শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Online Edition

ডিএসইর লেনদেন দুই হাজার কোটি টাকার ঘরে নেমেছে

স্টাফ রিপোর্টার : চলতি সপ্তাহে টানা দুই কার্যদিবস দরপতনের পর তৃতীয় কার্যদিবসে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্যসূচক কিছুটা বাড়লেও লেনদেন খরা দেখা দিয়েছে। ডিএসইতে লেনদেন কমে দুই হাজার কোটি টাকার ঘরে চলে এসেছে। ফলে ২০২১ সালের ৫ এপ্রিলের পর সর্বনি¤œ লেনদেনের ঘটনা ঘটলো।

গতকাল মঙ্গলবার লেনদেন খরার দিনে ডিএসইতে দাম কমার তালিকায় যে কয়টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে, দাম বাড়ার তালিকায় স্থান করে নিয়েছে তার থেকে বেশি প্রতিষ্ঠান। অবশ্য বাড়া বা কমার তুলনায় দাম অপরিবর্তিত থাকা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাই বেশি। দাম অপরিবর্তিত থাকা এসব প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম ফ্লোর প্রাইসে (সর্বনি¤œ দাম) আটকে রয়েছে। ফ্লোর প্রাইসে আটকে থাকা এসব প্রতিষ্ঠানের শেয়ার যেসব বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে তারা ক্রেতার অভাবে তা বিক্রি করতে পারছেন না। গতকাল শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার মাধ্যমে। ফলে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে যায়। লেনদেনের শুরুতে দেখা দেওয়া এই ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। তবে শুরু থেকেই লেনদেনে ধীরগতি দেখা যায়। দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে ৫০ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ২৫টির। আর ২২৮টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। ফলে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৬ পয়েন্ট বেড়ে ৬ হাজার ২২৯ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে বাছাই করা ভালো ৩০টি কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক আগের দিনের তুলনায় ৭ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ২০৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্ আগের দিনের তুলনায় ৪ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৩৬৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

সবকটি মূল্যসূচক বাড়ার দিনে ডিএসইতে ২০ মাসের বেশি সময়ের মধ্যে সর্বনি¤œ লেনদেন হয়েছে। দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৭১ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। এর আগে ২০২১ সালের ৫ এপ্রিল থেকে কম লেনদেন হয়। ২০২১ সালের ৫ এপ্রিল ২৩৬ কোটি ৬০ লাখ টাকার লেনদেন হয়। লেনদেন খরার বাজারে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে ‘আমরা নেটওয়ার্কের’ শেয়ার। কোম্পানিটির ১৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা মুন্নু সিরামিকের ১২ কোটি ৪৯ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ১১ কোটি ৪৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে জেনেক্স ইনফোসিস। এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- বসুন্ধরা পেপার, ওরিয়ন ফার্মা, ইস্টার্ন হাউজিং, এডিএন টেলিকম, অলিম্পিক, সোনালী আঁশ এবং চাটার্ড লাইফ ইনস্যুরেন্স।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ৪১ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেওয়া ১২৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩৩টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ২১টির এবং ৭৫টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ