শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

কয়রায় নদীর বাঁধ চুঁইয়ে পানি প্রবেশ॥ আতঙ্কে জনপদ

খুলনা অফিস : খুলনার কয়রা উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের দশালিয়া থেকে হোগলা পর্যন্ত কপোতাক্ষ নদীর বেড়িবাঁধের বিভিন্ন স্থান থেকে ছোট-বড় ছিদ্র দিয়ে লোনা পানি প্রবেশ করেছে। প্রায় তিন কিলোমিটার বাঁধের অধিকাংশ জায়গা রয়েছে জরাজীর্ণ অবস্থায়। ফলে আম্পানের ক্ষত শুকিয়ে উঠার আগেই পুনরায় যে কোন মুহূর্তে বাঁধ ভেঙ্গে পানিতে ডুবে যেতে পারে এলাকার মানুষের ঘর-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, রাস্তা, মৎস্য ঘের, ফসলি জমিসহ বিভিন্ন স্থাপনা। এলাকার হাজারো মানুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।
এদিকে গত বছরের মে মাসে আম্ফানের আঘাতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি হয়ে দশালিয়ার বাঁধ ভেঙ্গে এলাকা প্লাবিত হয়ে যায়। দীর্ঘ ১১ মাস অতিবাহিত হলেও এখনও টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হয়নি। অভিযোগ রয়েছে যথেষ্ট সরকারি বরাদ্দ হলেও টেকসই বাঁধ তৈরিতে গড়িমাসি করছে একটি মহল।
স্থানীয় সূত্রে ও সরেজমিন পরিদর্শনে জানা যায়, কয়রার দশহালিয়া থেকে হোগলা পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) দুপুরের জোয়ারে পানিতে বাঁধের বিভিন্ন স্থান দিয়ে চুকিয়ে ও ছোট-বড় ছিদ্র দিয়ে নদীর পানি এলাকায় প্রবেশ করতে দেখা গেছে। কয়েকজনকে পানি বন্ধের জন্য তাৎক্ষণিক কাজ করতে দেখা গেছে। যারা কাজ করছে তাদের নদীর অপর পাশে মৎস্য ঘের রয়েছে। মৎস্য ঘেরে নদী থেকে পাইপের মাধ্যমে পানি উঠানো হচ্ছে। ফলে ঝুঁকি আরও বাড়ছে।
স্থানীয় মৎস্য চাষী মতিয়ার রহমানকে বাঁধে কাজ করতে দেখা যায়। তিনি বলেন, বাঁধ নিয়ে চিন্তিত। যে কোন মূহুর্তে বাঁধ ভেঙ্গে নদী ও তার ঘের একাকার হয়ে যেতে পারে। এছাড়া বাঁধ ভাঙ্গলে কয়েকটি গ্রাম পানিতে ভেসে যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ