শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

মাগুরায় বোরো ধানের বাম্পার ফলন ধান কাটা শ্রমিক সংকট

মাগুরা থেকে ওয়ালিয়র রহমান: মাগুরা জেলার সর্বত্র মাঠে মাঠে বর্তমানে সোনালী ধান বাতাসে দোল খাচ্ছে। আর দোলা দিচ্ছে কৃষক কৃষাণীর বুকে। মাঠে ইতিমধ্যে সোনালী ধান পাকতে শুরু করেছে। আর কৃষকরা ধান কাটতে শুরু করেছে। কৃষি বিভাগ বলছে, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি মৌসুমে জেলায় এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না থাকায় ইতি মধ্যে জেলার কৃষকরা ৬০ শতাংশ ধান কেটে ফেলেছে কৃষকরা। সঠিক সময়ে নিয়মিত সেচ, সার দেয়ার ফলে ধানের ফলন ভালো বলে কৃষি বিভাগ মনে করছে। এবার জেলায় মোট মোট বোরো ধানের চাষ হয়েছে ৩৯ হাজার ৮২১ হেক্টও জমিতে। তার মধ্যে সদরে ১৮ হাজার ৮৭৫ হেক্টর, শ্রীপুরে ১ হাজার ৪২০ হেক্টর, শালিখায় ১৩ হাজার ৭০৬ হেক্টর ও মহম্মদপুরে ৫ হাজার ৮২০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে। এবার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লক্ষ ৭৯ হাজার ৫৯৩ মেট্রিকটন।
এদিকে, বোরো ধানের বাম্পার ফলন হলেও ধান কাটা শ্রমিকের অভাব থাকায় জেলার কৃষকরা সময় মতো ধান কাটতে ব্যাহত হচ্ছেন। করোনা মহামারি ও বার বার লকডাউনের কারণে কাজের সন্ধানে শ্রমজীবি মানুষ বের হতে না পারায় কৃষকরা শ্রমিক পাচ্ছে না। ফলে অনেক কৃষকের জমির ধান পুরোপুরি কেটে ঘরে উঠাতে লাগছে দীর্ঘ সময়।
মাগুরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সুশান্ত কুমার প্রামানিক জানান, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার জেলায় বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। বোরো ধানের আবাদের জন্য জেলার কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার প্রদান করা হয়েছে। এ চাষে সহযোগিতা করতে কৃষি বিভাগ থেকে জেলার কৃষকদের যথাযথ পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে। কোন দুর্যোগ ছাড়াই ইতিমধ্যে ৬০ শতাংশ ধান কৃষকের ঘরে উঠে গেছে। বাকি ৪০ শতাংশ ধান কিছুটা পেকেছে । আশা করা হচ্ছে জেলার কৃষকরা পুরোপুরি ধান ঘরে তুলতে পারবে। তবে বেশ কিছু দিন আগে হিট শটে জেলার প্রায় ৩০৩ হেক্টর জমির ধান আক্রান্ত হয়েছে। অতিরিক্ত গরম বাতাস যেসব ধান গাছে লেগেছে সে ধান গুলো চিটায় পরিণত হয়েছে। এ হিট শটে সদরের মঘি,জগদল ও ছোনপুর এলাকার কিছু ধান আক্রান্ত হয়েছে। বাকি সব এলাকায় ধানের ফলন ভালো হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ