মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
Online Edition

 কবর খননে ব্যবহার হচ্ছে  আধুনিক মেশিন !

স্টাফ রিপোর্টার : শুধু হাসপাতাল নয়, করোনার কারণে চাপ বেড়েছে কবরস্থানেও। কবর খুঁড়ে কুল পাচ্ছেন না কবরস্থানের কর্মীরা। চাপ সামলাতে তাই চলছে মেশিন দিয়ে কবর খোঁড়ার কাজ। গত দুই সপ্তাহ যাবত এতো বেশি লাশ দাফন করতে হচ্ছে যে পরিস্থিতি সামাল দিতে বেগ পেতে হচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানগুলোর। 

বাংলাদেশে গত এক মাসে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রায় দেড় হাজার মানুষ মারা গেছে। পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, ফ্রেব্রুয়ারি মাসের ১৫ তারিখ থেকে মার্চে মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৭১ জন মানুষ মারা গেছে। অথচ এর পরবর্তী এক মাসে, অর্থাৎ মার্চ মাসের ১৫ তারিখ থেকে এপ্রিল মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত এক হাজার চারশ বিয়াল্লিশ জন মানুষ মারা গেছেন। অর্থাৎ পূর্ববর্তী মাসের তুলনায় মৃত্যু বেড়েছে পাঁচ গুন বেশি। 

ঢাকার স্বেচ্ছোসেবী সংস্থা আল-মারকাজুল ইসলাম বাংলাদেশে গত এক বছর যাবত কোভিড আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের দাফনের কাজ করছে। সংস্থাটির একজন কর্মী বলছেন, গত দুই সপ্তাহ যাবত এতো বেশি মৃতদেহ দাফন করতে হচ্ছে যে পরিস্থিতি সামাল দিতে তাদের বেগ পেতে হচ্ছে। অথচ নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত মৃতদেহ দাফন একেবারেই কমে গিয়েছিল।

দীর্ঘদিন ধরে কবরস্থানে গোর খোদকের কাজ করা কর্মীরা বলছেন, এমন মৃত্যুর র্দীঘ মিছিল তারা কখনই দেখেননি। রাজধানীর রায়েরবাজারের কবরস্থানে দেখা মেলে এমন চিত্রের। সনাতন পদ্ধতিতে কবর খুঁড়ে আর কুলোচ্ছিলো না গোর খোদকদের। তাই তো আনতে হয়েছে আধুনিক মাটিকাটা যন্ত্র। যা দিয়ে অল্প সময়ে অনেক কবর খুঁড়তে পারছেন তারা।

কবরস্থানে প্রবেশ করলে দেখা যাবে সারি সারি নতুন কবর খুঁড়ে রাখা হয়েছে। দেখে মনে হবে যেন যুদ্ধবিদ্ধস্ত কোনো দেশের চিত্র। করোনা সংক্রমিত হয়ে মৃত্যুর মিছিলে প্রতিদিন যোগ হচ্ছেন বহু মানুষ। গোর খোদকদের কাছে এ যেন নীরব যুদ্ধের সৈনিক হিসেবে লড়াই করে যাওয়া। যুদ্ধের মাঠে পরাজিত মানুষদের মাটি দেয়াই তাদের কাজ।

রায়ের বাজারের গোর খোদকরা বলছেন, করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে মৃত্যু বেড়েছে বহুগুণ। প্রতিদিন যে পরিমাণ লাশ আসছে, তাতে আর শাবল-কোদাল দিয়ে সনতনী পদ্ধতিতে কবর খুঁড়ে কুল পাচ্ছেন না তারা। তাই আশ্রয় নিতে হচ্ছে এমন মাটিকাটা যন্ত্রের। আগে প্রতিদিন যে কয়টি কবর খুঁড়তে হতো তার চেয়ে এখন ৪০ থেকে ৫০টি কবর বেশি খুঁড়তে হচ্ছে।

এদিকে কবরস্থানে প্রতিদিনই বাড়ছে স্বজন হারানো মানুষের আর্তনাদ। কবরের টালি খাতায় স্বজনদের নামের তালিকা বেড়েই চলেছে। অনেকে প্রিয় স্বজনের শেষ বিদায় উপস্থিত না থাকতে পারার অপরাধবোধ আর গোপন কষ্ট প্রকাশ করছেন স্বজনের কবরের কাছে এসে।

সময় পরিক্রমায় হয় তো স্বজনের কবরের পাশে লাগানো নাম ফলকটিও চলে যাবে। একই কবরে ঠাঁই হবে অন্য কোনো মানুষের লাশ। কিন্তু হারিয়ে যাওয়া মানুষগুলোর স্মৃতি থেকে যাবে বেঁচে যাওয়া স্বজনদের হৃদয়ে। একদিন হয়তো এই মহামারি চলে যাবে। কিন্তু চলে যাওয়া স্বজনদের শূন্যতা কাঁদাবে আজীবন। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ