওলানা রুহুল আমীনের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি  শহর শিবির কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পৌরবাজারে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন নোয়াখালী জেলা সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া , শহর জামায়াত সেক্রেটারি জহিরুল আলম ও ছাত্রশিবির নোয়াখালী  শহর সেক্রেটারি নেয়ামত উল্লাহ শাকের । সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারি সেক্রেটারি  মোঃ ইউছুব, শেখ সাহাব উদ্দিন, রাশেদ বিল্লাহ আলমগীর, জামায়াত নেতা খায়রুল আলম বুলবুল প্রমুখ।

কোম্পানীগঞ্জ সংবাদদাতা : ডা. আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরের মুক্তির দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা জামায়াতের উদ্যোগে এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সিলেট জেলা উত্তর জামায়াতের মজলিশে শূরা সদস্য ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আমীর আজমান আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, মোঃ রহিম উদ্দিন, মাওলানা আব্দুল করিম, মাওলানা ফয়জুর রহমান, উপজেলা ছাত্র শিবির সভাপতি সালাহউদ্দিন, সেক্রেটারি ইকবাল হোসেন, কোম্পানীগঞ্জ সাইফুর রহমান কলেজের শিবির সভাপতি মাসুম আহমদ, সেক্রেটারি আহমদ মনজু, সুহেল আহমদ প্রমূখ।

মাগুরা সংবাদদাতা : ডাঃ সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহেরকে  অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় দরি মাগুরা আল আমীন কমপ্লেক্স মিলনায়তনে মাগুরা পৌর জামায়াতের উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় ।

         পৌর আমীর অধ্যাপক রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাগুরা জেলা আমীর আব্দুল মতিন। সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন হাফেজ মাওলানা লিয়াকত আলী খান। বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক সাইদ আহমদ বাচ্চু , অধ্যাপক এম বি বাকের, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, অধ্যাপক আশরাফ হোসাইন, অধ্যাপক আলমগীর বিশ্বাস, মোঃ খায়রুল ইসলাম প্রমুখ ।

কালীগঞ্জ (লালমনিরহাট) সংবাদদাতা : ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মাদ তাহেরকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে জামায়াতে ইসলামী কালীগঞ্জ উপজেলার শাখার উদ্যোগে উপজেলা আমীর মাওলানা আতাউর রহমানের নেতৃত্বে এক বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিল শুরুর আগে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের বক্তব্য রাখেন উপজেলা জামায়াতের শূরা সদস্য ডা. হাসান আব্দুল মালেক, উপজেলা সেক্রেটারি মাওলানা মোসলেম উদ্দিন। বক্তাগণ অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত জামায়াত নেতা ডা. আব্দুল্লাহ মোহাম্মাদ তাহেরসহ জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবি জানান। মিছিলটি উপজেলা সদরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডে এসে শেষ হয়।

সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা : গতকাল বিকেলে সিরাজগঞ্জ শহর জামায়াতের উদ্যোগে ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহেরকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবিতে এক বিক্ষোভ সমাবেশ দরগাহ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সিরাজগঞ্জ জেলা জামায়াতের আমীর এডভোকেট আব্দুল লতিফ। শহর নায়েবে আমীর আব্দুল লতিফের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি শহীদুল ইসলাম এর পরিচালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি মাওলানা শাহীনুর আলম, সহকারী সেক্রেটারি জাহিদুল ইসলাম, জামায়াত নেতা এ্যাডভোকেট আজম মনিরুল ইসলাম, নাজিমউদ্দিন প্রমুখ।

ঝিনাইদহ সংবাদদাতা : ডা. তাহেকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে শহর শাখার উদ্যোগে এক বিক্ষোভ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিল শেষে এক সমাবেশ জেলা জামায়াত কার্যালয় প্রাঙ্গণে শহর আমীর কাজী সগীর আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আমীর ড. মাওলানা মুজাম্মিল হক। বক্তৃতা করেন নায়েবে আমীর মাওলানা আবুল কাসেম, সাংগঠনিক সেক্রেটারি আবদুল আলীম, সমাজ কল্যাণ সেক্রেটারি মোঃ ইসমাইল হোসাইন, অধ্যাপক আলী আজম, সদর আমীর মাওলানা আবদুল আওয়াল, শহর সেক্রেটারি মোঃ হাবিবুর রহমান, শিবিরের জেলা সেক্রেটারি মনিরুল কবীর প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা ডা. তাহেরের গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, সরকার রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করার জন্যই তাকে গ্রেফতার করেছে। দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন বলতে কিছু নেই। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে সরকারের ফ্যাসিবাদী চরিত্রেরই বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।

চাটখিল (নোয়াখালী) সংবাদদাতা : ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ তাহেরকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে চাটখিল উপজেলা জামায়াতের উদ্যোগে উপজেলা আমীর মাওলানা সাইফুল্লাহর নেতৃত্বে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তৃতা রাখেন সেক্রেটারি মাওলানা মনিরুজ্জামান, সহ-সেক্রেটারি মাওলানা শরিফ উল্লাহ গাজী, পেীরসভা আমীর নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া, সেক্রেটারি ডা. হারুন অর রশিদ প্রমুখ। বক্তারা অবিলম্বে তার মুক্তির দাবি জানান।

লক্ষ্মীপুর সংবাদদাতা : জামায়াত নেতা ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদে জামায়াতে ইসলামী লক্ষ্মীপুর শহর শাখার উদ্যোগে শহর আমির ফারুক হোসেন নুরনবীর সভাপতিত্বে স্থানীয় কার্যালয়ে এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রধান মেহমান হিসাবে বক্তব্য রাখেন জেলা আমীর রুহুল আমিন ভূঁইয়া। আরও বক্তব্য রাখেন জেলা সহাকারী সেক্রেটারি এ আর হাফিজ উল্লাহ, জেলা প্রচার সেক্রেটারি অধ্যাপক আব্দুর রহমান, শহর সেক্রেটারি শামছুল ইসলাম, শহর সহ-সেক্রেটারি সরদার সৈয়দ আহম্মদ, মুহাম্মদ মমিন উল্লাহ পাটওয়ারী। বক্তাগণ অবিলম্বে জামায়াত নেতা ডা. তাহেরসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

সাভার সংবাদাদাতা : গতকাল ঢাকা জেলা উত্তর শাখার আশুলিয়া, সাভার ও ধামরাই অঞ্চলে জামায়াতের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

আশুলিয়া : আশুলিয়া থানা আমীর এডভোকেট মোঃ শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে স্থানীয় গাজিরচরের খন্দকার মার্কেট সংলগ্ন থানা কার্যালয় চত্তরে সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা আমীর হোসাইন।

 সাভার : সাভারের স্থানীয় সবুজবাগস্থ সাভার ইসলামী সমাজকল্যান ট্রাস্ট মিলনায়তনে সাভার পৌরসভার আমীর বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সা'দ উল্লাহর সভাপতিত্বে সামাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জিলা নায়েবে আমীর অধ্যাপক মসিহুজ্জামান খান, বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা রাজনৈতিক সচিব হাসান মাহবুব মাস্টার। অন্যান্যের মধ্যে থানা আমীর মাওলানা এ বি এম নূরুল হক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ধামরাই : ধামরাই থানার শ্রীরামপুর খেলারমাঠে থানা দক্ষিণের সভাপতি মাওলানা সোলায়মান আজাদির সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর আমীর মাওলানা আঃ রউফ।

কক্সবাজার সংবাদদাতা : জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচির আলোকে জামায়াতে ইসলামী কক্সবাজার শহর শাখার উদ্যোগে কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরের মুক্তির দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয় বিক্ষোভ সমাবেশ। শহর জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর এডভোকেট জাকরুল্লাহ ইসলামীর সভাপতিত্বে-এ সমাবেশে প্রধান ও বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও জেলা আমীর, মুহাম্মদ শাহজাহান, কেন্দ্রীয় শুরার সদস্য বর্ষিয়ান নেতা এডভোকেট সালামতুল্লাহ। জাতীয় নেতৃবৃন্দসহ আব্দুল্লাহ তাহেরের অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রচার সম্পাদক আবুহেনা মোস্তফা কামাল। আলহাজ্ব সাইদুল আলম ও জামায়াত নেতা এডভোকেট এ কে ফিরুজ আহমদ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। এদিকে সাবেক ছাত্রনেতা ও প্রাক্তন এমপি আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ তাহেরের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানান কক্সবাজার জেলা শিবির সভাপতি কামরুল হাসান ও সেক্রেটারি আল্ আমিন মুঃ সিরাজুল ইসলাম।

ফরিদপুর সংবাদদাতা : জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক ছাত্রনেতা ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মুহাম্মাদ তাহেরকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার ও জেলে প্রেরণের প্রতিবাদে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ফরিদপুর পৌরসভা আমীর মাওলানা মুহাম্মদ বদরুদ্দীনের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যাপক শাহেদ আলী, জেলা আমীর মুহাম্মদ দেলোয়ার হুসাইন, জেলা নায়েবে আমীর মুহা: খালেছ, জেলা সেক্রেটারি শামসুল ইসলাম আল বরাটী, সহকারী সেক্রেটারি আবু হারিচ মোল্যা, শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের জেলা সভাপতি এসএম শাহজাহান, জেলা প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক সাইয়েদ ইসরাইল হক ও রফিকুল ইসলাম খান প্রমুখ। অধ্যাপক শাহেদ আলী বলেন, ডা. আবদুল্লাহ মুহাম্মদ তাহেরকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে জেলে প্রেরণ করা হয়েছে। তিনি ডা. আবদুল্লাহ মুহাম্মদ তাহের সহ সকল কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মুক্তি দাবি করেন।

নওগাঁ সংবাদদাতা : গতকাল বিকেল ৫টায় বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী নওগাঁ শহর শাখার উদ্যোগে  সংগঠনের দলীয় কার্যালয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে জামায়াতের আমীর মাওলানা নিজামী, নায়েবে আমীর মাওলানা সাঈদী, সেক্রেটারি জেনারেল মুজাহিদের মুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ সমাবেশ করে শহর জামায়াত। উক্ত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নওগাঁ জেলা জামায়াতের নায়েবে আমীর অধ্যাপক আব্দুর রশিদ। শহর জামায়াতের আমীর আ.স.ম সায়েমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি খ.ম আব্দুর রকিব, জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা, জেলা শিবিরের সভাপতি মাইনুল ইসলাম, সদর উপজেলা জামায়াতের সভাপতি আব্দুর রহমান, সদর উপজেলা জামায়াতের অর্থ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন প্রমুখ।

কোটচাঁদপুর সংবাদদাতা : জামায়াতের শীর্ষ ৫ নেতাসহ আটক জামায়াত শিবিরের সকল নেতা কর্মীর মুক্তির দাবিতে, সাবেক সংসদ সদস্য ও কেন্দীয় কর্মপরিষদের সদস্য ডা. আ. মো. তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল বিকেলে কোটচাঁদপুর থানা জামায়াতের উদ্যোগে স্থানীয় ব্রীজঘাট চার রাস্তার পাশে থানা আমীর মাওলানা তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় শুরা সদস্য অধ্যাপক মতিয়ার রহমান। আরো বক্তব্য রাখেন থানা জামায়াতের সেক্রেটারি আজিজুর রহমান, থানা জামায়াতের রাজনৈতিক সেক্রেটারি মোয়াবিয়া হুসাইন, আজমপুর ইউনিয়ন আমীর আ. সাত্তার, সাদ আহমেদ প্রমুখ।

কুমারখালী (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা : জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা, কেন্দ্রিয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ আবু তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে কুন্ডুপাড়াস্থ উপজেলা কার্যালয়ে এ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন, জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি দেলয়ার হোসেন। উপজেলা জামায়াতের আমীর সোহরাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জামায়াত নেতা মাওলানা সামছুদ্দিন আহম্মেদ, উপজেলা জামায়াতের সেক্রেটারি কামারুজ্জামন, জামায়াত নেতা আব্দুল মান্নান, আব্দুল হাকীম প্রমুখ।গতকাল পটুয়াখালী পৌরসভার উদ্যোগে পৌর আমীর অধ্যাপক শহীদুল ইসলাম আল্ কায়ছারীর সভাপতিত্বে ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মুহাম্মদ তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদ এবং মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা সেক্রেটারি অধ্যাপক আবুল বাশার মো. ছাইফুল্লা। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা আমীর আধ্যাপক মাওলানা আবদুস ছালাম খান, জেলা মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের সভাপতি এডভোকেট মাহবুব  বিন্ নূর ও মাওলানা হারুন অর রশিদ প্রমুখ।

ঝিকরগাছা (যশোর) সংবাদদাতা : গতকাল বিকেলে ঝিকরগাছা উপজেলা জামায়াতের উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে উপজেলা নায়েবে আমীর শেখ আশরাফুল আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য মকবুল হুসাইন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাস্টার মনিরুজ্জামান, মাওলানা লুৎফুর রহমান মাদানী, অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন, মাস্টার তোরাব উদ্দীন, মাওলানা রেজাউল করীম, নজরুল ইসলাম খান, অধ্যাপক আইয়ুব হোসেনসহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।

পাবনা সংবাদদাতা : জামায়াত নেতা ডা. আব্দুল্লাহ মো. তাহেরের গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল পাবনা পৌর জামায়াত এক প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট হামিদুর রহমান মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন পৌর জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ ইকবাল হুসাইন। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা জামায়াতের আমীর অধ্যাপক আব্দুর রহীম, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা নায়েবে আমীর মাওলানা জহুরুল ইসলাম, সেক্রেটারি অধ্যাপক আবু তালেব মন্ডল, পৌর সেক্রেটারি অধ্যাপক বেলাল হুসাইন, শিবির শহর শাখার সভাপতি মো. ইকরামুল হক প্রমুখ। সমাবেশে বক্তাগণ বলেন, সরকার বিরোধীদলকে দমন নিপীড়নের জন্য জামায়াত নেতা আব্দুল্লাহ মো. তাহেরকে গ্রেফতার করেছে। সরকার বাকশাল কায়েমের মাধ্যমে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছে। তাই তারা বিরোধীদলকে দলনের জন্য জেল জুলুমের পথ বেছে নিয়েছে।

গাইবান্ধা সংবাদদাতা : গতকাল বৃহস্পতিবার জামায়াতের গাইবান্ধা জেলা কার্যালয়ে এক বিক্ষোভ সমাবেশ সদর আমীর ডা. আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা আমীর ডা. আব্দুর রহিম সরকার, জেলা সেক্রেটারি আব্দুল করিম, জেলা রাজনৈতিক সেক্রেটারি আমিনুল হক, প্রফেসর মোখলেছুর রহমান, মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিক প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, রোজার মাসেও এ সরকার সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে মিথ্যা মামলায় জামিন না দিয়ে গ্রেফতার করে বাকশালি চরিত্র উন্মোচন করেছে। এ জন্য আমরা তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত সাবেক এমপি তাহেরের মুক্তি দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

জয়পুরহাট সংবাদদাতা : ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহেরের মুক্তির দাবিতে জামায়াতে ইসলামী জয়পুরহাট শহর ও সদর শাখার উদ্যোদে জেলা সেক্রেটারি প্রভাষক নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে গতকাল একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে। মিছিলে ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহের গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়া হয়। এ সময় মিছিলে উপস্থিত ছিলেন জেলা সহ-সেক্রেটারি মাওলানা শামসুল ইসলাম, সদর আমীর এডভোকেট মামুনুর রশিদ, ছাত্রশিবির জয়পুরহাট জেলা শাখার সাহিত্য সম্পাদক আল-মামুন, জেলা দফতর সম্পাদক আনোয়ার হোসেনসহ আরো অনেকে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ