সোমবার ২৯ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

রাজশাহীতে পদ্মা বাঁধের ব্লকগুলো নেমে যাচ্ছে  মশত শত বসতবাড়ি তলিয়ে যাবার আশঙ্কা 

রাজশাহী অফিস: রাজশাহীতে পদ্মার তীররক্ষা বাঁধ থেকে ব্লক নেমে যাচ্ছে। এতে বাঁধে ভাঙন সৃষ্টি হয়ে শতশত বসত বাড়ি নদীর বুকে তলিয়ে যাবার আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই সময় থাকতেই ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়েছেন নদীপাড়ের বাসিন্দারা। 

গত কয়েক সপ্তাহখানেক আগে রাজশাহী নগরীর কেশবপুর এলাকায় পদ্মানদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের ব্লকগুলো নিচে নেমে যেতে থাকে। এই এলাকায় নদীর পাড়জুড়ে মানুষের বসবাস। ব্লকগুলো নিচে নেমে যাওয়ায় এলাকাবাসীর আশঙ্কা করছেন। ব্লক নেমে যাওয়ার পর কোনো কোনো স্থানে নদীর ধারের রাস্তা স্থানীয় লোকজন বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন। রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডও (পাউবো) ইতোমধ্যে বালুর বস্তা ফেলার উদ্যোগ নিয়েছে। তবে এলাকাবাসীর দাবি, স্থায়ী কোনো ব্যবস্থা না করলে বালুর বস্তায় কাজ হবে না। 

নদীর তীরের বাসিন্দা আলী নেওয়াজের স্ত্রী কহিনুর বেগম (৫০) জানান, ‘গত বছরই বাঁধের অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। তখনো শুধু বস্তাই ফেলা হয়েছিল। পানি কমে যাওয়ার কারণে পানি উন্নয়ন বোর্ড আর কাজে হাত দেয়নি। সারাটা বছর গেল, তাঁদের কোনো খবর ছিল না। আবার এখন নাকি বস্তা ফেলবে। বস্তা দিয়ে তো বড় বিপদ ঠেকানো যাবে না।’ পদ্মাপাড়ের ফয়সাল কবির বলেন, এই বাঁধের বয়স হয়েছে। এতোদিনে সব নড়বড়ে হয়ে গেছে। এবার বৃষ্টি হলেই সব নেমে যাবে। এখন হয়তো আগের মতো বালুর বস্তা ফেলবে। কিন্তু বাঁধটাই মেরামত করা দরকার। এই স্রোতের মুখে বস্তা টিকবে না। কেশবপুর এলাকাটি রাজশাহী মহানগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মধ্যে পড়েছে। যোগাযোগ করা হলে এলাকার কাউন্সিলর রুহুল আমিন বলেন, তিনি জায়গাটি পরিদর্শন করে পাউবোকে বলেছেন। তারা বালুর বস্তা ফেলবে। প্রায় ১৫ বছর আগে এখানে নদীর বাম তীর রক্ষণাবেক্ষণের স্থায়ী কাজ হয়। এই কাজে ব্যবহৃত ব্লকের কোনোটির গায়ে ২০০৫ সাল আবার কোনোটির গায়ে ২০০৬ সাল লেখা রয়েছে। এই দীর্ঘ সময়ে নদীর প্রবল স্রোতের কারণে ব্লকগুলো নড়বড়ে হয়ে গেছে। রাজশাহী পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, ‘আপাতত বালুর বস্তা ফেলেই সমাধান করতে হবে। ইতোমধ্যে বস্তায় বালু ভরার কাজ শুরু করা হয়েছে। শিগগিরই বস্তা ফেলা হবে। একটি প্রকল্প ছাড়া তো স্থায়ী কাজ করা যায় না। প্রকল্প অনুমোদন হতেও সময় লাগে।’ শফিকুল ইসলাম আরো জানান, বুলনপুর থেকে বাঘা উপজেলা পর্যন্ত পদ্মা নদীর বাম তীরের যেসব জায়গায় ব্লক নেমে গেছে, সেই জায়গাগুলোতে স্থায়ী কাজ করার জন্য উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) তৈরির কাজ করা হয়েছে।

পুঠিয়ায় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট ভ্যানচালক নিহত

রাজশাহীর পুঠিয়ায় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ভ্যানচালক আব্দুস সামাদ (৪৫) ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় স্থানীয় লোকজন ট্রাকটিকে আটক করতে পারলেও চালক পলাতক রয়েছে। নিহত ভ্যান চালক পুঠিয়া সদর ইউনিয়নের গোবিন্দনগর এলাকার আবেদ আলীর ছেলে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে পুঠিয়া সদর বাসস্ট্যান্ড এলাকার এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পবা হাইওয়ে থানা (শিবপুরহাট) জানায়, ভ্যানচালক ঝলমলিয়া হাট থেকে কলা বোঝাই করে নিজ বাড়িতে আসছিলেন। পথে পুঠিয়া বাসস্ট্যান্ডের নিকট মহাসড়ক থেকে তাহেরপুর রোডের দিকে যাওয়ার মুহূর্তে রাজশাহী থেকে নাটোরগামী একটি মাল বোঝাই ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। স্থানীয় লোকজন ট্রাকটি ধাওয়া করে আটক করতে সক্ষম হন। তবে চালক ও হেলপার পালিয়ে যান। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ