রবিবার ২৮ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

জেলে সম্প্রদায়ের মুখে হতাশার ছাপ

চট্টগ্রাম ব্যুরো : জবরদখলকারী লুটেরাদের গ্রাস থেকে জেলে সম্প্রদায়কে বাঁচাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্রশাসক এবং চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। উক্ত বিষয়ে জেলে সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিগণ সুজনের নিকট অভিযোগ এবং সহযোগিতা প্রার্থনার প্রেক্ষিতে তিনি রোববার (২৫ জুলাই) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি এ অনুরোধ জানান।
এ সময় তিনি বলেন সামুদ্রিক মাছের প্রজনন ও সংরক্ষণে দীর্ঘ প্রায় ৬৫ দিন সমুদ্রে ট্রলারের মাধ্যমে সব ধরনের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। সরকারি নির্দেশনা মেনে এসময় মাছ ধরা থেকে বিরত ছিল আমাদের জেলে সম্প্রদায়। নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর মাছের রূপালী আভায় তাদের মুখ হাসিখুশিতে ভরে উঠার কথা থাকলেও পতেঙ্গা থেকে কাট্টলী এলাকায় বসবাসরত জেলে সম্প্রদায়ের মুখে ফুটে উঠেছে হতাশা। অজানা আতংক ভর করেছে তাদের চোখেমুখে। একেতো দীর্ঘদিন মাছ ধরা বন্ধ। অন্যদিকে দাদনদের কাছ থেকে কড়াসুদে নেয়া ঋণ পরিশোধের চাপ। তার উপর অপেশাদার কিছু লোকের অব্যাহত হুমকিতে তাদের জীবন বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছে। অত্যন্ত দুঃখজনকভাবে দেখা যাচ্ছে যে পতেঙ্গা ১৫ নাম্বার ঘাট থেকে হালিশহর হয়ে কাট্টলী পর্যন্ত একশ্রেণীর অসাধু অপেশাদার ব্যবসায়ী জেলেদের কাছ থেকে মাছ ও জাল কেড়ে নিচ্ছে।
তিনি বলেন, পেশাদার জেলে সম্প্রদায়ের মাছের খুটিকে দখল করে নিচ্ছে। তারা জেলেদের কাছে উচ্চহারে চাঁদা দাবী করছে। এমনকি কম দামে মাছ বিক্রি করতে বাধ্য করছে জেলেদের। এসব অপেশাদার তস্করদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা এখন সময়ের দাবি। প্রতিবছরই ইলিশের মৌসুম আসলেই তাদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যায়। তারা সাগরপাড়ের বিভিন্ন জায়গায় নিজেদের সন্ত্রাসী বাহিনীর মাধ্যমে এলাকাভিত্তিক ভাগ হয়ে এসব অপকর্ম চালায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ