বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ হারানোর শীর্ষে ওয়ালটন

স্টাফ রিপোর্টার : গত সপ্তাহে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ হারানোর শীর্ষ স্থানটি দখল করেছে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ। বিনিয়োগকারীরা কোম্পানিটির শেয়ার কিনতে আগ্রহী না হওয়ায় সপ্তাহজুড়েই এর দাম কমেছে। এতে গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দাম কমার শীর্ষস্থান দখল করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এদিকে গত সপ্তাহজুড়ে দেশের শেয়ারবাজারে দাম বাড়ার ক্ষেত্রে দাপট দেখিয়েছে ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স। কোম্পানিটির শেয়ার গত সপ্তাহজুড়ে বিনিয়োগকারীদের কাছে পছন্দের শীর্ষে ছিল।
জানা গেছে, গেল সপ্তাহজুড়ে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার দাম কমেছে ১৬ দশমিক ৬৫ শতাংশ। টাকার অংকে প্রতিটি শেয়ারের দাম কমেছে ২৪১ টাকা। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে কোম্পানিটির শেয়ার দাম দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২০৬ টাকা ৪০ পয়সা, যা আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ছিল ১ হাজার ৪৪৭ টাকা ৪০ পয়সা। দাম কমে যাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ কোম্পানিটির শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৯৪ কোটি ৫০ লাখ ৫৭ হাজার টাকা। এতে প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ১৮ কোটি ৯০ লাখ ১১ হাজার টাকা। গত ১২ সেপ্টেম্বর পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) থেকে একটি নির্দেশনা জারির পরই কোম্পানিটির শেয়ার দরপতনের মধ্যে পড়ে। ২০১৫ সালের বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (পাবলিক ইস্যু) আইন অনুযায়ী একটি তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানকে পরিশোধিত মূলধনের ১০ শতাংশের সমান অন্তত ১০ শতাংশ শেয়ার বাজারে ছাড়তে হবে। তবে ঢাকা স্টক একচেঞ্জের তথ্য অনুযায়ী, ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রির শূন্য দশমিক ৯৭ শতাংশ শেয়ার, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ’র (আইসিবি) ৩ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং বার্জার পেইন্টসের ৫ শতাংশ শেয়ার বাজারে ছাড়া হয়েছে। তাই নিয়ম অনুযায়ী আগামী এক বছরের মধ্যে বার্জার পেইন্টস, ওয়ালটন ও ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ’র অন্তত ১০ শতাংশ শেয়ার পুঁজিবাজারে ছাড়ার নির্দেশ দেয় বিএসইসি।
বিএসইসির ওই নির্দেশনার প্রভাবে এই তিনটি কোম্পানির শেয়ার দামে পতন হয়। তবে অন্য দুই কোম্পানির তুলনায় ওয়ালটনের শেয়ারের পতনের মাত্রা ছিল বেশি। ফলে গেল সপ্তাহজুড়ে পতনের তালিকায় থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে শীর্ষ স্থানটি দখল করেছে ওয়ালটন।
এদিকে গত সপ্তাহজুড়ে দেশের শেয়ারবাজারে দাম বাড়ার ক্ষেত্রে দাপট দেখিয়েছে ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স। কোম্পানিটির শেয়ার গত সপ্তাহজুড়ে বিনিয়োগকারীদের কাছে পছন্দের শীর্ষে ছিল। এর ফলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দাম বাড়ার শীর্ষস্থানটি দখল করেছে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার। ক্রেতাদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসায় সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার দাম বেড়েছে ২৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ। টাকার অংকে বেড়েছে ১৯ টাকা। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ারের দাম দাঁড়িয়েছে ৮৭ টাকা ৪০ পয়সা, যা আগের সপ্তাহের শেষে ছিল ৬৮ টাকা ৪০ পয়সা।
তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত এপ্রিল মাস থেকেই কোম্পানিটির শেয়ার দাম বাড়ছে। গত ৪ এপ্রিল কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ারের দাম ছিল ২৮ টাকা ২০ পয়সা। সেখান থেকে বাড়তে বাড়তে এখন ৮৭ টাকা ৪০ পয়সায় উঠেছে। অর্থাৎ পাঁচ মাসের মধ্যে প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বেড়েছে তিনগুণ। শেয়ারের এমন দাম বাড়া কোম্পানিটির সর্বশেষ ২০২০ সালের সমাপ্ত বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। তার আগে ২০১৯ সালে ১০ শতাংশ নগদ ও ২০১৮ সালে ১০ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটি। আর সর্বশেষ প্রকাশিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ছয় মাসের ব্যবসায় কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি মুনাফা করেছে ১ টাকা ২৮ পয়সা।
এদিকে কোম্পানিটির শেয়ার বিনিয়োগকারীদের চাহিদের শীর্ষে চলে আসায় এক শ্রেণির বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। এতে গেল সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৮৩ কোটি ৫৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা। আর প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৩৬ কোটি ৭১ লাখ ১৪ হাজার টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ