সোমবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

সরকার সঠিক দায়িত্ব পালন করছে না এটা আমাদের জন্য দুর্ভাগ্য -মিয়া গোলাম পরওয়ার

গতকাল রোববার মুন্সীগঞ্জে লঞ্চ দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার -সংগ্রাম

মমিন বিশ্বাস, মুন্সীগঞ্জ : রাসূলের আদর্শ হলো দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে দাঁড়ানো। সেই আদার্শকে লক্ষ্য রেখেই জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় আমীরের নির্দেশে শীতলক্ষ্যা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় নিহত পরিবারের পাশে দাঁিড়য়েছে জামায়াত। এই কার্যক্রম করার কথা ছিল সরকারের। কিন্তু সরকারের এই মহামূল্যবান দায়িত্ব পালন না করায় দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের দুর্ভোগ লাঘব হচ্ছে না। সরকার তাদের সঠিক দায়িত্ব পালন করছেন না এটা আমাদের জন্য দুর্ভাগ্য। জামায়াতে ইসলামী সে আদর্শের ধারক বাহক। সাধ্যমত দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা প্রদান করে যাচ্ছে। শীতলক্ষ্যায় নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং নিহতরা যাতে শাহাদাতের মর্যাদা পায় সে জন্য কায়মনোবাক্যে মহান রবের কাছে প্রার্থনা করেন। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরোয়ার দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে গতকাল রোববার সকাল ৯ টায় মুন্সীগঞ্জ সদরের একটি অডিটরিয়ামে নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদানের পূর্বে সক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, কার্গোর ১৪ জনকে আটক করা হয়েছে। যেহেতু কার্গের মালিক একজন সংসদ সদস্য। তাই নিহত প্রত্যেক পরিবারের জন্য উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ আদায় করে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে প্রদান করারও আহ্বান জানান তিনি। সাথে এই কার্গো চালক যেভাবে লঞ্চটিকে ঠেলে ঠেলে ডুবিয়ে মানুষ হত্যা করেছে। এই ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদেরকে সঠিক আইনের আওতায় এনে ন্যায়বিচারের দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন, আমাদের মহানবীর এই মহান আদর্শ যদি সমাজ ও রাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত হয় তবে দুর্যোগে কবলিত মানুষের কোন কষ্ট থাকবে না।   
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর উদ্যোগে লঞ্চ দুর্ঘটনায় নিহত পরিবারের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে মুন্সীগঞ্জের নিহত ১৯ জনের পরিবারের মধ্যে উপস্থিত ৯ জনের প্রতি পরিবারের হাতে নগদ ৫০,০০০ (পঞ্চাশ হাজার) টাকা তুলে দেয়া হয়। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী মুন্সীগঞ্জ জেলা আমীর মাওলানা আব্দুল আউয়াল জেহাদীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি  হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল, সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরোয়ার।  
নিহত ৯ জনের পরিবারের প্রত্যেক পরিবারে মাঝে নগদ ৫০০০০ (পঞ্চাশ হাজার) টাকা করে তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা মো: শাহাবুদ্দিন, কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ মহানগীর সেক্রেটারি আবু রাকিব, জামায়াতের সদর আমীর নুরুল আমিন সিকদার, মিরকাদিম পৌরসভার আমীর ডা: ইব্রাহীম দেওয়ান, সদর থানা কর্মপরিষদ সদস্য সানাউল হক মৃধা, জসিম উদ্দিন, ইব্রাহীম খলিল প্রমুখ।
নিহত পরিবারের মধ্যে দক্ষিণ কেওয়ারের সনাতন ধর্মের স্বপন দাসের মা পার্বতী রানী দাস (৬০) ও বাবা নারায়ন দাস (৭২)। নিহত এই দুইজনের পরিবারের পক্ষে ছেলে স্বপন দাসের হাতে তুলে দেয়া হয় নগদ এক লাখ টাকা। নয়াগাও পূর্বপাড়ার নিহত লতা (১৯) ছোট বোন সাদিয়া (১১)। নিহত দুই বোনের পিতা মো: দুঃখ মিয়ার হাতেও তুলে দেয়া হয় এক লক্ষ টাকা। উত্তর চরমশুরার অলি উল্লাহ মাঝির স্ত্রী পখিনা বেগম (৪৫) মেয়ে বিথি (১৯), বিথির মেয়ে আরিফা (১১)। একই পরিবারের তিনজন মৃত্যুবরণ করে এই দুর্ঘটনায়। এই তিনজেনর নগদ দেড় লক্ষ টাকার আর্থিক সহায়তা গ্রহণ করেন অলি উল্লাহ মাঝির ভাই মিঠু মাঝি। মস্টার্সের ফলপ্রার্থী কেওয়ারের মোখলেছুর রহমানের মেয়ে নিহত রুনা আক্তার (২৪)। তার পরিবারের পক্ষ থেকে চাচা মো: মনির হোসেনের কাছে নগদ পঞ্চাশ হাজার টাকা তুলে দেয়া হয়। দক্ষিণ কোর্টগাও নিবাসী মো: দুলু মিয়ার কন্যা নিহত দোলা বেগম (৩৩)। তার পরিবারের পক্ষ থেকে নগদ পঞ্চাশ হাজার টাকা তুলে দেন নিহতের ভাই মো: রুবেলের হাতে। বাকী ১০ জনের প্রত্যেক পরিবারের মাঝেও নগদ পঞ্চাশ হাজার টাকা করে পর্যায়ক্রমে তুলে দেয়া হবে জানিয়েছেন জামায়াতের জেলা সভাপতি মাওলানা আব্দুল আউয়াল জেহাদী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ