সোমবার ২৬ জুলাই ২০২১
Online Edition

খুলনায় ইসলামী ছাত্রশিবিরের আলোচনা সভা

খুলনা অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী খুলনা মহানগরীর সহকারী সেক্রেটারি এ্যাডভোকেট শাহ আলম বলেছেন, ২৬৪ বছর পূর্বে ২৩ জুন পলাশীর আমবাগানে নবাব সিরাজউদ্দৌলা বনাম ইংরেজিদের যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলার স্বাধীনতার সূর্য অস্ত নেমেছিল। সেদিন অস্ত নেমেছিল যে স্বাধীনতা, তাকে আবার ফিরে পেতে ২০০ বছরের বেশি অপেক্ষা করতে হয়েছে বাঙালিদের। এই পলাশী উপলক্ষে আলোচনা সভা আয়োজন করে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির খুলনা মহানগর। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।
ইসলামী ছাত্রশিবিরের খুলনা মহানগরী সেক্রেটারি আব্দুল আউয়ালের সভাপতিত্বে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুর রহমান নাঈমের সঞ্চালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন আব্দুর রহমান, মুহাইমিনুন ইসলাম, আলি হামজা, আমিরুল ইসলামসহ নেতৃবৃন্দ।
প্রধান অতিথি আরো বলেন, পলাশীর প্রান্তে নবাবের পরাজয় আমাদের গোটা জাতির জন্য বিরাট বড় শিক্ষা। হতাশাজনক হলেও সত্য, পলাশী যুদ্ধের পরাজয় থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা আজও আমরা কাজে লাগাতে পারিনি। তৎকালীন সময়ে, দেশের অধিকাংশ মানুষই শাসকশ্রেণি এর পরিবর্তনের ব্যাপারে উদাসীন ছিলো। জাতির মধ্যে ছিলো না কোন ঐক্যবদ্ধতা। ফলে, রবার্ট ক্লাইভের সামান্য সামরিক শক্তি ও কূটকৌশলের কাছে বাংলা হারায় তার স্বাধীনতা। আমাদেরকে অর্জন করতে হবে জাতীয় ঐক্যের শক্তি। নিজেদের মধ্যে সকল প্রকার হিংসা-বিদ্বেষ ও ভেদাভেদকে ভুলে দেশের জন্য কাজ করতে হবে আমাদের। দেশপ্রেমকে শুধু জাতীয় দিবসগুলো উদযাপনের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না।
সভাপতির বক্তব্যে আব্দুল আউয়াল বলেন, সদাসর্বদা আমাদের মধ্যে দেশপ্রেম জাগ্রত রাখতে হবে। প্রিয় জন্মভূমিকে সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের থেকে মুক্ত রাখতে হলে সৎ, যোগ্য ও আদর্শবাদী দেশপ্রেমিক নাগরিক গঠনের লক্ষ্যে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে  ঢেলে সাজাতে হবে। তাহলে আর কখনো পলাশীর পটভূমি রচিত হবে না এ সোনার বাংলায়। সেই থেকে ইসলামী ছাত্রশিবির এই দিনকে পলাশী ট্রাজেডি দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ