শুক্রবার ২২ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

এক ম্যাচ হাতে রেখেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় বাংলাদেশের

রফিকুল ইসলাম মিঞা : অস্ট্রেলিয়ার পর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। গতকাল সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পেয়েছে ৬ উইকেটে। এই জয়ের ফলে এক ম্যাচ হাতে রেখেই ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ নিশ্চিত করল টাইগাররা।  নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে জয় পেয়ে সিরিজে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। তৃতীয় ম্যাচে জয় পেলে এক ম্যাচ আগেই সিরিজ জিততে পারত টাইগাররা। তবে তৃতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ড জয় পেলে চতুর্থ ম্যাচে এসে সিরিজ নিশ্চিত করল বাংলাদেশ। গতকাল টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৯৩ রানে অলআউট হয় নিউজিল্যান্ড। নাসুম আর মোস্তাফিজের বোলিং আক্রমনে তিন বল আগেই ৯৩ রানে ইনিংস শেষ করে সফরকারীরা। ফলে জয়ের জন্য বাংলাদেশ পায় ৯৪ রানের সহজ টার্গেট। এই সহজ টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ম্যাচটা কঠিন করে ফেলে বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ৫ বল বাকি থাকতে ৪ উইকেটে ৯৬ রান করে বাংলাদেশ ম্যাচ জিতে ৬ উইকেটে। বিজয়ী দলের পক্ষে নাসুম ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন।  জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে ৯৪ রানের টর্গেটটা সহজই ছিল। তবে এই সহজ টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৮ রানেই বাংলাদেশ হারায় প্রথম উইকেট। ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৬ রানে ফিরতে হয় লিটন দাসকে। লিটন দাসকে বিদায় করে দলকে প্রথম উইকেট এনে দেন ম্যাককঞ্জি। লিটনের বিদায়ে ওয়ানডাউনে ব্যাট করতে নেমে এই ম্যাচেও ভালো করতে পারেননি সাকিব আল হাসান। মাত্র ৮ রান করে প্যাটেল এর বলে আউট হলে বাংলাদেশ ৩২ রানে হারায় দ্বিতীয় উইকেট। সাকিব ৮ রান করে আউট হলেও রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় হতে হয় মুশফিককে। মুশফিককে এবার শুন্য রানে ফিরান প্যাটেল। ফলে ৩২ রানে তিন উইকেট হারিয়ে একটি চাপেই পড়ে বাংলাদেশ। তবে চতুর্থ উইকেট জুটিতে ওপেনার নাইম আর অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ মিলে দলকে ভালোই এগিয়ে নেয়। এ জুটি ভাংগার আগেই বাংলাদেশ পৌছে যায় ৬৭ রানে। তবে রান আউটের ফাঁদে পরে ওপেনার নাইম বিদায় নিলে একটু চাপে পড়ে টাইগাররা। বিদায়ের আগে নাইম ৩৫ বলে করেন ২৯ রান। নাইম বিদায় নিলে আফিফকে নিয়ে জয়ের কাজটা শেষ করেছেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। অভিজ্ঞ সাকিব আর মুশফিক ভালো করতে না পারলেও টিকে থেকে ম্যাচ জিতেই মাঠ ছেড়েছেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। শেষ পর্যন্ত ৫ বল বাকি থাকতে ৪ উইকেটে ৯৬ রান করে বাংলাদেশ ম্যাচ জিতে ৬ উইকেটে। অধিনায়ক রিয়াদ ৪৩ রানে আর আফিফ ৬ রানে অপরাজিত ছিলেন। রিয়াদ ৪৮ বলে এক চার আর দুই ছক্কায় করেন ৪৩ রান।এরআগে, টস জিতে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৯৩ রানেই অলআউট হয়েছে নিউজিল্যান্ড। নাসুম আর মোস্তাফিজের বোলিং আক্রমনে দলটি শতরানের আগেই ইনিংস শেষ করেছে। খেলতে পারেনি পুরো ২০ ওভার। তিন বল বাকি থাকতেই দলটির স্কোর থেমে গেছে ৯৩ রানে। গতকাল ব্যাট করতে নেমে শুরুটাই ভালো হয়নি দলটির। দলীয় রান যোগ হওয়ার আগেই উইকেট হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড। ব্যাট করতে নেমে নাসুমের বলে ওপেনার রাচিন রবীন্দ্রর উইকেট হারায় দলটি। রানের খাতা খোলার আগেই সাইফুদ্দিনের হাতে ক্যাচ তুলে বিদায় নেন এই ওপেনার। দলীয় ১৬ রানে দলটি হারায় দ্বিতীয় উইকেট। এবার নাসুমের বলে সাইফুদ্দিনকে ক্যাচ দিয়ে মাঠর ছাড়েন ফিল এ্যালেন। তবে বিদায় হওয়ার আগে এ্যালেন করেন ৮ বলে ১২ রান। দলীয় ১২ রানে দুই উইকেট হারানো দলকে তৃতীয় উইকেট জটিতে এগিয়ে নেয়ার চেস্টা করেন অধিনায়ক টম লাথাম আর ইয়ং জুটি। এই জুটি ৩৫ রানের পার্টনারশীপ গড়ে দলকে ভালোই এগিয়ে নেয়। এই জুটি ভাংগার আগেই দলটি পৌছে যায় ফিফটি রানে। দলীয় ৫১ রানে অধিনায়ক লাথামের বিদায়ে ভাংগে এই জুটি। লাথামকে বিদায় করেন মেহেদী। মেহেদীর বলে আউট হওয়ার আগে এই অধিনায়ক করেন ২৬ বলে ২১ রান। দলীয় ৫২ রানে পৌছে নিউজিল্যান্ড হারায় আরো দুটি উইকেট। এই দুই উইকেট তুলে নেন নাসুম। নিকোলস এক রান করে আউট হলেও রানের খাতা খোলার আগেই ফিরতে হয় গ্র্যান্ডহোমকে। পরপর দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিক করার সুযোগও পেয়েছিলেন নাসুম। দলীয় ৫২ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়লেও টিকে থেকে দলকে এগিয়ে নেয়ার চেস্টা করেছেন ইয়ং। কিন্তু তাকে ভালো সার্পোট দিতে পারেনি অন্য কোন ব্যাটসম্যান। ফলে অন্যদেও আসা যাওয়ার  মাঝেও তাকে শক্তহাতে ব্যাট চালিয়ে টিকে থাকতে হয়েছে। ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে ব্রান্ডেলকে নিয়ে ২০ রানের আরো একটি জুটি গড়েন ইয়ং। কিন্তু দলীয় ৭২ রানে এই জুটি ভাংগেন মোস্তাফিজ। মোস্তাফিজের বলে নাইমকে ক্যাচ দেয়ার আগে ৪ রান করেন ব্রান্ডেল। ব্যাট করতে নেমে ম্যাককঞ্জি আর প্যাটেলও ভালো করতে পারেননি। তবে টিকে থেকে দলকে শতরানে নেয়ার প্রানপন চেস্টা করেছেন ইয়ং। কিন্তু মোস্তাফিজ সেটা করতে দেননি। দলীয় ৯৩ রানে ইয়ংকে ফিরান এই কাটার মাস্টার। তবে আউট হওয়ার আগে ৪৮ বলে ৪৬ রান করেন ইয়ং। ইয়ং এর বিদায়ের পর আর দলের স্কোরে রান যোগ হয়নি। শেষ পর্যন্ত ৯৩ রানেই থামে নিউজিল্যান্ড। বাংলাদেশের পক্ষে নাসুম আর মোস্তাফিজ চারটি করে উইকেট নিয়ে দলটিকে আটকে ফেলে ৯৩ রানে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
নিউজিল্যান্ড--৯৩/১০ (১৯.৩ওভার)
বাংলাদেশ –৯৬/৪ (১৯.১ ওভার)
বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জয়ী
ম্যান অব দ্য ম্যাচ নাসুম আহমেদ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ