শুক্রবার ০৭ মে ২০২১
Online Edition

পাকিস্তানে নিষিদ্ধই থাকছে টিএলপি

২১ এপ্রিল, রয়টার্স, ডন : পাকিস্তানের ইসলামি দল তেহরিক-ই-লাব্বাইক পাকিস্তান (টিএলপি) দলের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তোলার সরকারের কোনো ইচ্ছা নেই বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ফ্রান্সে ইসলামবিরোধী ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশের জেরে বিক্ষোভ করে আসছিল দলটি। ইসলামাবাদে নিযুক্ত ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কারের দাবি জানায় তারা। এ নিয়ে সরকারের সঙ্গে এক চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে এলে গত সপ্তাহে বড় কয়েকটি শহরে সহিংস বিক্ষোভ দেখায় টিএলপি। এর জেরে দলটিকে নিষিদ্ধ করে পাকিস্তান সরকার।

পাকিস্তানি সংবাদমাধমের খবরে বলা হয়, নিষেধাজ্ঞা তোলার জন্য আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণের জন্য মঙ্গলবার টিএলপির প্রতি আহ্বান জানান ইমরান খান। ক্ষমতাসীন দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) সংসদীয় কমিটির এক বৈঠকে টিএলপি নিয়ে এমন মনোভাব প্রকাশ করেন তিনি। যদিও এর আগে সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, টিএলপির সঙ্গে একাধিক সফল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে উপস্থিত থাকা এক সূত্র ডনকে জানিয়েছে, টিএলপির দাবি মেনে নিয়ে ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কড়া প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান। যার ফলে ২৭টি পশ্চিমা দেশ তাদের রাষ্ট্রদূতকে ফিরিয়ে নিতে পারে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলাম অবমাননার বিরুদ্ধে পুরো মুসলিম বিশ্ব সম্মিলিতভাবে নিন্দা না জানালে পশ্চিমা দেশগুলো কখনো চাপের মুখে পড়বে না। এটি ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতা’ নয়, বরং বিশ্বের লাখ লাখ মুসলিমের অনুভূতিতে আঘাত। তিনি আরও বলেন, ইসলামের নবী মুহাম্মদ (সা.)কে অবমাননার বিরুদ্ধে পশ্চিমা বিশ্বের ওপর চাপ তৈরি করতে মুসলিমপ্রধান দেশগুলোকে নেতৃত্ব দিতে চান। গত সপ্তাহে টিএলপির দাবির পরিপ্রেক্ষিতে লাহোর থেকে দলটির প্রধান আল্লামা সাদ হুসাইন রিজভিকে গ্রেপ্তার করে নিরাপত্তা বাহিনী। এরপরই লাহোরসহ কয়েকটি বড় শহরে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, সহিংসতায় টিএলপির কর্মীদের হামলায় পুলিশের ছয়জন কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে টিএলপি নেতাদের দাবি, সংঘর্ষে তাঁদের কয়েকজন সমর্থকও নিহত হয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ