রবিবার ২০ জুন ২০২১
Online Edition

ধন্যবাদ জানাতেই হয় ফিনল্যান্ডকে

পৃথিবীর সব দেশের রাজনীতির চিত্র একরকম নয়, রাজনীতির নেতারাও একরকম নন। এ ক্ষেত্রে তারতম্য এনে দিয়েছে জীবনদর্শন এবং ব্যক্তিচরিত্র। রাজনীতির ভয়ংকর সব চিত্র এখন বেশ খোলামেলা। তাই সাধারণ মানুষ যে শুধু রাজনীতিকদের ভয় করেন তা নয়, এড়িয়ে চলেন রাজনীতিকেও। এমন চিত্র সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য ভালো নয়, ভালো নয় সভ্যতার জন্যও।
তবে বিশ্বরাজনীতিতে ভয়ংকর সব কর্মকাণ্ডের মধ্যে কোমল বিষয়ও রয়েছে। না হলে কোনো দেশের প্রধানমন্ত্রীর নাশতার বিল নিয়ে কি তদন্ত হতে পারে? ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সানা মারিনের সকালের নাশতার বিল খতিয়ে দেখার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির পুলিশ। দেশটির প্রধানমন্ত্রী জনগণের করের টাকা থেকে অবৈধভাবে নিজের নাশতার জন্য ভর্তুকি নিচ্ছেন কিনা, তা তদন্ত করা হবে। মঙ্গলবার একটি ট্যাবলয়েড এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাতে দাবি করা হয়, প্রধানমন্ত্রী সানা মারিন সরকারি বাসভবন কেসারান্টায় থাকলেও নিজ পরিবারের সকালের নাশতার জন্য প্রতিমাসে ৩৬৫ ডলার বিল নিচ্ছেন। এ নিয়ে বিরোধীদের সমালোচনার মুখে পড়েছেন ৩৫ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রী সানা। তাঁর ভাষ্য, আগের প্রধানমন্ত্রীরাও এমন সুবিধা পেয়েছেন। টুইটারে সানা লিখেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আমি এই সুবিধা চাইনি কিংবা এ বিষয়ক সিদ্ধান্তে আমি জড়িত ছিলাম না’।
এদিকে বিবৃতিতে পুলিশ বলেছে, প্রধানমন্ত্রীকে কিছু খাবারের জন্য অর্থ দেয়া হয়েছে। কিন্তু মন্ত্রীদের পারিশ্রমিক আইন অনুসারে এটি বিধিসম্মত নয়। বিবৃতিতে ডিটেকটিভ সুপাপরিনটেনডেন্ট টিমু জোকিনেন বলেছেন, ‘তদন্তে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। কোনোভাবেই প্রধানমন্ত্রী বা তাঁর সরকারি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়ানো হবে না বিষয়টি।’ আর পুলিশের তদন্ত করার ঘোষণাকে টুইটারে স্বাগত জানিয়েছেন ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। ভাবার মত বিষয় বটে। একটি দেশের প্রধানমন্ত্রীর নাশতার বিল নিয়ে তদন্ত হচ্ছে। বিলের পরিমাণ হলো মাসে ৩৬৫ ডলার। কিন্তু এখানে জনগণের ট্যাক্সের টাকা অবৈধভাবে খরচ হচ্ছে কিনা সেটাই হলো মুখ্য বিষয়। এখানে পত্রিকা স্বাধীন, পুলিশ স্বাধীন, স্বাধীন তদন্তকে স্বাগত জানিয়েছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও। একেই বোধহয় বলা যায় সুশাসন। তবে এখানে বলার মত বিষয় হলো, সুশাসনের কথা সবাই বললেও বর্তমান বিশ্বব্যবস্থায় তার নজির খুব কমই দেখা যায়। তাই ফিনল্যান্ড ধন্যবাদ পেতেই পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ