সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ ধ্বংসের পাঁয়তারা হচ্ছে -ছাত্রশিবির

অবিলম্বে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হল খুলে দেয়া, পরীক্ষা নেয়াসহ সারাদেশে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নেওয়ার জোর দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। 

গতকাল শুক্রবার দেয়া যৌথ বিবৃতিতে ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি সালাহউদ্দিন আইউবী ও সেক্রেটারি জেনারেল রাশেদুল ইসলাম বলেন, শিক্ষাব্যবস্থার প্রতি সরকারের অবহেলা ও উদাসীনতার কারণে শিক্ষার্থীরা তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত এবং মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের একের পর এক কা-জ্ঞানহীন সিদ্ধান্ত শুধু শিক্ষার্থীদের নয় বরং পুরো দেশবাসীকে বিক্ষুব্ধ করে তুলেছে। দেশের অফিস-আদালত, ব্যবসা-বাণিজ্য, যানবাহনসহ সবকিছু স্বাভাবিকভাবে চললেও শুধুমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ ধ্বংস করার পাঁয়তারা করা হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতিতে সরকার বিভিন্ন খাতে হাজার হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা দিলেও আগামীর দেশগড়ার কারিগর লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থীদের দূরবস্থাকে চাতুরতার সাথে এড়িয়ে গেছে। করোনাকালে শিক্ষার্থীরা মানবেতর জীবন যাপন করলেও তাদের প্রতি ভ্রুক্ষেপ করেনি। অন্যদিকে অতিরিক্ত হারে সেশন ফি-সহ অন্যান্য ফি-জরিমানা, বেতন বহাল রাখা হয়েছে। আবার হঠাৎ করেই মাত্র একটি পরীক্ষা বাকী রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজ ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। সরকার শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে নিরেট তামাশা শুরু করেছে। সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সার্বিক দায়িত্বহীন আচরণে মনে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের প্রতি তাদের ন্যূনতম কোন দায়বদ্ধতা নেই। এটা কোন সভ্য দেশের চিত্র হতে পারে না।

নেতৃবৃন্দ সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্রতিটি দাবিই যৌক্তিক এবং দাবিগুলো তাদের ক্যারিয়ারের সাথে জড়িত। শিক্ষার্থীদের এসব দাবির সাথে শুধু ছাত্রসমাজ নয় বরং অভিভাবকসহ বিবেকবান সকলেই একমত। শিক্ষার্থীরা আগে থেকেই এসব যৌক্তিক দাবি করে আসছিলো। কিন্তু সরকার কোনভাবেই তাদের দাবির প্রতি কর্ণপাত করেনি। ফলে তাদের রাস্তায় নেমে আসতে হয়েছে। সরকারকে অবিলম্বে শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিতে হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হল খুলে দিতে প্রয়োজনে অর্থ বরাদ্দ করে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে। অন্যথায় শিক্ষার্থীদের প্রতি এমন দায়িত্বহীন আচরণ অব্যাহত রাখলে সারাদেশে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটবে। আর তখন কোন অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে তার দায়ভার সরকারকেই বহন করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ