বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

বই মেলা শেষ হচ্ছে আজ

স্টাফ রিপোর্টার : আজ শেষ হচ্ছে বই মেলা। করোনা নিয়ন্ত্রণে ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে কঠোর লকডাউন। ফলে নির্ধারিত সময়ের দুই দিন আগেই শেষ হচ্ছে অমর একুশে বইমেলা। স্টল মালিকরা বলছেন, লকডাউনের দুই দিন আগে মেলা বন্ধ করা হচ্ছে বলে প্রকাশকরা তাদের বইপত্রসহ যাবতীয় মালপত্র সরিয়ে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। তাই ১২ এপ্রিল মেলা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
দুই দিন আগে মেলা বন্ধ হওয়ায় নতুন করে কোনো ক্ষতি হবে না। গত ১১ মাসের ক্ষতির সঙ্গে বইমেলা আরেকটা লোকসান বলে আক্ষেপ নিয়ে জানিয়েছেন প্রকাশকরা। আর এ ক্ষতি পুষিয়ে ওঠা সম্ভব নয় বলেই মন্তব্য তাদের। বইমেলা নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা থাকলেও সেই আশাটা এবার পূরণ হয়নি। সুতরাং ১১ মাস ধরে যে খারাপ সময় যাচ্ছে, তার সঙ্গে বইমেলায় সৃষ্ট ক্ষতিতে প্রকাশকরা অস্তিত্ব সংকটে পড়বেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে।
সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি এবং সময় প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফরিদ আহমেদ বলেন, গত এক বছর ধরেই প্রকাশকরা খারাপ অবস্থার ভেতর আছেন। এই বইমেলাটা শুধু এক মাসের একটা অতিরিক্ত সংযোজন। এর আগে যে ভালো ছিলাম তা কিন্তু নয়। এর আগের ১১ মাসও খারাপ ছিলাম। বইমেলা নিয়ে আমাদের আশা ছিল যে, আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবো, কিন্তু সেই আশাটা আমাদের পূরণ হয়নি। সুতরাং ১২ মাস ধরে প্রকাশকদের যে পরিমাণ খারাপ যাচ্ছে, তার ফলে অস্তিত্ব সংকটে পড়াটাই স্বাভাবিক।
তিনি বলেন, মেলাটা যেভাবে যাচ্ছিলো এবং যে সময়ে মেলাটা কমিয়েছে, হিসেব করলে এছাড়া কোনো উপায় নেই। কারণ ১৪ তারিখ থেকে লকডাউন, আমাদের তো তার আগে থেকেই এগুলো গুছিয়ে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ দিতে হবে। সুতরাং এই সিদ্ধান্তে আমি কোনো দ্বিমতের সুযোগ দেখছি না।
বইমেলা ও করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত প্রকাশকদের ক্ষতিপূরণের দাবি করেছে পাবলিশার্স ফোরাম কাটাবন। ফোরামের ক্ষতিগ্রস্ত সদস্যদের তালিকা কর্তৃপক্ষের কাছে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ফোরামের সম্পাদক দেলোয়ার হাসান। প্রকাশনা সংস্থা চারুলিপির কর্ণধার হুমায়ুন কবির বলেন, এবারের মেলা আমাদের পথে বসিয়ে দিয়েছে। স্মরণকালের সবচেয়ে ব্যর্থ মেলা হিসেবেও এবারের মেলাকে অভিহিত করা যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ