বুধবার ৩০ নবেম্বর ২০২২
Online Edition

গ্রীন নাইন কোম্পানিকে ৩ লাখ টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার: চকলেট তৈরির অনুমোদনই নেই। তবুও মেয়াদোত্তীর্ণ রং ও ফ্লেভার ব্যবহার করে চকলেট তৈরি করে আসছিল গ্রীন-৯ কোম্পানি লিমিটেড। সেই চকলেটের বক্সের গায়ে মেয়াদ থাকলেও ভেতরে থাকা চকলেটের মোড়কের তারিখ অনুযায়ী তা মেয়াদোত্তীর্ণ। আবার মোড়কের গায়ে ওজন ১০ গ্রাম লেখা থাকলেও বাস্তবে সেটা ৫ দশমিক ৬৫ গ্রাম। অবৈধভাবে ব্যবসা পরিচালনা এবং তাতেও এমন কারসাজি করায় গ্রীন-৯ কোম্পানি লিমিটেডকে তিন লাখ টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। গত বুধবার রাজধানীর উত্তরখানের উজামপুর এলাকায় গ্রীন-৯ কোম্পানির কারখানায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় প্রতিষ্ঠানটির এমন কারসাজির চিত্র দেখতে পান ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও সংশ্লিষ্টরা। এদিকে, জরিমানার পাশাপাশি কেন প্রতিষ্ঠানটির লাইসেন্স বাতিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, সে বিষয়ে সশরীরে উপস্থিত হয়ে আগামী সাতদিনের মধ্যে ব্যাখ্যা দেওয়ার জন্য অধিদপ্তরে গ্রীন-৯ কোম্পানি কর্তৃপক্ষকে তলব করা হয়। 

এ অভিযান পরিচালনা করেন ঢাকা জেলা কার্যালয়ের অফিস প্রধান সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার ম-ল ও প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম। আব্দুল জব্বার ম-ল বলেন, কোম্পানির বিভিন্ন রকমের চকলেট তৈরিতে মেয়াদোত্তীর্ণ রং, ফ্লেভার ব্যবহার করা হতো। আরও কিছু রং ও ফ্লেভারের মোড়কের গায়ে লেবেল নেই। আবার চকলেটের বাক্সের গায়ে উৎপাদনের তারিখ ২৮-৯-২০২২ থাকলেও ভেতরে চকলেটের গায়ে ২৫-০৫-২০২২ লেখা। এসব চকলেট তৈরি হচ্ছিলও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে।

তিনি বলেন, তারা আরও চতুরতার আশ্রয় নিয়েছেন। চকলেটের মোড়কের গায়ে ওজন ১০ গ্রাম লেখা থাকলেও বাস্তবে পাওয়া যায় ৫ দশমিক ৬৫ গ্রাম। তাদের ডিউ ও ভেগান নামের চকলেট তৈরির সপক্ষে বিএসটিআইয়ের কোনো লাইসেন্স নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ