মঙ্গলবার ৩০ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

বগুড়ায় অপহৃত স্কুল ছাত্রের হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার  

বগুড়া অফিস: বগুড়ায় মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত স্কুলছাত্র সাব্বির হোসেনের (১৫) হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে শাজাহানপুর থানার খরনা ইউনিয়নের জগন্থানপুর গ্রামের মাঠে একটি ডোবা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত সাব্বির হোসেন কাহালু থানার জামগ্রামের গোলাম রব্বানীর ছেলে এবং জামগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

জানা গেছে, সাব্বিরের বাবা গোলাম রব্বানী পেশায় ইজিবাইক চালক। তিনি অসুস্থ থাকায় সাব্বির ইজিবাইক চালাতো। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭ টার দিকে সাব্বির ইজিবাইক নিয়ে জামগ্রাম বাজারে যায়। এরপর রাতে বাড়ি ফেরেনি। সাব্বিরের বাবা পরদিন বুধবার ছেলে নিখোঁজের ব্যাপারে কাহালু থানায় জিডি করেন। ওই রাতেই অজ্ঞাত এক ব্যক্তি গোলাম রব্বানীর কাছে মোবাইল ফোনে ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এক পর্যায়ে অজ্ঞাত ব্যক্তি গোলাম রব্বানীকে জানায়, ২ লাখ টাকা দিলে তার ছেলেকে জীবিত ফেরত দেয়া হবে। এদিকে, বৃহস্পতিবার  শাজাহানপুর থানার বীরগ্রাম- ডেসমা পাকা সড়কের পার্শ্বে জগন্থানপুর গ্রামের মাঠে হাত-পা বাঁধা ও গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় একটি লাশ দেখতে পারেন গ্রামের লোকজন। পরে পুলিশে খবর দেয়া হলে লাশ উদ্ধার করে তার পরিচয় শনাক্ত করা হয়। নিহত সাব্বিরের বাবা গোলাম বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ছেলেকে তিনজন যাত্রী নিয়ে জামগ্রাম বাজার থেকে গ্রামের রাস্তায় দেখা গেছে। এরপর থেকে তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। তিনি আরো বলেন, মুক্তিপণের বিষয়টি তাৎক্ষণিক কাহালু থানা পুলিশকে জানানো হয়েছিল। এদিকে বৃহস্পতিবার লাশ উদ্ধারের পরেও অপহরণকারী চক্র মোবাইল ফোনে গোলাম রব্বানীর কাছে ৬০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফয়সাল মাহমুদ বলেন, ছিনতাইকারী চক্র চালককে হত্যা করে ইজিবাইক নিয়ে গেছে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে। মোবাইল ফোনে মুক্তিপন দাবী করার বিষয়টি নিয়েও পুলিশ কাজ করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ