শনিবার ১৬ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

নতুনত্বের ছোঁয়ায় নববর্ষ

নাজিয়া আফরিন : নতুন দিন, নতুন বছর, কিছু নতুন স্বপ্নের আগমন - এভাবেই বাঙালির মনে কড়া নাড়ে নববর্ষ। নববর্ষে বাঙালি মেতে উঠে নতুন রূপে। নতুন বছরের নতুন সূর্য উদিত হয়ে বাঙালির মনে সঞ্চার করে নতুন আশার। নতুনভাবে সবাই ফিরে পায় জীবনের ছন্দ। কিন্তু এই ছন্দপতন ঘটছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রকোপে। গতবছর থেকে নববর্ষ হারিয়েছে তার কাক্সিক্ষত রূপ। করোনা নামক প্রাণঘাতী ভাইরাসে জনজীবন বিপর্যস্ত, অনিশ্চিত মানুষের জীবনযাত্রা তাই স্বাভাবিকতা হারিয়েছে বাঙালির প্রাণের উৎসব। শুধুমাত্র উদযাপনে নয় নব দিনের নতুন আশার বাণীকে প্রতিনিয়ত ব্যাহত করছে এই ভাইরাস। হঠাৎ কালো ছায়ার মতো গ্রাস করে নিচ্ছে জীবনীশক্তি।
প্রাচীনকাল থেকে বাংলা বছরের প্রথম দিনটি মহাসমারোহে পালন করা হয়। গ্রামীণ কৃষিসমাজের সাথে সম্পৃক্ততা থেকেই এর উদযাপনের শুরু। পুরাতন বছরের সব খাজনা পরিশোধ করে নতুনভাবে শুরু করার দিন ছিল এটি। অপরদিকে ব্যবসায়ীরা পুরাতন বছরের হিসেব মিলয়ে নতুন খাতা খুলতো এদিনে এবং ক্রেতাদের নতুন দিনে মহাসমারোহে বরণ করে নিতো। এভাবেই বহুকাল পূর্বে নববর্ষ উদযাপনের বিষয়টি বাঙালির সংস্কৃতিতে প্রভাব বিস্তার করে। বর্তমানে সেই রূপ পরিবর্তিত হলেও এখন নববর্ষ উদযাপন বাঙালির হৃদয়ে বিশেষ এক স্থান দখল করে নিয়েছে। নববর্ষ উদযাপনের অংশ হিসেবে আয়োজন করা হত মেলার, দেখানো হতো পুতুল নাচ। সকলের স্বতঃস্ফূর্ততায় আরো রঙিন হয়ে উঠতো দিনটি।
যদিও বর্তমানে উদযাপনে ভিন্নতা এসেছে তবে নতুন আঙ্গিকে বিভিন্নরূপে সমগ্র দেশে ভিন্ন আয়োজনে উদযাপিত হয় দিনটি।
গ্রামীণ কৃষক সমাজের আয়োজনের সাথে অনেকটাই ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয় শহুরে পরিবেশে। শহরের বিভিন্ন স্থানে গ্রামীণ আঙ্গিকে মেলার আয়োজন করা হয়, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে শুরু হয় বর্ষবরণ। কৃত্রিম আধুনিকতার ছোঁয়াকে ভুলে সকলে মেতে ওঠে বাঙালিয়ানায়। তবে অনেক ক্ষেত্রেই সেটি মেকি। বছরের একটি দিনে বাঙালি হয়ে বাকি দিনগুলোতে আধুনিকতার নামে অপসংস্কৃতিতে ডুবে থাকে অনেকেই। বাহ্যিকতায় বাঙালিয়ানা আর অন্তরে অপসংস্কৃতির প্রসার অনেকক্ষেত্রেই প্রশ্নবিদ্ধ করে তোলে। শুধুমাত্র একটি দিনকে কেন্দ্র করে নয় মুক্তমনা সংস্কৃতির চর্চা হওয়া উচিত প্রতিটি ক্ষণে, সকলের অন্তরে অন্তরে।
নতুন দিনে পুরোনো বছরের সকল গ্লানি মুছে যাক, সকল অপ্রাপ্তির অবসান ঘটিয়ে জীবন হয়ে উঠুক আরো রঙিন। নতুন আলোয় আলোকিত হোক বিশ্ব। করোনার কালো ছায়া কেটে গিয়ে আবার উদিত হোক নতুন দিনের নতুন সূর্য। নতুন দিনে কোনো অশুভ শক্তি যেন প্রভাব ফেলতে না পারে সেই প্রত্যাশায় নতুন বছরকে বরণ করে নিতে হবে। পুরোনো বছরের সকল অপ্রাপ্তি যেন নতুন দিনে না থাকে সেই প্রত্যাশায় পুরাতনকে বিদায় দিয়ে নতুনকে স্বাগতম জানাতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ