বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১
Online Edition

রাজধানীতে মুসল্লিদের বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাধা কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ

গতকাল শুক্রবার জুমার নামাযের পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম থেকে মিছিল নিয়ে কাকরাইল মোড়ে পৌঁছলে পুলিশের সঙ্গে মিছিলকারীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছোঁড়ে -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীতে গতকাল শুক্রবার জুমার নামাযের পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে মুসল্লিরা। তারা কুমিল্লার ঘটনার প্রতিবাদ জানান। মিছিলটি কাকরাইলের নাইটিঙ্গেল মোড়ের কাছে এলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিল করতে থাকলে পুলিশ মিছিলটিকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরে মিছিলকারীদের একটি অংশ বিভিন্ন অলিগলিতে ঢুকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ঢিল ছুঁড়তে শুরু করে। পুলিশ তখন বিভিন্ন গলির মুখে অবস্থান নেয় এবং টিয়ারশেল ও শটগানের গুলী ছোঁড়ে। এ ঘটনায় পুলিশসহ অনেকে আহত হয়েছেন। আর ৫জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল আহাদ বলেন, বিক্ষোভ মিছিলটি নাইটিঙ্গেল মোড় পর্যন্ত যেতে দেয়া হয়। কিন্তু তারা সেখানে গিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। পরে পুলিশ টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রায় একঘণ্টা ধরে এই সংঘর্ষের সময় গুলীস্তান ও পল্টন এলাকায় গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকে। কাকরাইল ও বিজয়নগরের বিভিন্ন গলিতে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। প্রধান সড়কে পুলিশের এপিসি ও জলকামানের গাড়িও দেখা যায়।

সংঘর্ষের ঘটনায় সহকারী পুলিশ কমিশনারসহ (এসি) পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। আহতরা হলেন- রমনা জোনের এসি মো. বায়জিদুর রহমান, উপ-পরিদর্শক (এসআই) সালমান, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মহিদুল ও বাকি দুই পুলিশ সদস্যের নাম জানা যায়নি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. সাজ্জাদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, অপ্রীতিকর ঘটনা ও বিশৃঙ্খলা এড়াতে জুমার নামাযের আগে থেকেই বায়তুল মোকাররম এলাকায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে জুমার নামাযের পর মিছিল বের করেন মুসল্লিরা। পুলিশ তাদের বায়তুল মোকাররম থেকে নাইটিংগেল মোড় পর্যন্ত মিছিলের অনুমতি দেয়। কিন্তু তারা কাকরাইল মোড়ে গিয়ে বিশৃঙ্খলা তৈরির চেষ্টা করেন।

এতে বাধা দিতে গেলে তারা পুলিশের ওপর চড়াও হন এবং ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকেন। এ সময় ওই পুলিশ সদস্যরা আহত হন।

আহত এসি মো. বায়জিদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, আমিসহ পুলিশের পাঁচজন সদস্য আহত হয়েছেন। আমি প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বায়তুল মোকাররম এলাকায় আবারও ডিউটিতে ফিরেছি।

তিনি বলেন, মিছিল নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে গেলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এসময় তারা ইট-পাটকেল ও লাঠি নিয়ে পুলিশের ওপর আঘাত করে।

উল্লেখ্য, দুর্গাপূজার মধ্যে কুমিল্লার একটি মন্দিরে কুরআন অবমাননার অভিযোগে বুধবার কয়েকটি মন্দিরে হামলা, ভাংচুর চালানো হয়। এর পর দেশের বিভিন্নস্থানে এর প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়। এ নিয়ে কিছু প্রাণহানির খবরও পাওয়া যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ