মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২
Online Edition

সড়ক-সেতুর সংস্কার নেই যোগাযোগ সংকট

খুলনা অফিস : ব্রিজ আছে রাস্তা নেই। অথচ যানবাহন ওঠা-নামা ও জনসাধারণ চলাচলে সংযোগ সড়ক থাকা বাধ্যতামূলক। আর এ বাধ্যতামূলক শব্দটি কেটে দিয়েছে এলজিইডি। ফলে রূপসার ঘাটভোগ ইউনিয়নের সাবেক ভৈরব নদীর ওপর নির্মিত ‘তালতলা ব্রিজটি’ এখন এ অঞ্চলের মানুষের গলার কাঁটা হিসেবেই পরিচিতি পেয়েছে।    
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, খুলনা জেলার রূপসা উপজেলার সাবেক ভৈরব নদীর ওপর নির্মাণ করা হয়েছিল ‘তালতলা ব্রিজ’। যার মাধ্যমে উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়ন ও টিএসবি ইউনিয়নবাসীর অনেকদিনের স্বপ্ন পূরণ হয়। কিন্তু ব্রিজ নির্মাণের দীর্ঘদিন অতিক্রম হওয়ার পর ব্রিজের এ্যাপ্রোচ রোড (দুই পাশের রাস্তা) না থাকায় সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। ইতোমধ্যে ৪০ মিটার দৈর্ঘ্য ব্রিজটি নির্মাণ সম্পন্ন করার পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রায় ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকার বিল তুলেছেন। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী জিয়াউল হাসান টিটু বলেন, ‘ব্রিজের এ্যাপ্রোচ রোডের জমি নিয়ে জটিলতার কারণে আমরা কাজ করতে পারছি না। জমি অধিগ্রহণ নিয়েও কিছুটা জটিলতা রয়েছে। এছাড়া বর্ষার কারণে কাজ বন্ধ রয়েছে। খুব দ্রুত জমির সমাধান না হলে নকশা অনুযায়ী আমরা রাস্তার কাজ করব।’
এলাকাবাসী সূত্রে গেছে, ব্রিজ নির্মাণের ফলে দু’টি ইউনিয়নের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি এলাকাবাসীর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। কিন্তু ব্রিজ নির্মাণের পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ব্রিজের দুই পাশের রাস্তা নির্মাণ করেনি। ব্রিজের ঘাটভোগ ইউনিয়নের নারখেলী চাঁদপুর অংশের রাস্তা নির্মাণে জটিলতার সৃষ্টির কারণে বর্তমানে কাজ বন্ধ রয়েছে।
লালমনিরহাট : রাস্তা সংস্কার না হওয়ায় চরম দুর্ভোগে রয়েছে লালমনিরহাট সদর উপজেলার হারাটি ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের কিসামত চোংগাদ্বারা (কালীমন্দির পাকা রাস্তা থেকে ওকড়াবাড়ী পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার রাস্তাটি সংস্কার না করায় বছরের পর বছর দুর্ভোগ নিয়ে চলাচল করছে কুমার পাড়ার লোকেরাসহ ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী পথচারীরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ৩ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যর রাস্তাটি এলাকাবাসীর চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে চলতি বর্ষা মৌসুমে। বিশেষ করে বয়স্ক নারী ও পুরুষ সহ শিশুদের রাস্তাটি দিয়ে যাতায়ত খুব কষ্ট কর হয়ে পরেছে। জানা যায়, এ রাস্তাটি দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৫/৭ হাজার মানুষ চলাচল করে। বালু ও ইট ভর্তি ট্রাক,লড়ি সহ ভারী যানবাহন চলাচল করায় বেহাল দশা এখন রাস্তাটির। এলাকাবাসী আব্দুস সালাম, (সাবেক ইউপি সচিব) শহিদুল ইসলাম জানান, আমরা এলাকাবাসী বছরের পর বছর অনেক কষ্ট করেই এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করছি। বাড়ীতে কেউ অসুস্থ্য হলে হাসপাতালে নিয়ে যেতে রোগী আরো বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। শিশু ও বৃদ্ধ মানুষ এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে অনেক ঝুঁকি নিয়ে বর্তমান এমপি সাহেব নিজেই একবার এলাকায় এসে দ্রুত রাস্তাটি পাকা করার কথা বললেও এখনো কোন কাজ শুরু হয়নি।
সিরাজগঞ্জ : চৌহালী উপজেলার রেহাইপুখুরিয়া-বৈন্যা সড়কে একটি ব্রীজের অভাবে ২০ গ্রামের মানুষের যোগাযোগ দুর্ভোগ চরমে। চৌহালী উপজেলার দক্ষিনাঞ্চল থেকে উপজেলা সদরে যাতায়াতের জন্য রেহাইপুখুরিয়া থেকে বৈন্যা রাস্তাটির মাঝামাঝি স্থানে একটি ব্রিজ গত বছর বন্যার পানির প্রবল স্রোতের তোরে  ভেঙ্গে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘদিনেও  সেখানে একটি  ব্রিজ নির্মাণ না হওয়ায়  ২০ গ্রামের মানুষ যোগাযোগ দুর্ভোগে পড়েছে। এলাকাবাসী চাদা তুলে একটি বাশের সাঁকো তৈরী করে পারাপার হচ্ছে। এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট উতন কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন ভুক্তভোগীরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ