বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১
Online Edition

দু’মুঠো ভাত খেতেই মানুষের নাভিশ্বাস

সবজি ও বয়লার মুরগির দাম বৃদ্ধি -সংগ্রাম

* কাঁচামরিচ ও পেঁয়াজের ঝাল ও ঝাঁঝ কমেছে

স্টাফ রিপোর্টার: দিনের পর দিন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বেড়েই চলছে। মানুষের পিঠ দেয়ালে ঠেকেছে। একটু তরকারি দিয়ে দু’মুঠো ভাত খেতেই মানুষের নাভিশ্বাস। সরকারের নানা পদক্ষেপ দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছে না। অল্প আয়ের মানুষের দাবি, অবিলম্বে জিনিসপত্রের দাম নিয়ন্ত্রণ করে তিন বেলা দু’মুঠো ভাত খাওয়ার ব্যবস্থা করতে। নতুন করে সপ্তাহের ব্যবধানে সবজির দাম বাড়ছে অস্বাভাবিক হারে। সেই সাথে ব্রয়লার মুরগীর দাম লাগামহীনভাবে বেড়েই চলছে। প্রতি কেজির দাম দুইশোর কাছাকাছি চলে এসেছে। এছাড়াও ভোজ্যতেলসহ বেশ কয়েকটি পণ্যের দাম বেড়েছে। বৃদ্ধি পাওয়া চিনিসহ অন্যান্য পণ্যের দাম কমেনি। তবে কিছুটা দাম কমেছে পেঁয়াজ ও কাঁচামরিচের।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দফায় দফায় বাড়তে থাকা ব্রয়লার মুরগির দাম নতুন করে আরও বেড়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে রাজধানীর বাজারগুলোতে কেজিতে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে ১০ টাকা পর্যন্ত। এতে ব্রয়লার মুরগির কেজি দুইশো টাকার কাছাকাছি চলে এসেছে। এদিকে পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক কমানোর খবরে কমেছে পেঁয়াজের দাম। একদিনে কেজিতে পেঁয়াজের দাম কমেছে ১০ টাকা। তবে মুরগির পাশাপাশি এখনো চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি।

ব্যবসায়ীরা ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি করছেন ১৮৫ থেকে ১৯০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৭৫ থেকে ১৮০ টাকা। দুই সপ্তাহ আগে ব্রয়লার মুরগির দাম ছিল ১৬৫ থেকে ১৭০ টাকা। আর সেপ্টেম্বর মাসের শুরুর দিকে ছিল ১২০ থেকে ১৩০ টাকার মধ্যে।

ব্রয়লার মুরগির মতো পাকিস্তানি কক বা সোনালী মুরগির দামও দফায় দফায় বেড়েছে। সেপ্টেম্বর মাসের শুরুর দিকে ২১০ থেকে ২৩০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া সোনালী মুরগির দাম কয়েক দফা বেড়ে এখন ৩৩০ থেকে ৩৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। এক সপ্তাহ আগে এই মুরগির কেজি ছিল ৩২০ থেকে ৩৪০ টাকা এবং দুই সপ্তাহ আগে বিক্রি হয় ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা কেজি।

এদিকে বাজারে বেশিরভাগ সবজির দাম কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। এসব বাজারে প্রতিকেজি সিম বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, গোল বেগুন ৮০ টাকা, লম্বা বেগুন ৬০ টাকা, ফুলকপি প্রতি পিস ৬০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, টমেটো ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা। চায়না গাজর প্রতি কেজি ১৬০ টাকা, চাল কুমড়া পিস ৪০ টাকা, প্রতি পিস লাউ আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, পটল ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৬০ টাকা, কাকরোল ৬০ টাকা, মূলা ৬০ টাকা, কচুর লতি ৬০ টাকা ও পেঁপের কেজি ২০ টাকা। আলুর দাম বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২২ টাকা কেজি। সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি কমেছে ৫ থেকে ৭ টাকা। দেশী পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা। ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। কাঁচা মরিচের দাম কিছুটা কমেছে। কেজিপ্রতি ৪০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা। গত সপ্তাহে কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছিল ১৬০ টাকা কেজি। কাঁচা কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। পেঁপে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা। শসা বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকায়।

এছাড়া শুকনো মরিচ প্রতি কেজি ১৫০ থেকে ২৫০ টাকা, রসুনের কেজি ৮০ থেকে ১৩০ টাকা, দেশী আদা বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি। চায়না আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা। হলুদের কেজি ১৬০ টাকা থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ইন্ডিয়ান ডাল কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। দেশী ডাল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকায়।

বেড়েছে ভোজ্যতেল দাম। লিটার প্রতি ১০ টাকা বেড়ে খুচরা প্রতি লিটার তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা। এছাড়াও বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের তেলের লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৫৩ থেকে ১৫৮ টাকায়। প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮৫ টাকায়। এছাড়া প্যাকেট চিনি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। আটা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়। মোটা স্বর্ণা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকা কেজি, মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, আর নাজির ও মিনিকেট সরু চাল বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৭ টাকা কেজি।

অপরিবর্তিত আছে ডিমের দাম। লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকায়। হাঁসের ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৬৫ টাকা। সোনালি (কক) মুরগির ডিমের দাম বেড়ে ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়। গত সপ্তাহের ব্যবধানে ডজনের দাম বেড়েছে ২৫ টাকা। গরু ও খাসির গোশতের দাম বাড়েনি। গরুর গোশত বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি, খাসির গোশত ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে

এদিকে স্বস্তি নেই মাছের বাজারেও। প্রতি কেজি রুই বিক্রি হচ্ছে ২৫০-২৮০ টাকায়। পাঙাশ ১০০-১৪০ টাকা, বড় পাবদা ৪৫০-৫০০ টাকা, ছোট তেলাপিয়া ১০০-১২০ টাকা, গলদা চিংড়ি ৭০০-৭৫০ টাকা ও শিং মাছ ৪০০-৫০০ টাকা কেজি দরে। ছোট কাচকি ৪০০ টাকা ও মলা মাছ পাওয়া যাচ্ছে ৩০০ টাকা কেজিতে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ