মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

হেফাজতের আরও তিন নেতা গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার : হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আরও তিন কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর শাখার সহসভাপতি এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর মাওলানা খুরশিদ আলম কাসেমীকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এদিকে কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ঢাকা মহানগর সহ-সভাপতি এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর আল্লামা খুরশিদ আলম কাসেমীকে তার মোহাম্মদপুরস্থ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক, ঢাকা মহানগরীর সহসাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব আতাউল্লাহ আমীনকে গ্রেফতারের তথ্যও স্বীকার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)।
জানা গেছে, গতকাল বুধবার বিকেল ৫টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে সাদা পোশাকে থাকা কিছু ব্যক্তি মাওলানা খুরশিদ আলম কাসেমীকে আটক করে নেয়। পরে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম জানান, তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাহবুব আলম বলেন, সাম্প্রতিক নাশকতা ও ২০১৩ সালের নাশকতার মামলায় খুরশিদ আলম কাসেমীর সম্পৃক্ততা রয়েছে। এ কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে হাজির করা হবে।
এদিকে হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ঢাকা মহানগর সহ-সভাপতি এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর আল্লামা খুরশিদ আলম কাসেমীকে তার মোহাম্মদপুরস্থ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডিবি পুলিশের একটি সূত্রে এতথ্য জানা গেছে।
এছাড়া মঙ্গলবার বিকেলে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক, ঢাকা মহানগরী শাখার সহসাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব আতাউল্লাহ আমীনকে মোহাম্মদপুর থেকে সাদা পোশাকে একটি দল আটক করে নিয়ে যায়। তবে এদিন ডিবি বা অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কেউ তাকে গ্রেফতারের তথ্য স্বীকার করেনি। পরে গতকাল বুধবার র‌্যাব জানিয়েছে, তারা আতাউল্লাহকে র‌্যাব আটক করেছে।
র‌্যাব সদর দফতর থেকে দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় বলা হয়েছে, পল্টন থানার একটি মামলার আসামি আতাউল্লাহকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে পল্টন থানায় হস্তান্তরও করা হয়েছে। গত কয়েকদিনে হেফাজতের হেভিওয়েট নেতা মামুনুল হকসহ একডজনেরও বেশি কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বেশ কয়েকজনকেই এরই মধ্যে রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ