ঢাকা সোমবার 08 August 2022, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ৯ মহররম ১৪৪৪ হিজরী
Online Edition

মাঙ্কিপক্স: সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় মাঙ্কিপক্স নিয়ে বিশ্বব্যাপী ‘জরুরি স্বাস্থ্য অবস্থা’ ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

শনিবার (২৩ জুলাই) জেনেভায় স্থানীয় সময় বিকেল ৩টায় এক সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচও প্রধান তেদরোস আধানম গেব্রেয়াসুস বিশ্বব্যাপী মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ নিয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারির ঘোষণা দেন।

সংস্থাটি জানিয়েছে, বিশ্বের ৭০টিরও বেশি দেশে মাঙ্কিপক্স ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় বিষয়টি এখন ‘অস্বাভাবিক’ পর্যায়ে চলে গেছে। ফলে এমন পরিস্থিতিতে মাঙ্কিপক্স নিয়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করল তারা। 

এর আগে মাঙ্কিপক্সের বিষয়ে আলোচনার জন্য দুই দফায় বৈঠক করে ডব্লিউএইচও।

ডব্লিউএইচও ঘোষণা দিয়েছে, বিশ্বব্যাপী মাঙ্কিপক্সের বিস্তার আন্তর্জাতিক উদ্বেগের পাশাপাশি জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতার পরিস্থিতি তৈরি করেছে। সারা বিশ্বের সরকারগুলো ক্রমবর্ধমান প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে কঠোরভাবে চেষ্টা চালালেও ভাইরাসটি আরও ছড়িয়ে পড়ার ‘সুস্পষ্ট ঝুঁকি’ রয়েছে।

জাতিসংঘের সংস্থাটির পক্ষ থেকে এটিই সর্বোচ্চ সতর্কতার মাত্রা। ২০০৭ সালে চালুর পর থেকে এখন পর্যন্ত ইবোলা, জিকা, কোভিড-১৯, পোলিওসহ মাত্র ছয়টি রোগের প্রাদুর্ভাবের জন্য এই সতর্কতা জারি করেছে তারা।

জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার কারণে এখন এক সময় বিরল রোগ হিসেবে বিবেচনা করা মাঙ্কিপক্সের চিকিৎসা নিয়ে আরও বেশি অর্থ ব্যয় করা হবে। 

মাঙ্কিপক্স রোগটি কয়েক দশক ধরে পশ্চিম ও সেন্ট্রাল আফ্রিকায় ছিল। গতে মে মাসের আগ পর্যন্ত এ রোগটির সন্ধান আফ্রিকা মহাদেশের বাইরে পাওয়া যাওয়ার কথা জানা যায়নি। 

মে মাসে ইউরোপ, নর্থ আমেরিকা এবং অন্যন্য অঞ্চলে মাঙ্কিপক্সের সন্ধান পায় কর্তৃপক্ষ। 

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় রোগতত্ত্ব অধিদপ্তরের জানিয়েছে, মে মাসের পর পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ১৬ হাজার মানুষের দেহে মাঙ্কিপক্স রোগের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সাম্প্রতিক সময়ে কোভিড-১৯ মহামারি, ২০১৪ সালের উত্তর আফ্রিকার ইবোলা, ২০১৬ সালে লাতিন আমেরিকার জিকা ভাইরাস এবং বর্তমানে চলমান পোলিও নিয়ে জরুরি অবস্থা  ঘোষণা করেছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ