শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

আবারো বেড়েছে ভোজ্যতেল সবজি ও পেঁয়াজের দাম

রাজধানীর বাজারে সব ধরনের সবজির দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল শুক্রবার তোলা ছবি -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: সপ্তাহের ব্যবধানে আবারো দাম বেড়েছে সবজি, পেঁয়াজ ও ভোজ্যতেলের। তবে মুরগির দাম কিছুটা কমলেও অপরিবর্তিত রয়েছে চাল, ডাল ডিমসহ অন্য পণ্যের দাম। রাজধানীর বাজারগুলোতে বোতল ও খোলা উভয় ধরনের সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে পাম সুপার তেলের দাম। বোতলের সয়াবিন তেলের দাম লিটারে বেড়েছে পাঁচ টাকা। আর খোলা সয়াবিন ও পাম সুপারের দাম কেজিতে চার টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। এদিকে কিছুটা দাম কমার পর আবার বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে পাঁচ টাকা করে।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দেখা গেছে, খুচরা ব্যবসায়ীরা বোতলের সয়াবিন তেলের দাম বাড়িয়ে দিলেও বাজারে নতুন দামের তেল এখনও আসেনি। বাজারে এক লিটারের যে বোতল পাওয়া যাচ্ছে তার গায়ে ১৩৯ টাকা লেখা রয়েছে। তবে বেশিরভাগ খুচরা ব্যবসায়ী এই তেল বিক্রি করছেন ১৪৫ টাকা। অবশ্য কোনো কোনো ব্যবসায়ী ১৪০ টাকাও বিক্রি করছেন। খোলা সয়াবিনের দাম বাড়ার তথ্য মিলেছে অন্য বাজারগুলোতেও। দুদিন আগে ১৩০ থেকে ১৩২ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া খোলা সয়াবিন তেল এখন বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৩৬ টাকা। এর সঙ্গে বেড়েছে পাম সুপারের দাম। ১২০ থেকে ১২২ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পাম সুপারের দাম বেড়ে ১২৫ থেকে ১২৭ টাকা বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে রাজধানীর বাজারগুলোতে বেড়েছে সব ধরনের সবজির দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি গাজর ৩০ থেকে ৪০ টাকায়, বেগুন ৪০ থেকে ৫০ টাকায়, করলা ৪০ থেকে ৫০ টাকায়, মুলা ৪০ টাকায়, ঢেঁড়স ৫০ থেকে ৬০ টাকায়, টমেটো ৩০ থেকে ৪০ টাকায়, বরবটি ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  
প্রতি পিস লাউ আকারভেদে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায়, বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। মিষ্টি কুমড়ার কেজি ২০ থেকে ৩০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পটল ৪০ থেকে ৫০ টাকা, লতি ৬০ টাকা, সজনে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, আলু ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ৫ টাকা দাম বেড়ে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। কাঁচামরিচের কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা।
কাঁচকলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকায়। পেঁপে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৩৫ টাকায়। খিরা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, শসা ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। মটরশুঁটির কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা। কাঁকরোল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়, লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়।
এছাড়া শুকনা মরিচ প্রতি কেজি ১৮০ টাকা, রসুন ৮০ থেকে ১২০ টাকা, আদা ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। হলুদ ১৮০ টাকা থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
বাজারে প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়। প্রতি কেজি বি আর-২৮ চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকায়, মিনিকেট ৬৩ থেকে ৬৪ টাকায়, নাজির ৬৫ থেকে ৬৮ টাকায়, মোটা চাল ৪৫ থেকে ৪৮ টাকায়, পোলাওয়ের চাল ৯০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খোলা ভোজ্যতেলের লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৩৯ টাকায়।
লাল ডিম এক ডজন ডিম বিক্রি হচ্ছে ৮৫ টাকায়। হাঁসের ডিমের দাম কমে ডজন এখন ১৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশি মুরগির ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়।
প্রতি কেজিতে ৫০ টাকা দাম কমে সোনালি (কক) মুরগি ২৩০ থেকে ২২০ টাকায় ও ব্রয়লার মুরগি কেজিতে ২০ টাকা কমে ১২৫ থেকে ১৩০ টাকায় ও লেয়ার মুরগি ২২০ থেকে ২৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।  
এসব বাজারে অপরিবর্তিত আছে গরু ও খাসির গোশত, মসলাসহ অন্যান্য পণ্যের দাম। বাজারে প্রতি কেজি খাসির গোশত বিক্রি হচ্ছে ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকায়, বকরির গোশত ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকায়, গরুর গোশত বিক্রি হচ্ছে ৫৮০ টাকায়।
এসব বাজারে প্রতি কেজি রুই মাছের দাম বেড়ে (আকারভেদে) ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা, মাগুর মাছ ৬০০ টাকা, শিং মাছ (আকারভেদে) ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। মৃগেল ১১০ থেকে ১৫০ টাকা, পাঙ্গাস ১২০ থেকে ১৫০ টাকা, ইলিশ প্রতি কেজি (আকারভেদে) ৮৫০ থেকে ১০০০ টাকা, চিংড়ি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা, বোয়াল মাছ ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা, কাতল ১৭০ থেকে ২৮০ টাকা, ফোলি মাছ ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা, পোয়া মাছ ২০০ থেকে ২৫০ টাকা, পাবদা মাছ ১৫০ থেকে ২৫০ টাকা, টেংরা মাছ ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, টাটকিনি মাছ ১০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০ টাকা, সিলভার কার্প ১০০ থেকে ১৪০ টাকা, কৈ দেশি মাছ ১৫০ থেকে ৭০০ টাকা, কাঁচকি ও মলা ২৫০ থেকে ৪৫০ টাকা, আইড় মাছ ৫০০, রিটা মাছ ২২০ টাকা ও কোরাল ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা, গুড়া বেলে ১২০ টাকা, রূপচাঁদা মাছ ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ