শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

আবাসিক এলাকায় কার রেসিং বন্ধে কঠোর নির্দেশ আইজিপির

স্টাফ রিপোর্টার : কার রেসিং গ্রুপ ও কার এনথুজিয়াস্ট প্রতিনিধিদের সঙ্গে মত বিনিময় করেছেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। মতবিনিময় সভায় তিনি আবাসিক এলাকায় কার রেসিং বন্ধে কঠোর নির্দেশ দিয়েছেন।
গতকাল রোববার বিকালে পুলিশ সদরদপ্তরের  এক  সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি গুলশান, বনানী, প্রগতি সরণি, হাতিরঝিল, এয়ারপোর্ট রোড, মানিক মিয়া এভিনিউসহ ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় কিছু যুবকের উচ্চ শব্দে হর্ন বাজিয়ে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালিয়ে দুর্ঘটনা বৃদ্ধি, জনসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি ও শান্তিশৃঙ্খলা করছিল। এমন তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশের জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখা পরিচালিত বাংলাদেশ পুলিশ ফেসবুক পেইজের ইনবক্সে একটি বার্তা পাঠান এক সচেতন নাগরিক। এই বার্তা পেয়ে পুলিশের জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখা মাঠ পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট, বিশেষত ঢাকা মহানগর পুলিশের  গুলশান বিভাগ ও ট্রাফিক গুলশান বিভাগ বেপরোয়া গতি ও উচ্চ শব্দে হর্ন বাজিয়ে জন উপদ্রব সৃষ্টিকারী এসব গাড়ির বিরুদ্ধে যৌথভাবে অভিযান শুরু করে। ওই বিশেষ অভিযানে গত ২০ জুন থেকে ২৪ পর্যন্ত মোট ২১টি গাড়ির বিরুদ্ধে সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮ অনুযায়ী সুনির্দিষ্ট আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হয়। এছাড়া, আরও প্রায় ৮০টি গাড়িকে বিভিন্ন ছোট-খাটো বিচ্যুতির জন্য সতর্ক করা হয়।
পুলিশ সদরদপ্তর জানায়, পরবর্তী সময়ে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ সংশ্লিষ্ট সমস্যাটির প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানপূর্বক এ সংক্রান্তে একটি যুগোপযোগী সমাধানের লক্ষ্যে একটি মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন। গতকাল পুলিশ সদরদপ্তরের শাপলা সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশের কার রেসার, স্পোর্টস কার ওনার, কার এনথুজিয়াস্ট, কার ব্লগারসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মহলের প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় করেন।
সভায় আইজিপি বলেন, দেশে ক্রমবর্ধমান হারে বেড়ে উঠা এ সকল গ্রুপ এ দেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিরই একটি নিদর্শন। তবে, যেহেতু বাংলাদেশ এ মুহূর্তে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের একটি পটপরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এবং এ ধরনের সংস্কৃতি আমাদের দেশে এখনো ব্যাপকভাবে গ্রহণযোগ্যতা পায়নি, তাই এক্ষেত্রে এখনো যথেষ্ট অবকাঠামো এবং শৃঙ্খলা গড়ে উঠেনি যার ফলে নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে, প্রশিক্ষিত জনবলের মাধ্যমে, কার রেসিংয়ের আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে, সুনির্ধারিত ট্র্যাকে এ ধরনের কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ গ্রহণের ওপর তিনি সবিশেষ গুরুত্বারোপ করেন। পাশাপাশি জনবহুল আবাসিক ও বাণিজ্যিক এলাকায় উচ্চগতিতে ও উচ্চ শব্দে হর্ন বাজিয়ে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালনা বন্ধ করতে পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিটসমূহকে তিনি কঠোর নির্দেশনা দেন।
সভায় ট্রাফিক আইন প্রতিপালনে গাড়ি চালকদের আরো উৎসাহিত করা, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো বন্ধ করা, ট্রাফিক আইন বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধিতে গণমাধ্যমের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চালানো, রাস্তায় চলাচলের সময় পথচারীদেরে করণীয় সম্পর্কে সচেতন করা ইত্যাদি বিষয়েও আলোচনা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ