সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

এবার শতবর্ষী কলেজে হচ্ছে না ভর্তি পরীক্ষা

স্টাফ রিপোর্টার : ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ থেকে ১৩টি শতবর্ষী কলেজে ভর্তি পরীক্ষার চিন্তা থাকলেও সেটি নেয়া হচ্ছে না। এসএসসি ও এইচএসসি ফলের ভিত্তিতেই এসব কলেজে এবার ভর্তি নেয়া হবে। তবে আগামী বছর থেকে শতবর্ষী কিংবা ৫০ বছরের বেশি বয়সের কলেজে আলাদা পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে।
জানা গেছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত দেশের ১৩টি শতবর্ষীসহ বেশ কয়েকটি ঐতিহ্যবাহী কলেজে এবার ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার চিন্তা-ভাবনা ছিল। এ নিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নীতিনির্ধারকদের নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে তা আয়োজন সম্ভব হচ্ছে না। ফলে এসব কলেজে এবারও এসএসসি ও এইচএসসির ফলের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তি নেয়া হবে।
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনিযুক্ত ভিসি অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, শতবর্ষী কলেজগুলোতে পরীক্ষা নেয়ার বিষয়টি আমাদের পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে আমরা সেটা থেকে সরে এসেছি। এসব কলেজেও এবার ফলের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। আগামীতে এসব  কলেজে আলাদা পরীক্ষা নিয়ে ভর্তি করা হবে, সেটি আমাদের ভাবনায় রয়েছে।
১৩টি শতবর্ষী কলেজ হলো- রাজশাহী কলেজ, চট্টগ্রাম কলেজ, সরকারি হাজী মুহাম্মদ মুহসীন কলেজ (চট্টগ্রাম), নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ, সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ (বরিশাল), মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজ (সিলেট), এডওয়ার্ড কলেজ (পাবনা), কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ, সরকারি ব্রজলাল (বিএল) কলেজ (খুলনা), আনন্দ মোহন কলেজ (ময়মনসিংহ), কারমাইকেল কলেজ (রংপুর), সরকারি প্রফুল্ল চন্দ্র (পিসি) কলেজ (বাগেরহাট), সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ (ফরিদপুর)।
তবে ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ শতবর্ষী হলেও এসব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত। তাই ঢাবি থেকে এসব কলেজে আলাদাভাবে ভর্তি পরীক্ষা ও শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।
সাত কলেজের পরীক্ষা জুনে হতে পারে
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের স্নাতক ও ডিগ্রির স্থগিত পরীক্ষা চলতি জুন মাস থেকেই শুরুর চেষ্টা চলছে।
ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আইকে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার গণমাধ্যমকে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতির অবনতিতে সাত কলেজের চলমান লিখিত/ব্যবহারিক যেসব পরীক্ষা স্থগিত হয়েছে এবং যেসব পরীক্ষা শুরুর জন্য রুটিন প্রকাশিত হয়েছিল, যা পরবর্তীতে স্থগিত হয়েছে, সেগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যেই শুরু করার চেষ্টা চলছে। চলমান লকডাউন উঠে গেলে ১০-১৫ দিনের নোটিশে পরীক্ষা শুরু করা হবে।
তিনি আরও বলেন, ২০১৯ সনের ২য় বর্ষের স্নাতক অনিয়মিত, মানোন্নয়ন ও বিশেষ (অনিয়মিত ও মানোন্নয়ন) এবং ২০১৮ সনের ডিগ্রি পাস ও সার্টিফিকেট কোর্স ৩য় বর্ষ (নতুন সিলেবাস) অসমাপ্ত পরীক্ষাসমূহ চলতি মাস অর্থাৎ জুনেই শুরু করার সম্ভাবনা বেশি। এখন পর্যন্ত যারা ফরম পূরণ করতে পারেনি, তাদের আগামী ১০ জুন পর্যন্ত নতুন সময় দেওয়া হয়েছে।
এছাড়া স্নাতকোত্তর ফাইনাল, প্রিলি ও স্নাতক ১ম, ২য়, ৩য় বর্ষের সব পরীক্ষাও দ্রুততম সময়ে শুরু করার জন্য কলেজগুলোর অধ্যক্ষরা শিগগিরই জরুরি বৈঠকে বসবেন বলেও জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ