ঢাকা, বুধবার 01 February 2023, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ৯ রজব ১৪৪৪ হিজরী
Online Edition

নিজের দেশের চেয়েও নিরাপদ কাতার’- বলছেন পশ্চিমা নারীরা

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্কঃ আন্দ্রেয়া এম যখন ফিফা বিশ্বকাপ উপলক্ষে কাতারে যুক্তরাষ্ট্রের টিমের সঙ্গে নিউইয়র্ক থেকে যাত্রা করেন, তখন তিনি স্বজনদের আশ্বস্ত করেছিলেন যে, টুর্নামেন্ট চলাকালীন তিনি ঝুঁকিপূর্ণ কিছু করবেন না।

কারণ দোহায় পা রাখার আগে কাতার সম্পর্কে তিনি যা পড়েছিলেন তা ছিল উদ্বেগজনক। ২৯ বছর বয়সী আন্দ্রেয়া বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যের মার্কিন মিডিয়ার চিত্রায়ন আমি এখানে যা অভিজ্ঞতা করেছি তার থেকে খুব আলাদা ছিল।’ উদ্বেগের কারণে তার বন্ধুরা কাতারে ভ্রমণ থেকে বিরত ছিল।

আন্দ্রেয়া বলেছেন যে, কাতারে এসে তিনি খুশি হয়েছেন। তার কথায়, ‘বিশ্বকাপের আয়োজন ও কাতার পুরোপুরি নিরাপদ। সাধারণ জিনিস যেমন গভীর রাতে শহরের চারপাশে হাঁটা, এটি এমন কিছু যা আমি বাড়ি ফিরে করতে পারি না।’

গ্রুপ পর্বের অনেক ম্যাচ এবং নকআউট ম্যাচ রাত ১০টায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে করে ম্যাচ শেষে ভক্তদের হোটেলে ফিরতে মধ্যরাত পার হয়ে যায়। এছাড়া ভক্তরা স্টেডিয়ামে, ফ্যান জোনে খেলার জয় উদযাপন করেন। নারীরাও স্বতস্ফূর্তভাবে এসব খেলায় অংশ নিচ্ছেন। তারা বড় স্ক্রীনিংয়ে ফুটবল দেখছেন, ভক্তদের সঙ্গে গান গাইছেন, নাচছেন। নিরাপত্তার কথা চিন্তা না করেই অনায়াসে কাতার ঘুরছেন তারা।

নুম্বিও ক্রাইম ইনডেক্স অনুসারে, দোহা নিয়মিতভাবে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ বা দ্বিতীয় নিরাপদ শহর হিসাবে স্থান পেয়ে আসছে।

জয় এনকুনার জন্য অভিজ্ঞতাটি তার নিজ দেশ দক্ষিণ আফ্রিকার সম্পূর্ণ বিপরীত ছিল। কারণ তার দেশ নারী ভ্রমণকারীদের জন্য সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশগুলোর একটি। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে অপরাধের হার অনেক বেশি, বিশেষ করে নারীদের বিরুদ্ধে। সাম্প্রতিক সরকারি পরিসংখ্যান অনুসারে, জুলাইয়ের শুরু থেকে সেপ্টেম্বরের শেষের মধ্যে তিন মাসের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় এক হাজারেরও বেশি নারীকে হত্যা করা হয়েছে।’

৩৯ বছরের এনকুনা বলেন যেন, ‘দেশে সূর্যাস্তের পরে একা বের হন না। অন্ধকার হওয়ার মুহূর্ত থেকে, মহিলারা একা বের হতে পারবেন না। এটি করলে বিপদে পড়বেন। এখানে (কাতারে) আমি এবং আমার মেয়ে ভোররাত ৩টায় ঘুরে বেড়াতাম এবং কেউ আমাদের ভয় দেখায়নি, আমাদেরকে ডাকেনি বা আমাদের দিকে এমনভাবে তাকায়নি যাতে আমরা অনিরাপদ বোধ করি।’

তেত্রিশ বছর বয়সী ব্রাজিল ভক্ত তাতিয়ানা লোপেজেরও কাতারে এসে একই অভিজ্ঞতা হয়েছে। ভেঙে গিয়েছে সব ভুল। তিনি তার দুই বান্ধবীর সঙ্গে এসেছেন। লোপেজ বলেন, ‘এখানকার পুরুষরা খুব বিনয়ী। যদিও আমি কলম্বিয়াতে যতটা দেখতে অভ্যস্ত, তারচেয়ে পাবলিক প্লেসে (মহিলাদের তুলনায়) বেশি পুরুষদের দেখা অদ্ভুত, তারা সবাই খুব সম্মান করেছে।’

লোপেজ বলেন যে, তিনি তার জিনিসপত্র নিয়ে চিন্তা না করেই টুর্নামেন্ট উপভোগ করছেন। তার কথায়, ‘আমি আসলে আমার ব্যাকপ্যাকটি আমার পিঠে বহন করতে পারি এবং আমার ফোনটি আমার পকেটে রাখতে পারি কারণ আমি জানি কেউ এটি আমার কাছ থেকে ছিনিয়ে নেবে না।’

কাতারে বসবাসকারী নারীরা বলেছেন, বিশ্বকাপে নিরাপত্তার বিষয়টি নতুন কোনো বিষয় নয়। খাদিজা সুলেমান একজন ৩২ বছর বয়সী ইথিওপিয়ান, যিনি ১০ বছর ধরে কাতারে বসবাস করছেন। তিনি বলেন, ‘আমি নিরাপদ বোধ করার জন্য একজন মানুষের সাথে থাকার প্রয়োজন বোধ করি না।’

নিশ্চিত করে বলা যায়, বিশ্বকাপের কারণে কাতারে নিরাপত্তার উপস্থিতি বেড়েছে। তবে আগে থেকেই দেশটি এমন নিরাপদ।

ডালিয়া আবুশুল্লাইহ সৌদি আরব থেকে কাতার ভ্রমণ করেছেন এবং বলেছেন যে তিনি নারীদের পাবলিক স্পেসে উদযাপন করতে দেখে আনন্দিত। তিনি বলেন, ‘কাতার নিশ্চিত করেছে যে মহিলারা টুর্নামেন্টের সক্রিয় অংশ হয়ে নিরাপদ এবং স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে এবং অবাধে উপভোগ করতে পারে।’

২৯ বছর বয়সী ডালিয়া বলেন, ‘বিশ্ব অবশেষে আমাদের সুন্দর আরব সংস্কৃতির সাক্ষী হচ্ছে। লোকেরা এটিকে গ্রহণ করে এবং এর একটি অংশ নিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে দেখা খুব সুন্দর।’

স্টেডিয়ামগুলো ছাড়াও নারী এবং শিশুরা দোহার সোক ওয়াকিফের মতো পর্যটন এলাকা এবং সারা শহরে ছড়িয়ে থাকা ফ্যান জোনগুলোতে ভিড় করেছে। কেউ কেউ উৎসব শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দিনের বেলায় পৌঁছায়, অন্যরা ম্যাচ-পরবর্তী উদযাপনে যোগ দিতে ভিড় করে।

ম্যাচ ভেন্যুতে বা তার কাছাকাছি অ্যালকোহল বিক্রি নিষিদ্ধ করার সংগঠকদের সিদ্ধান্তটি অনেক নারীকে আত্মবিশ্বাসী করেছে। তারা নিশ্চিত হয়েছে যে, খেলায় অংশ নেওয়া সবার নিরাপত্তার সঙ্গে কাতার আপস করবে না।

ব্রাজিলের টুর্নামেন্টের স্বেচ্ছাসেবক ক্যামিলা ফেরিয়েরা বলেন যে, ‘স্টেডিয়ামে মাতাল ভক্তরা তাকে ঘিরে থাকবে না এটি তাকে আরও নিরাপদবোধ করতে সাহায্য করেছে।’

দোহার একটি ফ্যান জোন

তিনি বলেন, ‘আমি কখনোই (ব্রাজিলে) একা ফুটবল ম্যাচে যাওয়ার কথা কল্পনাও করতে পারিনি। আমি গভীর রাতে বাইরে থাকা, ভয় ছাড়াই জনসমক্ষে আমার ফোন ব্যবহার করা এবং কেবল হাঁটা বা ফুটবল ম্যাচ উপভোগ করতে পারা কল্পনা করতে পারি না। এখানে আমি ১০০ শতাংশ নিরাপদ বোধ করি । নিরাপদ এবং নিরাপদ উপায়ে উৎসব এবং ফুটবল উপভোগ করতে সক্ষম হওয়া দারুণ ব্যাপার।’

লুসাইল স্টেডিয়ামে হাজার হাজার ব্রাজিলিয়ান ভক্তের মাঝখানে বসেছিলেন কুয়েতি ফুটবল ভক্ত হনুফ আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, ‘কাতার বিশ্বকে দেখিয়েছে যে অ্যালকোহল ছাড়াই ফুটবল উপভোগ করা যায় এবং নারীরা তাদের নিরাপত্তার জন্য ভয় না পেয়ে এটি উপভোগ করতে পারে।’ 

সূত্র: আল জাজিরা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ