সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪
Online Edition

তরুণদের মধ্যে বাড়ছে হার্ট অ্যাটাকের প্রবণতা

হার্ট অ্যাটাক একটা গুরুতর সমস্যা। যাতে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে মানুষের। তবে আগে একটা বয়সের পর এর ঝুঁকি বাড়ত। কিন্তু আজকাল তরুণদের মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের ঘটনা বেড়েছে। এর অন্যতম কারণ অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা। কিছু কারণ তুলে ধরছি। ১) স্থূলতার কারণে কোলেস্টেরল বেড়ে যায়- স্থূলতাও অস্বাস্থ্যকর হার্টের অন্যতম কারণ। তরুণদের খাওয়া-দাওয়ার অভ্যাস দিন দিন খারাপ হচ্ছে। সময়ের স্বল্পতার কারণে তারা নিজেদের খাবার নিজে রান্না করতে পারছে না এবং পেট ভরানোর জন্য জাঙ্ক ফুডের উপর নির্ভর করছেন। আর এই ধরনের খাবারে স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে যা কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় যার সরাসরি প্রভাব পড়ে হার্টের উপর। ২)ওজন বৃদ্ধি- অতিরিক্ত ওজন হৃৎপিণ্ডের ওপর চাপ সৃষ্টি করে এবং শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ায়। এই কোলেস্টেরল রক্তনালীতে জমা হয় এবং তাদের ব্লক করে, শিরার মধ্যদিয়ে রক্ত চলাচলে বাধা দেয় এবং এটি হৃৎপিণ্ডের রক্ত পাম্প করার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। ৩) পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়া- দেরি করে ঘুম থেকে ওঠা এবং কম ঘুম হার্টের ওপর ভালো প্রভাব ফেলে না। ৪) ক্যারিয়ার এবং কাজের চাপ- আজকাল যুবকরা তাদের ক্যারিয়ার, ভাল চাকরি এবং একটি মানসম্পন্ন জীবনধারা বজায় রাখার বিষয়ে চাপের মধ্যে রয়েছে। ফলে স্ট্রেস প্রবল আকার ধারণ করেছে, যা হার্টের স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলছে। মানসিক চাপ শরীরে কর্টিসল এবং অ্যাড্রেনালিনের মতো হরমোন নিঃসরণ করে, যা রক্তনালীতে বিরূপ প্রভাব ফেলে। এ কারণে রক্তচাপ বেড়ে যায় এবং দীর্ঘ সময় ধরে এ অবস্থা চলতে থাকলে হৃদপিণ্ডের রক্তনালিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ৫) সিগারেট- এর নেশার কারণে হৃৎপিণ্ডে অক্সিজেনের সরবরাহ কমে যায় এবং হৃদস্পন্দনে বাধা সৃষ্টি হয়। উপরন্তু, এটি রক্তে জমাট বাঁধার দিকে পরিচালিত করে এবং রক্তনালিতে রক্তের মসৃণ প্রবাহকে হ্রাস করে। সাবধান হতে হবে এসব বিষয়ে। তথ্যসূত্র : ইন্টারনেট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ