সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

ঝুলে আছে ঢাকার দুই সিটি মেয়রের মন্ত্রীর পদমর্যাদা

 

তোফাজ্জল হোসাইন কামাল : রাজধানী ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত দুই মেয়রের পূর্ণ মন্ত্রীর পদ মর্যাদা এখনও দেয়া হয়নি। তাদের দায়িত্ব গ্রহণের পর আট মাসেরও অধিক সময় কেটে গেলেও পদ মর্যাদার বিষয়টি ঝুলে আছে। ঢাকার দুই সিটি মেয়রের পদ মর্যাদা পূর্ণ মন্ত্রীর সমান হলেও সেটি ছাড়াই তাঁরা দৈনন্দিন কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়ররা মন্ত্রীর পদমর্যাদা পেলেও বর্তমান মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ও ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসকে এখনও তা দেয়া হয়নি। কবে নাগাদ এই মর্যাদা তারা পাবেন বা পাবেন না সে বিষয়েও কোন স্পষ্ট বক্তব্য নেই সংশ্লিষ্ট কারও কাছেই।

সিটি করপোরেশন সূত্র জানিয়েছে, দক্ষিণের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস ও উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর তারা নিজেদের দাফতরিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে যাচ্ছেন। তবে মন্ত্রী পদমর্যাদা নিয়ে সরকারের কাছ থেকে এখনও তাদেরকে কিছুই জানানো হয়নি। তবে সংস্থা দুটি মনে করছে, মেয়রদের এই বিশেষ মর্যাদা থাকলে সংস্থার কাজের গতি বাড়বে। তার সাথে কর্পোরেশন দুটির মানও বাড়বে।

এর আগে ২০১৫ সালে ২৮ এপ্রিল অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন এবং ঢাকা উত্তর সিটির প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক নির্বাচিত হওয়ার পর ২০১৬ সালের ২১ জুন মন্ত্রী পদমর্যাদা দিয়ে এক প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ। এরপর  আনিসুল হক মারা যাওয়ার পর ২০১৯ সালে উপ-নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ৯ মাস ডিএনসিসির মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছিলেন আতিকুল ইসলাম। তখন তিনিও মন্ত্রীর পদমর্যাদা ভোগ করেন। কিন্তু দুই করপোরেশনের বর্তমান মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ও ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস নতুন করে নির্বাচিত হওয়ার এক বছর পেরিয়ে গেলেও তাদের সেই পদমর্যাদা দেয়া হয়নি।

২০২০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ডিএনসিসিতে আতিকুল ইসলাম ও ডিএসসিসিতে শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র নির্বাচিত হন। ২৭ ফেব্রুয়ারি তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে ১৩ মে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেন আতিকুল ইসলাম। তার তিনদিন পর ১৬ মে নগর ভবনের দায়িত্ব নেন শেখ তাপস।  এছাড়া এর আগে অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরশনের প্রয়াত মেয়র সাদেক হোসেন খোকা মন্ত্রী এবং দেশের অন্যান্য সিটি করপোরশনের মেয়রেরা প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা পেয়েছিলেন।

জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, মেয়রদের মর্যাদা দেয়ার অধিকার ও ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর। তার নির্দেশনা অনুযায়ী এই বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। তবে এখন পর্যন্ত এমন কোনও নির্দেশনার খবর পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, সিটি করপোরেশন আইনে মেয়রদের পদমর্যাদার বিষয়ে কিছু বলা নেই। সরকার কোনও কোনও মেয়রের পদমর্যাদা নির্ধারণ করে দেয়। এর আগে বিগত বিএনপি সরকারের আমলে অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র সাদেক হোসেন খোকাকে মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়া হয়েছিল।

মেয়রদের পদমর্যাদা নির্ধারিত না থাকায় রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে তাদের প্রটোকল নিয়ে মাঝেমধ্যে সমস্যা দেখা দেয় বলে মেয়র ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা বলে আসছিলেন। তাদের এমন দাবির প্রেক্ষিতে সরকার মেয়রদের পদমর্যাদা নির্ধারণ করে আসছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন পদস্থ কর্মকর্তা জানান, সরকারি কর্মবিভাজন (রুলস অব বিজনেস) অনুযায়ী এই ধরনের মর্যাদা দেয়ার অধিকার ও ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর। আগের মেয়রদের যে পদমর্যাদা দেয়া হয়েছে বা ভবিষ্যতে দেয়া হতে পারে তা মেয়র পদকে দেয়া হয় না। দেয়া হয় নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে। তাই ব্যক্তিটি কেমন, সেটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। 

বর্তমানে ঢাকার বাইরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভি উপমন্ত্রীর পদ মর্যাদা ভোগ করছেন। এর বাইরে দেশের আরও ৮টি সিটি কর্পোরেশন আছে। সেসব সিটি মেয়রদেরও পদ মর্যাদার বিষয়টি এখনও নির্ধারিত করেনি সরকার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ