শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আবদুল মুবীন মোহামেডানের সভাপতি 

স্পোর্টস রিপোর্টার : বুধবার ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। ক্লাবের স্থায়ী সদস্যদের অনুরোধে নির্বাচন কমিশন গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় বাড়িয়েছিল। প্রত্যাহারের সময় বাড়ালেও পরিচালক পদে কেউ মনোনয়ন প্রত্যাহার করেননি। ফলে ১৬ পরিচালক পদের বিপরীতে ২০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। পরিচালক পদের তুলনায় চারজন বেশি হওয়ায় একটি পক্ষ সমঝোতার উদ্যোগ নিয়েছিল। কেউ প্রত্যাহার করতে রাজি না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত আর সমঝোতা হয়নি। নির্বাচনই হচ্ছে ঐত্যিহবাহী ক্লাবে। ২০১১ সালে সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল মোহামেডানের। সমঝোতা না হলেও নির্বাচনকে স্বাগত জানাচ্ছেন ক্লাবের পরিচালক ও আসন্ন নির্বাচনের প্রার্থী মাহবুব আনাম, ‘নির্বাচন একটি সুষ্ঠু ও গণতান্ত্রিক মাধ্যম। ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে পাশাপাশি নির্বাচিতরাও আরো বেশি দায়িত্ববান হবে।’ বিকেলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবিএম রিয়াজুল কবির কাউছার বলেন, ‘আমরা প্রত্যাহারের সময়সীমা বাড়ানোর পরও কোনো প্রত্যাহার পত্র পাইনি। ফলে ২০ জনকে পরিচালক পদে চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে গণ্য করছি।’ সভাপতি পদে সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আবদুল মুবীন একাই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তিনি প্রত্যাহার না করায় তাকে গতকালই আনুষ্ঠানিকভাবে মোহামেডান ক্লাবের সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার, ‘সভাপতি পদে আমরা একটি মনোনয়নপত্র পেয়েছিলাম, একটি মনোনয়নপত্র রয়েছে। ফলে জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আবদুল মুবীনকে আগামী দুই বছরের জন্য সভাপতি হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়  নির্বাচিত ঘোষণা করা হচ্ছে।’ অনেক নির্বাচনে প্রতিটি পদে ভোট দেওয়া বাধ্যতামূলক। বিশেষ করে ফুটবল ফেডারেশনে প্রতিটি পদে ভোট না দিলে ব্যালট বাতিল। মোহামেডান ক্লাবে অবশ্য ভোটারদের সেই বাধ্যবাধকতা নেই, ‘একজন ভোটার চাইলে তার পছন্দ সংখ্যক প্রার্থীদের ভোট দিতে পারেন। নির্বাচন বিধিমালা পরিচালনা পর্ষদ অনুমোদন করে। নির্বাচন বিধিমালায় এই বিষয়ে কিছু থাকায় নির্বাচন কমিশনের পক্ষে আর নতুন বিধি আরোপ করা সম্ভব নয়’ বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার। আগামীকাল শনিবার ৬ মার্চ রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে মোহামেডান ক্লাবের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ২০ জন প্রার্থীর মধ্যে ১৬ জন পরিচালক বেছে নেবেন ৩৩৭ জন ভোটার। দুপুর দুইটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত চলবে ভোট। এর আগে সকালে হবে বার্ষিক সাধারণ সভা। 

সভাপতি : জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আবদুল মুবীন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত )

২০ পরিচালক প্রার্থী

মোহাম্মদ একরামুল হক, মঈন উদ্দিন হাসান রশীদ, মো. মোস্তাকুর রহমান, জামাল রানা, কাজী ফিরোজ রশীদ ,এমপি, মাছুদুজ্জামান, আবু হাসান চৌধুরি প্রিন্স, মোস্তফা কামাল, খুজিস্তা নূর-ই-নাহরীন, এ জি এম সাব্বির, শফিউল ইসলাম, সিদ্দিকুর রহমান, সাজেদ এএ আদেল, কবীর ভূঁইয়া,  মাহবুব আনাম, কামরুন নাহার ডানা, হানিফ ভূঁইয়া, আবদুস সালাম মুর্শেদী, মঞ্জুর আলম, প্রকৌশলী গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ