ঢাকা, বুধবার 01 February 2023, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ৯ রজব ১৪৪৪ হিজরী
Online Edition

ময়মনসিংহ বোর্ডে এক হলের ৫২ পরীক্ষার্থী গণিতে ফেল, তদন্তের দাবি

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে এসএসসির প্রকাশিত ফলাফল প্রত্যাশিত হওয়ায় প্রায় লক্ষাধিক শিক্ষার্থী উচ্ছ্বাসে ভাসলেও বিষাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার আঠারবাড়ি সরকারি কলেজ কেন্দ্রের ৫২ পরীক্ষার্থী। তারা সবাই ওই কেন্দ্রের একটি কক্ষে পরীক্ষা দিয়েছিল।

অন্য সব বিষয়ে তাদের ফলাফল ভালো হলেও রহস্যজনক কারণে তারা সবাই গণিত পরীক্ষায় অকৃতকার্য (ফেল) হয়েছে। এনিয়ে পরীক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবক মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

তাদের অভিযোগ, পরীক্ষার ফলাফল শিট তৈরিতে হয়তো ঝামেলা হয়েছে, না হলে একটি কক্ষের ৫২ শিক্ষার্থী একই বিষয়ে ফেল করবে, তা হতে পারে না। পরীক্ষার খাতা তদন্ত করলেই এ রহস্য উদ্ঘাটন হবে বলেও দাবি ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের।  

সূত্র মতে, এবারের এসএসসি পরীক্ষায় আঠারবাড়ি সরকারি কলেজের আট নম্বর কক্ষে কেন্দুয়া উপজেলার শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের মোট ৬০ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়।  

এর মধ্যে আটজন ছাড়া বাকি ৫২ জন পরীক্ষার্থীই এসএসসির ফলাফলে গণিত বিষয়ে ফেল করেছে। ২৮ নভেম্বর এসএসসির ফলাফল প্রকাশিত হলে এ ঘটনাটি ধরা পড়ে।  

ওই হলের পরীক্ষার্থী ইয়াসির আরাফাত প্রান্ত বলে, আমি সব বিষয়ে এ প্লাস পেয়েছি, শুধুমাত্র গণিতে ফেল দেখানো হয়েছে। এ ফলাফল মেনে নিতে পারছি না। গণিত পরীক্ষা আমার খুব ভালো হয়েছে।

ঘটনাটি মেনে নিতে পারছেন না ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীদের শিক্ষক মো. আসাদুজ্জামানও।

তিনি জানান, এ ফলাফল আমরা মেনে নিতে পারছি না। ফলাফল শিট তৈরিতে কোথাও ঝামেলা হতে পারে। বিষয়টি সঠিকভাবে তদন্তের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানাচ্ছি।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন আঠারবাড়ি সরকারি কলেজ কেন্দ্রের সচিব আব্দুল মতিন ভূঁইয়া। তিনি বলেন, যারা গণিতে অকৃতকার্য হয়েছে, তারা অন্য সব বিষয়ে ভালো নম্বর পেয়েছে। তাদের মধ্যে অনেকেই গোল্ডেন এ প্লাস পাবে। কিন্তু গণিতে তারা রহস্যজনক কারণে অকৃতকার্য। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা উচিত। এতে শিক্ষার্থীদের ভবিষৎ জড়িত।

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান গাজী হাসান কামাল জানান, ঘটনাটি জেনেছি। কিন্তু হল কর্তৃপক্ষ কেউ আমাদের কাছে এখনো অভিযোগ করেনি। তাই পরীক্ষার পুরো প্রক্রিয়া খতিয়ে না দেখে এ বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না।  

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ