সোমবার ২৯ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজের জন্য ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করুন

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকাদান কার্যক্রম গতি হারিয়েছে। ভারতের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী সব টিকা না আসায় প্রায় ১৫ লাখের মতো মানুষের টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে সংকট রয়েছে। এ অবস্থায় দ্বিতীয় ডোজ প্রত্যাশীদের অপেক্ষা এবং ধৈর্য ধারণ করতে অনুরোধ করেছে স্বাস্থ্য অধিফতর।
গতকাল বুধবার  স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাপ্তাহিক বুলেটিনে এই অনুরোধ করেন অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজ দেয়া বন্ধ রয়েছে,আর দ্বিতীয় ডোজ একেবারেই শেষ পর্যায়ে রয়েছে। দ্বিতীয় ডোজের যে পরিমাণ টিকা রয়েছে, সেটা দিয়ে প্রথম ডোজ গ্রহীতা সবাইকে টিকা দেয়া যাবে না।
বড় সংখ্যার অনেক মানুষ থেকে যাবেন যাদেরকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া যাচ্ছে না, মন্তব্য করে নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘তাদেরকে বিনয়ের সঙ্গে বলতে চাই, অপেক্ষা করুন, ধৈর্য ধরুন। প্রথম ডোজের ১২ থেকে ১৬ সপ্তাহ পর্যন্ত দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার সুযোগ রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সরকার সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে চেষ্টা করছে এই টিকা সংগ্রহ করতে। আমরা আশাবাদী, এই টিকা সংগ্রহ হবে এবং দ্বিতীয় ডোজ সবাই পেয়ে যাবেন।’
তিনি জানান, একইসঙ্গে চীন থেকে উপহার হিসেবে আসা সিনোফার্মের পাঁচ লাখ ডোজ টিকা মঙ্গলবার  ৫০১ জন মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয়েছে এবং তাদের কারও মধ্যে কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি। আগামী সাত থেকে ১০ দিন তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। এরপর জুন থেকে জুলাই মাসের মধ্যে সিনোফার্মের টিকার প্রথম ডোজের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে বলেও জানান অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম।
প্রসঙ্গত, দেশে করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরুর পর থেকে মঙ্গলবার (২৫ মে) পর্যন্ত টিকা দেওয়া হয়েছে মোট ৯৯ লাখ ৪ হাজার ৩১ ডোজ। এর পুরোটাই দেওয়া হয়েছে অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকার ফর্মুলায় ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড টিকা। এখনও পর্যন্ত দেশে কোভিশিল্ড টিকা এসেছে এক  কোটি দুই লাখ ডোজ। সেই অনুযায়ী কোভিশিল্ডের অবশিষ্ট মজুদ আছে আর মাত্র দুই লাখ ৯৫ হাজার ৯৬৯ ডোজ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ