শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Online Edition

কেশবপুরে চলছে আমন ধান কাটা ও মাড়াই উৎসব

মোল্যা আব্দুস সাত্তার, কেশবপুর (যশোর) : যশোরের কেশবপুর উপজেলা ব্যাপী চলছে ধান কাটা ও মাড়াই উৎসব। ধান ঘরে তুলতে কৃষাণ কৃষাণীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। ধানের বাজার দর ভালো থাকায় কৃষকরাও বেজায় খুশি। তবে খরার কারণে কাঙ্খিত ফলন না হওয়ায় কৃষকরা হতাশা ব্যক্ত করেছেন।  

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, চলতি বছর আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৯ হাজার ৩২০ হেক্টর জমি। কিন্তু বৃষ্টির অভাবে সময়মত কৃষকরা বীজতলা তৈরিসহ আবাদ করতে ব্যর্থ হয়। যে কারণে ৮ হাজার ৮‘শ হেক্টর জমিতে এবার আমন আবাদ হয়। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৪৪ হাজার মেট্রিকটন। কিন্তু খরার কারণে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে ধরা হয়েছে ৪২ হাজার ২৪০ মেট্রিকটন। যা গত বছরের চেয়ে ২ হাজার মেট্রিকটন কম। 

খুচরা ধান ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তার জানান, এক সপ্তাহ আগে ধানের দাম ছিল প্রতিমন ১৩৭০ থেকে ১৩৮০ টাকা পর্যন্ত। গত সাতদিন ব্যবধানে বাজার দর নেমে প্রতি ৪০ কেজীর ১ মন ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ১২‘শ থেকে ১২৭০ টাকা দরে। খরার কারণে অধিকাংশ উঁচু জমির ধানের ফলন একটু কম হলেও সব মিলিয়ে ধানের ভালো ফলন হয়েছে। বাজার দরও ভালো।    

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋুতুরাজ সরকার বলেন, আমন ধান বৃষ্টির ওপর নির্ভরশীল। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় ধানের ফলন কিছুটা কমেছে। তবে গত বছরের চেয়ে চলতি বছর বাজারে ধানের দাম বেশী থাকায় কৃষক লাভবান হবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ