শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

অমিত শাহর ছেলেকে নিয়ে প্রতিবেদন করে পেগাসাসের নিশানায় সাংবাদিক

১৯ জুলাই, দ্য গার্ডিয়ান, দ্য ওয়্যার : ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর ছেলে জয় শাহের ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন যে সাংবাদিক করেছিলেন; ইসরাইলের এনএসও সংস্থার তৈরি পেগাসাস স্পাইওয়্যার কাজে লাগিয়ে আড়িপাতা হয়েছে তার ফোনেও। ব্রিটিশ দৈনিক বলেছে, ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের ওই প্রতিবেদকসহ দেশটির অন্তত ৩৮ জন সাংবাদিকের ফোন এই আড়িপাতার নিশানা হয়েছিল।

আড়িপাতার তালিকায় রোহিনী সিং নামের দ্য ওয়্যারের ওই সাংবাদিক ছাড়াও ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের সুশান্ত সিংহের নামও আছে। এছাড়া ভারতীয় যেসব সাংবাদিকের নাম আড়িপাতার তালিকায় এসেছে তারা বিভিন্ন সময়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও সরকারি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীদের সমালোচনা করেছিলেন।

ইসরাইলী কোম্পানি এনএসও গ্রুপের তৈরি স্পাইওয়্যার সফটওয়্যার পেগাসাস ব্যবহার করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের স্মার্টফোনে আড়িপাতার ঘটনা ফাঁস হয়েছে। ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসভিত্তিক অলাভজনক সংস্থা ফরবিডেন স্টোরিজ এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের হাতে সম্প্রতি একটি এ সংক্রান্ত একটি ডাটাবেস পৌঁছেছে, যেখানে ৫০ হাজারেরও বেশি ফোন নম্বরের একটি তালিকা রয়েছে।

বিশ্বের প্রথম সারির মানবাধিকারকর্মী, সাংবাদিক, আইনজীবী ও রাজনীতিবিদদের ফোন নম্বর এগুলো। এই তালিকা হাতে পাওয়ার পর গার্ডিয়ান, দ্য ওয়্যারসহ ১৬ টি পত্রিকাকে এই তথ্য জানায় ফরবিডেন স্টোরিজ ও অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃপক্ষ।

ভারতীয় এই সংবাদমাধ্যম বলছে, পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, বিরোধী দলের নেতা-নেত্রী, শিল্পপতি, ব্যবসায়ী-সহ দেশটির কমপক্ষে ৩৮ জন সাংবাদিকের ফোনে আড়িপাতা হয়েছে। তবে সব ফোনের ফরেন্সিক পরীক্ষা এখনও হয়নি। ওই তালিকায় রয়েছে ‘হিন্দুস্তান টাইমস’, ‘ইন্ডিয়া টুডে’, ‘নেটওয়ার্ক ১৮’, ‘দ্য হিন্দু’ এবং ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’র সাংবাদিকরা।

অমিত শাহের পাশাপাশি ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির-ঘনিষ্ঠ’ ব্যবসায়ী নিখিল মার্চেন্টের কারবার এবং ব্যবসায়ী অজয় পিরামলের সঙ্গে মোদি-মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী পীযূষ গয়ালের লেনদেন নিয়েও অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করেছিলেন দ্য ওয়্যারের প্রতিবেদক রোহিনী। দ্য ওয়্যারের প্রতিবেদন বলছে, ২০১৮ সালে ঠিক যে সময়ে রাফাল যুদ্ধবিমান নিয়ে ভারতজুড়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল, ঠিক সেই সময়ই ফাঁস হওয়া তালিকায় নাম উঠেছিল ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের সুশান্তের। গত বছরই ফরেন্সিক পরীক্ষায় তার ফোনে পেগাসাসের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়। সুশান্তও রাফাল কা-ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করছিলেন।

পেগাসাস কী

ইসরাইলী প্রতিষ্ঠান এনএসও গ্রুপ পেগাসাস নামে এই স্পাইওয়্যার সফটওয়্যার তৈরি করেছে, যা আইফোন কিংবা অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ঢুকে ব্যবহারকারীর মেসেজ, ছবি, ইমেইল পাচার করতে যেমন সক্ষম, তেমনি কল রেকর্ড এবং গোপনে মাইক্রোফোন চালুও রাখতে পারে।

২০১৬ সালে এনএসও গ্রুপ এই সফটওয়্যার প্রথম প্রস্তুত করে, তবে তখন তার নাম ছিল কিউ সুইট, পরে তা পরিবর্তন করে নাম দেওয়া হয় ট্রাইডেন্ট এবং তারও পরে নামকরণ হয় পেগাসাস।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সাইবার সিকিউরিটি ল্যাব পরিচালনাকারী ক্লডিও গুয়ারনিয়েরি গার্ডিয়ানকে বলেন, “যদি কোনো ফোনে (স্মার্টফোন) পেগাসাস সফটঅয়্যারটি ঢোকানো যায়, তবে এনএসওর গ্রাহক পুরো ফোনটির দখলই পেয়ে যাবে।

‘ফোনের মালিকের মেসেজ, কল, ছবি, ইমেইল সবই দেখতে পাবে, এমনকি হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রাম, সিগন্যালের বার্তাগুলোও পড়তে পারবে। গোপনে ক্যামেরা কিংবা মাইক্রোফোন চালুও করতে পারবে।”

২০১৯ সাল থেকে সীমিত পরিসরে এই সফটওয়্যার বিক্রি শুরু করে এনওএস গ্রুপ। প্রাথমিক অবস্থায় বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোই ছিল এর প্রধান ক্রেতা। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার বৈধ লাইসেন্সের মাধ্যমে ‘পেগাসাস’ ব্যবহার করছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, বর্তমান বিশ্বে অত্যাধুনিক স্পাইওয়্যার সফটওয়্যারগুলোর মধ্যে পেগাসাসকে সবচেয়ে কার্যকর বলে মনে করা হয়।

পেগাসাস প্রজেক্ট : গার্ডিয়ান তার প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ফাঁস হওয়া ডেটাবেইসে ৫০ হাজারের বেশি ফোন নম্বর পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, ২০১৬ সাল থেকে এনএসওর গ্রাহকরা এদের বিষয়ে তৎপর ছিল এবং ‘পেগাসাস প্রজেক্ট’ দৃঢ়ভাবে মনে করে যে এনএসওর গ্রাহক সরকারগুলোর লক্ষ্যবস্তু ছিল ওই নম্বরগুলো।

এই নম্বরগুলোর কিছু ফোনের ফরেনসিক পরীক্ষায় অর্ধেকের বেশিগুলোতে পেগাসাস সফটওয়্যারের উপস্থিতি পাওয়া গেছে বলে গার্ডিয়ান জানিয়েছে।বিশ্বজুড়ে নজরদারির মুখে থাকা এই ব্যক্তিদের মধ্যে কারা কারা রয়েছে, তাদের নাম অচিরেই প্রকাশ করবে ‘পেগাসাস প্রজেক্ট’।­

তালেবান ও আফগান সরকারের মধ্যে যে সমঝোতা হলো

১৯ জুলাই, ইন্টারনেট : কাতারের রাজধানী দোহায় আফগান সরকার ও তালেবানের মধ্যে দু’দিনব্যাপী সংলাপ কোনো ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছে। তবে সংলাপ চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে দু’পক্ষের মধ্যে সমঝোতা হয়েছে।

গত রোববার রাতে আফগান সরকার ও তালেবান পক্ষের প্রতিনিধিদলের প্রধানরা এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এ সমঝোতার কথা জানান। আফগান সরকারের প্রতিনিধিদলের প্রধান আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ বলেন, দোহা বৈঠকে দু’পক্ষ তাদের মতামত স্পষ্ট করে তুলে ধরেছে এবং এ বিষয়ে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আবার আলোচনায় বসার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আব্দুল্লাহর বক্তব্য শেষ হওয়ার পর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন তালেবান প্রতিনিধিদলের প্রধান মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার। এর কিছুক্ষণ পর সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত তালেবান মুখপাত্র মোহাম্মাদ নাঈম এক টুইটার বার্তায় ছয় ধারা বিশিষ্ট একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন।

সেখানে তিনি বলেন, দোহা বৈঠকে দু’পক্ষ আফগানিস্তানের অবকাঠামো রক্ষা করার পাশাপাশি বেসামরিক নাগরিকদের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে সম্মত হয়েছে। দোহা শান্তি আলোচনা শুরু হওয়ার পর ধারণা করা হচ্ছিল আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে সাময়িক যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হবে দু’পক্ষ।

কিন্তু যৌথ সংবাদ সম্মেলনে কোনো পক্ষই সে রকম কোনো ঘোষণা দেয়নি। এ ছাড়া দু’পক্ষ এমন একটি যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করবে যাতে পারস্পরিক আস্থা, সংবিধান ও আফগান রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার একটি রোডম্যাপ ঘোষিত হবে বলেও আশা করা হচ্ছিল। কিন্তু তেমন কোনো ঘোষণাও আসেনি।

তালেবান ও আফগান সরকারের প্রতিনিধিদল দু’দিনই আলোচনা শেষে এ সংক্রান্ত বিষয়বস্তু, আলোচনার পরিবেশ ইত্যাদি বিষয় গোপন রাখার চেষ্টা করেছে। দোহা শান্তি আলোচনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকরা উপস্থিত থাকলেও আলোচনার বাকি সেশনসগুলোতে আফগানিস্তানের দুই আলোচক পক্ষ ও কাতারের আফগান বিষয়ক প্রতিনিধি ছাড়া আর কাউকে রাখা হয়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ