শনিবার ১৬ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

চট্টগ্রামে জন্ম নিবন্ধন ওয়ারিশ মৃত্যু সনদসহ প্রয়োজনীয় সনদ পেতে ভোগান্তি

চট্টগ্রাম ব্যুরো : জন্ম নিবন্ধন, ওয়ারিশ, মৃত্যু, জাতীয়তা, ভূমিহীন সনদসহ প্রয়োজনীয় সনদ পেতে ভোগান্তিতে পড়ছেন সাধারণ মানুষ, স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্রশাসক এবং চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন।  গতকাল সোমবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এ সময় তিনি বলেন, জনগণের নিত্যপ্রয়োজনীয় কার্যক্রম পরিচালনায় অতি অত্যাবশ্যকীয় বেশকিছু সনদপত্র প্রয়োজন। বিশেষ করে সন্তানদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি, নতুন পাসপোর্ট তৈরি, বিবাহ নিবন্ধন, জমি  রেজিস্ট্রেশন, মৃত্যুজনিত কারণসহ নানা কারণে বিভিন্ন ধরনের সনদ প্রতিদিনই প্রয়োজন হয়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে যে এসব সনদ গ্রহণ করতে প্রায়ই ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে নতুন নিয়মে জন্ম নিবন্ধন সনদ গ্রহণে খুব বেশি ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সাধারণ সেবা গ্রহীতাগণ ভোগান্তিতে পড়লেও দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা জনগণের ভোগান্তি দূর করার পরিবর্তে নানা রকম অজুহাত দেখিয়ে সেবা গ্রহীতাদের হয়রানি করে।
তিনি বলেন, প্রায়ই তারা সেবা গ্রহীতাদের সাথে খারাপ আচরণ করে। এতে করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে সরকারের যে সাফল্য তা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আবার দেখা যাচ্ছে কোন একটা সনদ গ্রহণের ক্ষেত্রে নানাবিধ প্রমাণপত্রের মধ্যে যে কোন একটা প্রমাণপত্র উপস্থাপন করতে পারলে সনদ প্রদানের বাধ্যবাধকতা থাকলেও অযথা সকল প্রমাণপত্র উপস্থাপনের কথা বলে সনদ প্রদানে বাধা সৃষ্টি করছে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে দুর্ভোগে পড়ছে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষাসহ বিভিন্ন বিভাগে নানারকম ভাতা প্রদানের মাধ্যমে সমাজের অনগ্রসর মানুষকে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের সাথে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। সেক্ষেত্রে সনদপ্রাপ্তি যদি জটিলতার সৃষ্টি করে তাহলে প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত হতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেন তিনি।
 সনদপত্র প্রদানে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গকে আরো আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন জনগণ যাতে ঝামেলামুক্তভাবে প্রয়োজনীয় সনদ গ্রহণ করতে পারে সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখা সবার একান্ত দায়িত্ব ও কর্তব্য। তাই স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সেবা গ্রহীতারা যাতে কোন প্রকার ভোগান্তি ছাড়া প্রয়োজনীয় সনদপত্র পেতে পারেন সেজন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন সুজন।
তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সুযোগ্যমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় যেভাবে সিটি করপোরেশন, উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদ এবং পৌরসভার মাধ্যমে সারা বাংলাদেশে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে ঠিক সেভাবে সাধারণ জনগণের সনদ গ্রহণের ভোগান্তিও দূর হবে। তিনি সনদপত্র সংগ্রহে জনগণের বিভিন্ন অভিযোগ গ্রহণ করার লক্ষ্যে ডিজিটাল উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর সুদৃষ্টি আকর্ষণ  করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ