শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

ত্রিপোলি অভিযানে বিপ্লবীদের পরিকল্পনা

সংগ্রাম ডেস্ক : লিবিয়ার রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করেছে কানাডা। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন বেয়ার্ড জানিয়েছেন, আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে লিবিয় রাষ্ট্রদূতকে কানাডা ছাড়তে হবে। এ ছাড়া, লিবিয় দূতাবাসের ব্যাংক একাউন্ট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং আরো চার কূটনীতিককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। লিবিয়ার রাষ্ট্রদূত বহিষ্কারের বিষয়ে কানাডার এ সিদ্ধান্ত স্বৈরশাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফির জন্য নতুন বিপর্যয় বলে মনে করা হচ্ছে। এর আগে, ফ্রান্স ও জার্মানিসহ কয়েকটি দেশ লিবিয়ার রাষ্ট্রদূত বহিষ্কার করেছে। কানাডা লিবিয়ায় ন্যাটো অভিযানে অংশ নিচ্ছে এবং তারা ছয়টি এফ ১৮ জঙ্গীবিমান বিমান পাঠিয়েছে।

এ দিকে, লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির দিকে অভিযানের জন্য নতুন করে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিপ্লবী যোদ্ধারা। পশ্চিমাঞ্চলীয় বির আল -ঘানামে অবস্থান শক্ত করার পর তারা এ অভিযানের পরিকল্পনা নিচ্ছে বলে জানিয়েছে। এর অংশ হিসেবে বিপ্লবীরা প্রথমে জাভিয়া শহরে অভিযান চালাতে চায়। জাভিয়া শহর রাজধানী ত্রিপোলি থেকে ৫০ কিলোমিটার পশ্চিমে। অবশ্য, বিপ্লবীদের অভিযান ঠেকাতে গাদ্দাফির অনুগত বাহিনীও তাদের অবস্থান জোরদার করেছে। এ অবস্থায় আজও দু'পক্ষের মধ্যে রকেট ও মেশিনগানের গুলি বিনিময় হয়েছে। অন্যদিকে, বৃটেনে ভয়াবহ দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ায় বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনকে পদত্যাগের আহবান জানিয়েছে গাদ্দাফির সরকার। লিবিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদ কাইমের উদ্ধৃতি দিয়ে সরকারি বার্তা সংস্থা জানা বলেছে, দেশটিতে জনপ্রিয় আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ায় এবং বিক্ষোভকারীদের ওপর বর্বর দমন-পীড়ন চালানোর পর ক্যামেরনকে অবশ্যই ক্ষমতা ছাড়া উচিত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ