সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

রাবি’তে শিক্ষকদের বিক্ষোভের মুখে সিন্ডিকেট সভা স্থগিত

রাবি রিপোর্টার: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) শিক্ষকদের বাধার মুখে সিন্ডিকেট সভা স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান মেয়াদের শেষ পর্যায়ে ‘অবৈধভাবে’ গণনিয়োগ দিতে পারেন- এই আশঙ্কায় সভা বন্ধ দাবি করে আসছিলেন দুর্নীতিবিরোধী শিক্ষকরা।
গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সভা বন্ধ করার দাবিতে ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দেন শিক্ষক সমাজের দুর্নীতিবিরোধী শিক্ষকরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শিক্ষকদের আগেই ভিসি’র বাসভবনের গেটে অবস্থান নেন ছাত্রলীগের বর্তমান ও সাবেক সদস্যরা। তাদের অধিকাংশই বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরিপ্রত্যাশী। সকাল ১০টার দিকে আন্দোলকারী শিক্ষকরা ভিসির বাসভবনে ঢুকতে চাইলে ছাত্রলীগের নেতারা তাদের বাধা দেন। শিক্ষকরা জোর করে ঢুকতে চাইলে ছাত্রলীগের নেতারা ধাক্কা দেন। এসময় ছাত্রলীগের এক বহিরাগত কর্মী শিক্ষকদের গুলী করে হত্যার হুমকি দেন বলে অভিযোগ উঠে। এতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। প্রক্টর ও পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, আগামী বৃহস্পতিবার মেয়াদ শেষ হচ্ছে বর্তমান ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের। তাঁর শেষ সময়ে মঙ্গলবার সকালে সিন্ডিকেট সভা আহ্বান করা হয়। সভায় ‘অবৈধভাবে নিয়োগ দেয়া হবে’- এমন আশঙ্কা থেকেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে বলে জানা যায়। এদিকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম গণমাধ্যমকে জানান, ‘শিক্ষকদের আন্দোলনের কারণে আজকের সিন্ডিকেট সভা স্থগিত করা হয়েছে।’
গুলী করার হুমকি ছাত্রলীগের
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) সিন্ডিকেট সভাকে কেন্দ্র করে দুর্নীতিবিরোধী শিক্ষকদের সাথে চাকরি প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ সময় শিক্ষকদের উপর গুলী চালানোর হুমকি দেয়া হলে এ নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এ সময় আন্দোলকারী শিক্ষকরা ভিসি’র বাসভবনে ঢুকতে চাইলে ছাত্রলীগের নেতারা তাদের বাধা দেয়। শিক্ষকরা জোরপূর্বক প্রবেশের চেষ্টা করলে ছাত্রলীগের নেতাদের সঙ্গে শিক্ষকদের ধাক্কাধাক্কি হয়। এসময় ছাত্রলীগের এক কর্মী শিক্ষকদের গুলী করে হত্যার হুমকি দেয়। পরে ক্যাম্পাসে সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানান শিক্ষকরা। আন্দোলনকারী শিক্ষকদের প্রতিনিধি ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সফিকুন্নবী সামাদী বলেন, ‘আমরা উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু ভিসি ভাড়াটিয়া নিয়ে আসেন আমাদের আন্দোলন বন্ধ করতে।’ প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে আমরা সেই চেষ্টাই করছি। তাছাড়া সিন্ডিকেটে নিয়োগ সংক্রান্ত কোনো বিষয় নাই। সভা ঘিরে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ায় সিন্ডিকেট সভা স্থগিত করা হয়।
নিন্দা ও প্রতিবাদ
রাবি শিক্ষককে গুলী করার হুমকির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী শিক্ষক গ্রুপ সাদা দলের শিক্ষকবৃন্দ গতকাল এক যুক্ত বিবৃতি দেন। সাদা দলের ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক প্রফেসর ড. মোহা. এনামুল হক স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রকাশ্য দিবালোকে সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের শিক্ষকদের গুলী করে মারার হুমকি প্রমাণ করে দেশে আইন শৃংখলা পরিস্থিতির কী ভয়াবহ অবনতি ঘটেছে। রাষ্ট্রীয়ভাবে আজ ফ্যাসিবাদ কায়েম করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায়  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নজিরবিহীন জালিয়াতি ও দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ভিসি ক্যাম্পাসেও অরাজকতাপূর্ণ পরিস্থিতি কায়েম করে অপকর্ম করে চলেছেন। তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ, স্বজনপ্রীতি, অর্থের বিনিময়ে নিয়োগসহ পঁচিশটি অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) গঠিত তদন্ত কমিটি কর্তৃক সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। শিক্ষকবৃন্দ বলেন: শিক্ষকদের গুলী করার হুমকির আজকের এ জঘন্য ঘটনা রাবি প্রশাসনের পরোক্ষ ইন্ধনেই ছাত্রলীগ ঘটিয়েছে। কেননা ঘটনার সময় আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য উপস্থিত থাকলেও তারা সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। অবিলম্বে এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন সাদা দলের শিক্ষকবৃন্দ। বিবৃতিতে স্বক্ষরকারী শিক্ষকবৃন্দের  মধ্যে রয়েছেন- প্রফেসর ড. মোহা. এনামুল হক, প্রফেসর ড. মো. শামসুল আলম সরকার, প্রফেসর প্রফেসর ড. সি. এম. মোস্তফা, প্রফেসর ড. কে বি এম মাহবুবুর রহমান, প্রফেসর ড. মো. আশরাফুজ্জামান, প্র্রফেসর ড. মো. সাইফুল ইসলাম ফারুকী, প্রফেসর ড. এফএমএ এইচ তাকী, প্রফেসর ড. মো. আমজাদ হোসেন,  প্রফেসর ড. মো. হাবীবুর রহমান, প্রফেসর ড. মো. বেলাল হোসেন, প্রফেসর ড. ফজলুল হক, প্রফেসর ড. ফখরুল ইসলাম, প্রফেসর ড. রেজাউল করিম, প্রফেসর ড.দিল আরা হোসেন, প্রফেসর ড. মো. মামুনুর রশীদ, প্রফেসর ড. মো. ফরিদুল ইসলাম, প্রফেসর ড. মোস্তফা কামাল আকন্দ, প্রফেসর ড. গোলাম সাদিক, প্রফেসর ড. আমিনুল হক, প্রফেসর ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ, প্রফেসর ড. আরিফুর রহমান, প্রফেসর ড. মো. শামসুজ্জোহা এছামী, প্রফেসর ড. সৈয়দ সারওয়ার জাহান লিটন, প্রফেসর ড. মো. আব্দুল আলীম, প্রফেসর ড. আওরঙ্গজীব আব্দুর রহমান, প্রফেসর ড. কুদরত জাহান প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ