সোমবার ৩০ জানুয়ারি ২০২৩
Online Edition

চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে ৩৪ দিন ধরে অবস্থান কর্মসূচি

স্টাফ রিপোর্টার: চাকরি স্থায়ী করার দাবিতে টানা ৩৪ দিন ধরে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন গণপূর্ত অধিদপ্তরের দৈনিক হাজিরাভিত্তিক কর্মচারীরা। কর্মসূচি পালনের এক মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো অধিদপ্তরের কোনো পদক্ষেপ না দেখে হতাশ কর্মচারীরা। প্রতিদিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে তাদের দাবি উত্থাপন করেন কর্মচারীরা।

আন্দোলনের সমন্বয়ক মনির হোসেন শোভন বলেন, আমাদের দাবির কথা প্রায় সব জায়গায় দাবি জানিয়েছি, কেউই আমাদের ডাকে সাড়া দেয়নি। আমাদের কান্না যেন কেউই শুনছে না। কেউ এখন পর্যন্ত দেখাও করেনি। টানা ৩৪ দিনের আন্দোলনে আমাদের কয়েকজন সহকর্মী অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। আমাদের দাবি, আমরা দুমুঠো খেয়ে বেঁচে থাকতে চাই। আমাদের সন্তানদের সর্বনিম্ন প্রয়োজন মেটানোর সুযোগ চাই। আমরা প্রয়োজনে এখানেই মারা যাব, তাও আন্দোলন চালিয়ে যাব।

তিনি আরও বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী দৈনিক মজুরিতে নিয়োগ পাওয়া একজন শ্রমিকের কাজের মেয়াদ ১৩ বছর পূর্ণ হলে তাকে রাজস্ব খাতে আনার নীতিমালা রয়েছে। কিন্তু যুগের পর যুগ চাকরির পরও গণপূর্ত বিভাগের হাজিরাভিত্তিক শ্রমিকদের চাকরি স্থায়ী করা হচ্ছে না। হাইকোর্টের রায়ের আলোকে ১ হাজার ৫১৭ জন কর্মচারীর মধ্যে থেকে ৪২ জনকে চাকরিতে স্থায়ী করা হয়েছে। কিন্তু দেড় বছর পেরিয়ে গেলেও গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলীর দপ্তর থেকে সেই চিঠির কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

আন্দোলনরত কর্মচারীরা বলেন, আমাদের যে পরিমাণ পারিশ্রমিক দেয়া হয়, তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। আমরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছি। আমাদের সন্তানদের পড়ালেখার খরচ চালাতে কষ্ট হয় এই চাকরি করে। হাড় ভাঙা পরিশ্রম করেও আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের তাচ্ছিল্য নিয়ে বেঁচে আছি। আমরা বড় বড় সাহেবদের সঙ্গে কাজ করি তাদের সহযোগী হিসেবে। কিন্তু আমাদের দুঃখ কেউ বুঝে না। তারা বলেন, আশ্বাস দিয়েও আমাদের দাবি পূরণ করা হচ্ছে না। আমাদের নামেই মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করার পাঁয়তারা চালিয়ে আসছে গণপূর্তের একটি চক্র।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ