মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে নিস্ফলা মোহামেডান-আবাহনী লড়াই

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী লিমিটেড ও মোহামেডানের দর্শকশূন্য ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। ম্যাচের দুটি গোলই হয়েছে প্রথমার্ধে। এই ড্রয়ে মোহামেডান ১৬ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ আর আবাহনী সমান ম্যাচে ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। এই ম্যাচের পর পয়েন্ট টেবিলে এগিয়ে থাকা গত আসরের চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংসের চেয়ে আবাহনী ১৩ পয়েন্ট পিছিয়ে পড়ল। মোহামেডান-আবাহনীর আগের দ্বৈরথ ছিল জমজমাট। কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে দুই দলের ধুন্ধমার লড়াই শেষ হয়েছিল ২-২ গোলে। আর এবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ফিরতি ম্যাচের ফল ১-১। স্বাস্থ্যবিধির কারণে ম্যাচটি হয়েছে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে। দেশের দুই জনপ্রিয় ক্লাবের ম্যাচটি স্টেডিয়ামে বসে দেখতে পারেনি দর্শক, এমন কি টেলিভিশনে সম্প্রচারও হয়নি। বলতে গেলে নীরবেই হয়ে গেল দেশের ঐতিহ্যবাহী দুই দলের ম্যাচটি। কুমিল্লার মতো ম্যাচটি জমেনি এবার। এই ম্যাচের ফল শিরোপা নির্ধারণে প্রভাব নেই। নাটকীয় কিছু না ঘটলে আবাহনী বা মোহামেডানের কারও পক্ষেই চ্যাম্পিয়ন হওয়া সম্ভব নয়। তবে রানার্সআপ লড়াইয়ে থাকতে ম্যাচটি মহাগুরুত্বপূর্ণ ছিল দুই দলের জন্যই। না জিতলেও আবাহনীর জন্য স্বস্তির খবর হলো প্রতিদ্বন্দ্বী মোহামেডানের সঙ্গে তাদের দূরত্বটা আগের মতোই থাকল। জয়টা বেশি প্রয়োজন ছিল মোহামেডানেরই, টেবিলে নিজেদের অবস্থান ওপরে তোলার জন্য। ম্যাচের শুরুটা ভালোই ছিল মোহামেডানের। প্রাধান্য বজায় রেখে দলটি এগিয়েও গিয়েছিল। প্রথমার্ধ ছিল অনেক উপভোগ্য। দুই দলই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ করেছে। ম্যাচের ৩ মিনিটে প্রথম আক্রমণ আবাহনীর। সানডে চিজোবার শট সরাসরি মোহামেডান গোলরক্ষক বরাবর।

১৬ মিনিটে জটলা তৈরি হয়েছিল মোহামেডানের বক্স, এখান থেকে কোনো ফায়দা তুলে নিতে পারেনি আবাহনী। তিনবারের প্রচেষ্টায় অবশেষে সফল হন ক্যামেরুনের ফুটবলার ইয়াসান আওয়াচিং। ২৯ মিনিটে মোহামেডানকে ১-০ গোলের লিড এনে দেন তিনি। ৩২ মিনিটে মোহামেডানের গোলকিপার সুজন হোসেনের ভুলে সুযোগ তৈরি হয়ে গিয়েছিল আবাহনীর। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর বিপদ হয়নি মোহামেডানের। তবে ৪১ মিনিটে ম্যাচে সমতা আনে আবাহনী। 

মোহামেডানের ডিফেন্সের ভুলের সুযোগ কাজে লাগিয়ে গোল করেন আবাহনীর হাইতির ফরোয়ার্ড বেলফোর্ট। বিরতির পর মোহামেডানকে চেপে ধরেছিল আবাহনী। একের পর এক আক্রমণে ব্যতিব্যস্ত হয়ে উঠে সাদাকালোদের রক্ষণভাগ। কিন্তু সানডে, বেলফোর্টরা কাজের কাজটি করতে পারেননি। প্রথমার্ধে জিততে চাওয়া মোহামেডান দ্বিতীয়ার্ধে নেয় আবাহনীকে ঠেকানোর কৌশল। সে কৌশলে তাদের জয়ই হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ