মঙ্গলবার ৩০ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

ঘূর্ণিঝড় গুলাবের প্রভাবে বন্দরে ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত

স্টাফ রিপোর্টার : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি আরও শক্তিশালী হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’-এ পরিণত হয়ে দেশের উত্তর-পূর্ব দিকে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে। সাগর উত্তাল হয়ে ওঠার কারণে সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত এবং নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর সর্তকতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।
এটি ভারতের উপকূলের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। অন্ধ্র প্রদেশ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় এর প্রভাব পড়তে পারে। বাংলাদেশে এর তেমন কোনো প্রভাব পড়ার আশঙ্কা নেই। তবে উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টির প্রবণতা বাড়বে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।
 শনিবার রাত ৯টায় উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও কাছাকাছি পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় ঘূর্ণিঝড় গুলাবে পরিণত হয়েছে। এটি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৭০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।
ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনাম ও গোপালপুরের মধ্যবর্তী কালিঙ্গপত্তনামে আছড়ে পড়বে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’। আজ বিকেল ৩টা থেকে ৫টার মধ্যে ঘূর্ণিঝড়টি আছড়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ সময় বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ থাকতে পারে ঘণ্টায় ৯৫ কিলোমিটার। এদিকে অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তর ও উড়িষ্যার দক্ষিণ উপকূলবর্তী এলাকায় কমলা সতর্কতা জারি করেছে ভারত।
এদিকে ধারণা করা হচ্ছে গুলাবের প্রভাবে গঙ্গা নদীর তীরবর্তী পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলোতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে। বেশি প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে কলকাতা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরে। রোববার উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশের মধ্যবর্তী কালিঙ্গপত্তনামে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ আছড়ে পড়লেও ছত্তিশগড়ের দক্ষিণে তা আঘাত করবে সোমবার। এরপর ঘূর্ণিঝড়টি দুর্বল হতে থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়ের মধ্যে সর্বশেষ গত মে মাসে ‘ইয়াস’ ভারতের ওড়িশা উপকূলে আঘাত হেনেছিল। গত বছর মে মাসে ‘আম্ফান’ নামে আরেকটি ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে আঘাত হানে। ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ (গোলাপ) নামটি পাকিস্তানের দেয়া।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ