রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

নাসার ফেলোশিপ অর্জন করলেন বাংলাদেশী তরুণ গবেষক সজীব

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশী তরুণ গবেষক আনোয়ার জামান সজীব। সুনামগঞ্জের এই সন্তান বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো ইউনিভার্সিটিতে পোস্টডক্টরাল স্কলার হিসেবে নিয়োজিত। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার সম্মানজনক একটি ফেলোশিপ প্রোগ্রামের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।
প্রতিবছর মহাকাশ গবেষণা এই সংস্থাটি সম্ভাবনাময় তরুণ বিজ্ঞানীদের নাসা হাবল ফেলোশিপ প্রোগ্রাম (এনএইচএফপি) নামের এ ফেলোশিপ দেয়। যা ৩ বছর মেয়াদী। এবছর ২৪ জন ফেলোশিপের মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশি আনোয়ার জামান সজীব। বাংলাদেশের গর্ব সজীব এ পর্যন্ত তাঁর ২১টি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে। গত ৩১ মার্চ নাসার ওয়েবসাইটে ফেলোশিপপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের তালিকা প্রকাশ করা হয়।
সংস্থাটির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যমতে, গবেষণার বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে এই ফেলোশিপ প্রোগ্রামে নির্বাচিত ব্যক্তিদের ৩টি উপশ্রেণি আইনস্টাইন ফেলো, হাবল ফেলো ও সাগান ফেলো-তে ভাগ করা হয়। সজীব আইনস্টাইন ফেলো হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এ ফেলোশিপের জন্য যাঁরা নির্বাচিত হয়েছেন, তাঁরা জ্যোতির্বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্বতন্ত্র গবেষণা চালিয়ে যাবেন।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, সুনামগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের বেড়িগাঁও গ্রামে জন্ম আনোয়ার জামান সজীবের। বাবা মোহাম্মদ আবু নাসের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের আঞ্চলিক বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তা এবং মা আনোয়ারা বেগম গৃহিণী। ২ ভাই ও ১ বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। আনোয়ার সজীব বড় হয়েছেন সিলেটে।
পরে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ভর্তি পরীক্ষায় ৯ম স্থান অধিকার করে তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগে ভর্তি হন। পরে তিনি জাপান সরকারের মনবুস স্কলারশিপ পেয়ে জাপানে যান। পদার্থবিজ্ঞানের প্রতি তাঁর আগ্রহ ছিল ছোটবেলা থেকেই। সেই আগ্রহ থেকে জামানের টোকিও ইউনিভার্সিটিতে ২০১৪ সালে পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতক সম্পন্ন করেন। ছেলের এ সাফল্যে খুশি বাবা মোহাম্মদ আবু নাসের। তিনি বলেন, এ সম্মান যেমন আমাদের পরিবারের, তেমনি দেশের। একজন বিজ্ঞানী হিসেবে আনোয়ারের গবেষণা বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম-সম্মান বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে, এটাই প্রত্যাশা করি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ