ঢাকা, রোববার 20 June 2021, ৬ আষাঢ় ১৪২৮, ৮ জিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

‘ধর্ষণ বৃদ্ধির জন্য মেয়েদের মোবাইল ফোন ব্যবহার দায়ী’

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের নারী কমিশনের এক সদস্য মীনা কুমারী বলেছেন, মেয়েদের মোবাইল ফোন দেওয়া উচিত না। কারণ এর ফলে মেয়েদের ধর্ষণের পথে পরিচালিত করে। একই সঙ্গে তিনি অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, মোবাইল থেকে মেয়েদের দূরে রাখতে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস এখবর জানিয়েছে।

বুধবার আলিগড়ে নারীদের বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে গণশুনানিতে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার অভিযোগের বিষয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মীনা কুমারি বলেন, মেয়েরা ফোনে কথা বলে এবং পরে ছেলেদের সঙ্গে পালিয়ে যায়। অভিভাবক বিশেষ করে মায়েদের উচিত নিজের মেয়েদের ওপর নজরা রাখা। কারণ নারীর বিরুদ্ধে অপরাধ মায়েদের ‘অসতর্কতার’ ফল।

অবশ্য রাজ্যের নারী কমিশন মীনা কুমারির বক্তব্যের সঙ্গে একমত নয়। কমিশনের ভাইস-চেয়ারপারসন অঞ্জু চৌধুরী বলেন, কুমারির বক্তব্য ভুল। যৌন সহিংসতার সমাধান মোবাইল ফোন দূরে রাখা নয়। মেয়েদের মোবাইল ফোন দেওয়া উচিত নয় বলার বদলে আমাদের অপরিচিতদের সঙ্গে চ্যাট না করতে এবং নিরাপদে তা ব্যবহারের শিক্ষা দিতে হবে।

এই বক্তব্যের বিষয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হলে মীনা কুমারি জানান, তিনি বুঝাতে চেয়েছেন গ্রামের অপ্রাপ্ত বয়স্ক ও মেয়েরা সঠিকভাবে মোবাইল ফোন ব্যবহার করা জানে না। তার কথায়, তারা ফোন ব্যবহার করে ছেলেবন্ধু বানানোর জন্য এবং পরে তাদের সঙ্গে পালিয়ে যায়।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, অনুপযুক্ত কনটেন্ট দেখার কাজে মোবাইল ফোন ব্যবহার করা হয়।

ধর্ষণের সঙ্গে মোবাইল ফোন কীভাবে সম্পৃক্ত তা আবারও জানতে চাইলে মীনা কুমারী বলেন, আমি প্রতিদিন অন্তত ২০জন নারীর দুঃখের কথা শুনি। এর মধ্যে অন্তত ৫ থেকে ৭টি ঘটনা মোবাইল ফোনে বন্ধুত্ব এবং পরবর্তী সময়ের প্রভাব সংশ্লিষ্ট। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মেয়েদের একটি নির্দিষ্ট জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয় ফাঁদে ফেলে এবং পরে তারা যৌন হামলার শিকার হয়।

ভারতে এর আগে বিভিন্ন সময় ধর্ষণের জন্য চৌমিন থেকে জিন্সকে দায়ী করা হয়। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ