সোমবার ০১ মার্চ ২০২১
Online Edition

সাকিবের টেস্ট না খেলার সিদ্ধান্ত আমাকে হতাশ করেছে : পাপন

স্পোর্টস রিপোর্টার : শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলবেন না সাকিব আল হাসান। এজন্য বিসিবিতে ছুটি চেয়ে একটি চিঠিও দিয়েছেন সাকিব। আগামী এপ্রিলে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলার কথা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। কিন্তু সাকিব সেই সিরিজ বাদ দিয়ে আইপিএল খেলতে যাবেন। আর তাতেই সাকিবকে নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। নতুন করে কেন্দ্রীয় চুক্তি করার আগে বেশ কিছু বিষয় সংযুক্ত করার চিন্তা করছে ক্রিকেট প্র্রশাসন। গতকাল এমনটাই জানালেন বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন এখন থেকে জাতীয় দলের কোনো ম্যাচে ক্রিকেটারদের খেলানোর জন্য জোর করবে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। নিউজিল্যান্ড সফরের আগে সিনিয়র খেলোয়াড়, বোর্ড কর্মকর্তা ও কোচদের সঙ্গে বৈঠকের পর মিরপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন তিনি। যেখানে ওঠে এসেছে সাকিব আল হাসানের সঙ্গে বোর্ডের চুক্তির বিষয়ও। তবে এ ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি জানান বিসিবি সভাপতি। বিসিবি প্রধান হতাশা প্রকাশ করে বলেছেন, ‘সাকিবের সিদ্ধান্তে যে হতাশ হয়েছি, এটা অস্বীকার করার কোন কারণ নেই। এর আগেও এমন হয়েছে। আমাদের অবস্থান পরিষ্কার, আমরা কাউকে জোর করে খেলাবো না। কেউ যদি খেলতে না চায়, তাহলে সে খেলবে না। আমরা চাই নিজেদের সিদ্ধান্ত ওরা নিজেরা নিক।’ এর পরেই তিনি বলেছেন পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় চুক্তিতে কিছু বিষয় পরিষ্কার থাকবে, ‘চুক্তিতে কিছু বিষয় পরিষ্কার থাকবে। যাতে পরে কে খেলবে, খেলবে না এ নিয়ে সমস্যা তৈরি না হয়। যেগুলো চুক্তিতে সই করার আগেই বলে দেওয়া থাকবে।’ বোর্ড প্রধান আক্ষেপ করে বলেছেন, ‘আমরা বিব্রত নই। তবে আমাদের সবার মন খারাপ হয়েছে। দেখেন একজন খেলোয়াড়ের পেছনে আমাদের বিনিয়োগতো কম নয়। সবকিছু মিলিয়ে একজন খেলোয়াড়ের পেছনে যা ব্যয় হয়, তাতো আগে কল্পনা করাও যেত না। এই জায়গাতে এই রকম দুইট টেস্ট ম্যাচ হারের পরও সাকিব কীভাবে এমন সিদ্ধান্ত নেয়, সেটা আমার চিন্তাও আসে না। আমার ধারনা ছিল সবাই পরের টেস্টটা জয়ের জন্য উদগ্রীব হয়ে থাকবে। সেই জায়গা থেকে যদি কেউ বলে আমি টেস্ট খেলবো না, ফ্র্যাইঞ্চাজি লিগ খেলবো। তাহলে আসলে আমাদের করার কিছুই থাকে না। আমাদের পরিষ্কার কথা, কাউকে আমরা জোর করে খেলাবো না।’ সাকিব ইস্যুতে বোর্ড প্রধান আরও বলেছেন,‘আজকে যে সকল খেলোয়াড়রা তারকা হয়েছেন। প্রথম ৬/৭ বছরে তাদের গড় কত ছিল। খেলতে খেলতেইতো তারা আজকের অবস্থানে পৌঁছেছেন। যখন তাদের সার্ভিস আমাদের পাওয়ার কথা, তখন তারা দলের কথা চিন্তা করছে না। সেটাতো অবশ্যই হতাশাজনক।’ সাকিবের টেস্ট না খেলা প্রসঙ্গে পাপন আরো বলেন, ‘যারা নাকি ওডিআই খেলবে, যারা টি-টোয়েন্টি খেলবে তারা বলে দেবে যে, আমি টেস্ট খেলবো না। কোথায় কোথায় টুর্নামেন্ট হবে আমরা ওসবে খেলবো। বলে দিক, আমরা তো লিখিত নিয়ে নিচ্ছি। যে বলবে জাতীয় দলে খেলবে, তাকে খেলতেই হবে। প্রধান বিষয় হচ্ছে, সাকিব কে তো খেলানো যাবে না জোর করে, ওকে খেলতে না দিলে কি করতো? হয়তো খেলতো। কিন্তু আমরা ওটা চায় না। আমরা চায়, যারা এই খেলাটাকে ভালোবাসে, সেই খেলুক। কাউকে জোর করে আমি খেলাতে চাই না। সাকিব তো আরও তিন বছর আগেই টেস্ট খেলতে চায়নি। ও আসলে টেস্টের প্রতি আগ্রহী ছিল না। তখন তাকে অধিনায়ক করে দেওয়া হলো। কিন্তু জোর করে খেলানোর কোনো মানে হয় না। এছাড়া বিসিবি সভাপতি পাপন জানান, এখন থেকে যে কোনো সফরে বোর্ডের কর্মকর্তা, সেটা জালাল ইউনূস হতে পারে বা খালেদ মাহমুদ সুজন খেলোয়াড়দের সঙ্গে থাকবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ