রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১
Online Edition

কোনো কিছুই মানছে না ইসরাইল

জাতিসংঘ তো ন্যায়সঙ্গত বহু কথা বলেছে, কিন্তু তা পালিত হয়েছে কতটা? ইসরাইলী আগ্রাসন প্রসঙ্গে বিষয়টি আরও উৎকট হয়ে ওঠে। ২৫ জুন আরব নিউজ-এর খবরে বলা হয়, আন্তর্জাতিক আইন এবং জাতিসংঘের রেজুলেশনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পূর্ব জেরুসালেম ও পশ্চিম তীরে ইসরাইলের অবৈধ বসতি স্থাপন অব্যাহত রাখার প্রতিবাদ জানিয়ে তা দ্রুত বন্ধ করতে বলেছে জাতিসংঘ। একই সঙ্গে এসব এলাকায় বসতি স্থাপনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক আইন লংঘনের অভিযোগে ইসরাইলকে অভিযুক্ত করেছে সংস্থাটি। উল্লেখ্য, যে, গত ২৪ জুন এই আহ্বান জানায় জাতিসংঘ। জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস এবং মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য বিশেষ সমন্বয়কারী টর ওয়েইনল্যান্ড ২০১৬ সালের নিরাপত্তা পরিষদের রেজুলেশন বাস্তবায়নের কথা বলেছেন। যেখানে বলা হয়েছে- এ ধরনের অবৈধ বসতিগুলোর কোনো আইনী ভিত্তি নেই।
সাম্প্রতিক ঘটনাবলী সম্পর্কে নিরাপত্তা পরিষদে টর ওয়েইনল্যান্ড বলেছেন, পশ্চিম তীর এবং পূর্ব জেরুসালেমে ইসরাইলী বসতি স্থাপন বন্ধ করতে হবে। কেননা, এই দু’টি অঞ্চলকে ফিলিস্তিনীরা তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রে অন্তর্ভুক্ত করতে চায়। তিনি বলেন, আমি আবারও বলতে চাই, ইসরাইলী বসতি স্থাপন জাতিসংঘের রেজুলেশন এবং আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লংঘন। দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধান এবং ওই অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এ ধরনের কাজগুলো মূল প্রতিবন্ধক।
লক্ষণীয় বিষয় হলো, ইসরাইল ক্রমাগতভাবে জাতিসংঘের রেজুলেশন এবং আন্তর্জাতিক আইন লংঘন করে চলেছে। ফিলিস্তিনীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। জোরপূর্বক বসতি স্থাপন অব্যাহত রেখেছে। আর এসব কিছু সম্পাদিত হচ্ছে সভ্যতার শাসকদের চোখের সামনেই। তাঁরা সঙ্গত কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। উপলব্ধি করা যায়, বর্তমান সভ্যতা মজলুম ফিলিস্তিনীদের পক্ষে দাঁড়াবে না। তাহলে কি বর্তমান সভ্যতার অবসান হওয়া পর্যন্ত ফিলিস্তিনীদের অপেক্ষা করতে হবে?

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ