শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Online Edition

মেথি একসঙ্গে  ৪ রোগের ওষুধ ব্লাড সুগার তো কমবেই

মেথির উপকারিতা অনেক। সেই প্রাচীন কাল থেকেই। মেথি ভেজানো পানির কথা অনেকেই জানেন। আজকাল পুষ্টিবিদরাও রোজ সকালে খালিপেটে মেথি পানি খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। মেথির বীজ ভিজিয়ে খেলে যেমন উপকার পাওয়া যায় তেমনই মেথি পাতার মধ্যেও আছে একাধিক গুণাগুণ। পাাঁচফোড়নের মধ্যেও মেথি থাকবেই। প্রাচীন আয়ুর্বেদ থেকেই মেথির রমরমা। মেথি বেটে চুলে লাগালে চুল পড়া কমে। অনেক গুপ্ত রোগের একমাত্র দাাওয়াই এই মেথিই। পক্স বা হামের সমস্যাতেও নিয়ম করে মেথি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। মেথি স্বাদে একটু তিতকুটে। তবে প্রয়োজনীয় খনিজের ভান্ডার হল মেথি। মেথির মধ্যে রয়েছে ভিটামিন কে, থায়ামিন, ফোলিক অ্যাসিড, রাইবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, ভিটামিন এ, বি ৬। খনিজের মধ্যে আছে কপার, পটাশিয়াম, ক্যালশিয়াম, আয়রন, সেলেনিয়াম, জিঙ্ক, ম্যাঙ্গানিজ ও ম্যাগনেশিয়াম। শীতে ত্বক এমনিই শুষ্ক হয়ে যায়। সেই সঙ্গে ত্বকে নানা রকম অ্যালার্জির সমস্যাও হয়। রোজ খালি পেটে মেথি ভেজানো পানি খেলে ফিরবে শরীরের জেল্লা। শরীর থেকে ক্ষতিকর টক্সিন বেরিয়ে যাবে। মেথির মধ্যে রয়েছে একরকম অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা ডায়াবেটিস রুখতে সাহায্য করে। আর তাই যাঁদের ডায়াবেটিস থাকে তাঁদের মেথি চিবিয়ে খেতে অথবা মেথি ভেজানো পানি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। ক্যানসার রুখতেও মেথির ভূমিকা রয়েছে বলে জানাচ্ছে আয়ুর্বেদ। পেটের গোলমালে মেথির রস কাজে আসে। আজকাল বাজারে মেথির ক্যাপসুল পাওয়া যায়। এটিও খাওয়া যেতে পারে। মেথি একাধিক রোগের ওষুধ। তবে যাদের অন্য কোনও শারীরিক সমস্যা রয়েছে তাঁরা খাওয়ার আগে অবশ্যই একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নেবেন। মেথি ভেজানো পানির মধ্যে রয়েছে সাপোনিস ও ডায়োজেনিন নামের ২ রকমের যৌগ। যা হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। একইসঙ্গে যৌন ক্ষমতা বাড়াতেও কার্যকরী হল মেথি। মেথির মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার। রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। যাঁদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে তাঁরা রোজ মেথি ভেজানো পানি খেলে একাধিক উপকার পাবেন। ওজন কমাতেও মেথির ভূমিকা অনবদ্য। রোজ টানা ৬ মাস মেথি ভেজানো পানি খেলে ওজন কমবেই। রোজ ৫ গ্রামের বেশি মেথি খাওয়া ঠিক নয়। তবে তাও দু বেলা ভাগ করে খান। এছাড়াও টানা ৬ মাসের বেশি মেথি খাওয়া ঠিক নয়। তথ্যসূত্র : ইটারনেট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ