মঙ্গলবার ৩০ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

কালিহাতীতে দুই দিনে চার মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

কালিহাতী (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা: টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে পৃথক দুর্ঘটনায় দুই দিনে চার মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেনে। গত বুধবার রাত ৮টার দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের কালিহাতী উপজেলার চরভাবলা এলাকায় এক দুর্ঘটনায় শ্যালক ও ছোট ভগ্নিপতি মারা যান। তাঁরা হলেন, পাবনা সদর উপজেলার শালাইপুর এলাকার হান্নান মোল্লার ছেলে নাজমুল হাসান স্বাধীন (২৭), ছোট ভগ্নিপতি আটঘরিয়া উপজেলার শিবপুর এলাকার নূর মোহাম্মদের ছেলে আতিকুর রহমান (২৮)। 

স্বজন ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তাঁরা ঢাকার একটি কোম্পানিতে ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে কর্মরত আছেন। ছুটি শেষে বুধবার বিকেলে পাবনা থেকে তারা ঢাকার উদ্দেশে মোটরসাইকেলে রওনা হন। পথিমধ্যে মহাসড়কের চরভাবলা নামকস্থানে এসে পৌঁছালে অজ্ঞাত বাসের চাপায় ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়। 

অপর দুর্ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে উপজেলার পাথাইকান্দি এলাকায় বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত হয়েছেন। এতে ঘটনাস্থলেই একজনের মৃত্যু হয়। অপর আরোহীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান। নিহতরা হলেন, উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার কুড়িঘড়িয়া গ্রামের আছর উদ্দিনের ছেলে প্রবাসী সোহেল রানা (২৩) ও হায়াতপুর গ্রামের হেলাল মোল্লার ছেলে রফিকুল ইসলাম (২৫)। তাঁরা দুজন একে অপরের বন্ধু ছিলেন।

স্বজন ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়,  সোহেল ও রফিকুল দুই বন্ধু এলেঙ্গা থেকে মোটরসাইকেল যোগে বঙ্গবন্ধু সেতুতে বেড়াতে বের হন। পথিমধ্যে বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের পাথাইলকান্দি ২ নং ব্রিজের কাছে পৌঁছালে পিছন দিক থেকে অজ্ঞাত একটি গাড়ি তাঁদের চাপা দিয়ে দ্রুত চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই রফিকুলের মৃত্যু হয় এবং মুমূর্ষু অবস্থায় সোহেলকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। 

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন সোহেলের লাশ টাঙ্গাইল মর্গে এবং রফিকুলের লাশ বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানায় রাখা হয়েছে।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ