ঢাকা, বুধবার 28 July 2021, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৭ জিলহজ্ব ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

১শ কোটি ডোজ টিকা যথেষ্ট নয়: জাতিসংঘ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: কোভিড মোকাবিলায় দরিদ্র দেশগেুলোকে মাত্র ১০০ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিশ্বের শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট জি-৭ । কিন্তু তা যথেষ্ট নয় বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস। তিনি বলেন, এই মুহূর্তে বিশ্বের জন্য অনেক বেশি টিকার প্রয়োজন। তিনি সতর্ক করে বলেন, যদি উন্নয়নশীল দেশগুলোর জনগণকে দ্রুত টিকা দেওয়া না যায়, তবে করোনাভাইরাসের আরও রূপান্তর ঘটতে পারে এবং এ ভাইরাস নতুন টিকা প্রতিরোধী হয়ে উঠতে পারে।

জি-৭ এর পক্ষ থেকে টিকা সহায়তা আশ্বাসের পরই প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে নানা মহলে। এমনকি টিকা বিতরণ নিয়ে সুদূর প্রসারী পরিকল্পনার অভাব রয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। 

জি–৭–এর পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, ‘তারা যে পরিমাণ টিকা অনুদান হিসেবে দেওয়ার কথা জানিয়েছে, আমাদের দরকার তার চেয়েও বেশি। আমাদের বৈশ্বিক টিকা পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। দ্রুত টিকাদানের প্রয়োজনীয়তার বিষয় মাথায় রেখে যুক্তিসংগত কাজ করতে হবে। যুদ্ধকালীন অর্থনীতির কথা বিবেচনায় রাখতে হবে। আমরা এখনো এসব থেকে অনেক দূরে রয়েছি।’

এ বিষয়ে দাতব্য সংস্থা অক্সফামের স্বাস্থ্যনীতি বিষয়ক ব্যবস্থাপক আন্না ম্যারিয়ট বলেন,‘কোভিড মোকাবিলায় বিশ্বজুড়ে ১১শ’ কোটি ডোজ টিকার সরবরাহের প্রয়োজন। অথচ সেখানে জি-৭ নেতারা মাত্র একশ কোটি ডোজ টিকা জোগানের কথা বলছেন। যদি এরকম কিছুই সত্যিই হয়ে থাকে তবে জি-৭ সম্মেলন ব্যর্থ হবে’।

ইংল্যান্ডে জি–৭ শীর্ষ বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন দরিদ্র দেশগুলোকে যথাক্রমে ৫০ কোটি ও ১০ কোটি ডোজ করোনার টিকা দেওয়ার ঘোষণা দেন। কানাডা দিতে পারে ১০ কোটি ডোজ টিকা। বৈঠকে বরিস জনসন বিশ্বের প্রায় ৮০০ কোটি মানুষকে এ বছর শেষ হওয়ার আগেই টিকা দেওয়ার কাজে সহায়তা করতে জোটের নেতাদের আহ্বান জানান। তাঁর এ আহ্বান জানানোর পর বাকি দেশগুলোর কাছ থেকেও ৩০ কোটি ডোজের মতো টিকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পাওয়া যায়।

তবে স্বাস্থ্য ও দারিদ্র্য বিমোচন নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন দাতব্য সংস্থার কর্মীরা বলেন, করোনা সংকটে টিকা অনুদান হিসেবে দেওয়ার এ ঘোষণা একটি সঠিক পদক্ষেপ। কিন্তু করোনা মহামারি থেকে কাটিয়ে উঠতে যে ব্যতিক্রমী প্রচেষ্টা গ্রহণ করা দরকার, পশ্চিমা নেতারা তা নিতে ব্যর্থ হয়েছেন। টিকা বণ্টনকাজে সহায়তা করাও এ মহামারি থেকে উত্তরণে জরুরি।

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে টিকাদান কার্যক্রমে ধনী দেশগুলোকে আরও বেশি সহায়তা দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টিকারী ব্যক্তিদের একজন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী গর্ডন ব্রাউন। জি-৭ নেতাদের এ প্রতিশ্রুতির ব্যাপারে রয়টার্সকে তিনি বলেন, এটি প্রকৃত সমাধানের পথে না হেঁটে ‘ভিক্ষার পাত্র একজন থেকে আরেকজনের কাছে চালান করে দেওয়ার’ সঙ্গেই বেশি সাদৃশ্যপূর্ণ।

লন্ডনভিত্তিক দাতব্য সংস্থা ওয়েলকামের কর্মকর্তা অ্যালেক্স হ্যারিস বলেন, ‘বিশ্ববাসীর এখনই টিকা দরকার; এ বছরের শেষে নয়। আমরা জি–৭ নেতাদের প্রতি উচ্চাকাঙ্ক্ষা বাড়ানোর আহ্বান জানাই।’

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনার সংক্রমণ শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত এ মহামারি বিশ্বের ২১০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে মারা গেছেন প্রায় ৩৯ লাখ (৩ দশমিক ৯ মিলিয়ন) মানুষ। আক্রান্ত হয়েছেন আরও অনেকে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ